বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে রকিবুলের রেকর্ড

রকিবুল হাসান ক্রিজে আসার সময় আবাহনীর বিপক্ষে বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় কাঁপছিল মোহামেডান। অধিনায়কোচিত ব্যাটিংয়ে তিনি দলকে ফিরিয়েছিলেন লড়াইয়ে। শেষ পর্যন্ত জেতাতে পারেননি, কিন্তু বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশি কোনো ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছেন তিনি।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 May 2017, 12:24 AM
Updated : 8 May 2017, 01:18 PM

শেষ ওভারে ফিরে যাওয়ার সময় রকিবুলের নামের পাশে জ্বলজ্বল করছিল ১৯০।

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের একমাত্র ত্রিশতক রকিবুলের। খেলেছিলেন অপরাজিত ৩১৩ রানের ইনিংস। ক্রিকেটের দুটি সংস্করণে দেশের সবচেয়ে বড় ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড এখন তার অধিকারে।

চলতি প্রিমিয়ার লিগেই নিজের প্রথম ম্যাচে কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের বিপক্ষে ১৫৭ রান করেছিলেন মোহামেডানের অধিনায়ক তামিম। সেই ইনিংসে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে নিজের রেকর্ডই আরেকটু সমৃদ্ধ করেছিলেন তিনি। বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের রেকর্ড নিজের করে নিলেন রকিবুল, যিনি তামিমের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন এখন।

লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের মাটিতে সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটিও এখন রকিবুলের। ২০১১ সালের সফরে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়াটসনের অপরাজিত ১৮৫ ছিল আগের সেরা।   

নিজের সাবেক দল আবাহনীর বিপক্ষে শুরু থেকেই খুনে মেজাজে ছিলেন রকিবুল। ৩০ বলে আসে তার অর্ধশতক, রান তিন অঙ্কে নিয়ে যান ৬২ বলে।

১০৭ বলে স্পর্শ করেন দেড়শ রান। শেষ ওভারে যখন স্ট্রাইক পান জয়ের জন্য ৫ বলে দরকার ছিল ২৯ রান, দ্বিশতকের জন্য ১০। স্বার্থপর ব্যাটিং না করে চেষ্টায় ছিলেন প্রায় অসম্ভব সেই জয়ের। সফল হননি, ফিরে যান কাজী অনিকের বলে মানান শর্মাকে ক্যাচ দিয়ে।

উইকেটের চারপাশে শট খেলে আবাহনীকে দিশেহারা করে তুলেছিলেন রকিবুল। ১৩৮ বলের ইনিংসে হাঁকিয়েছেন ১৭টি চার আর ১০টি ছক্কা। বাউন্ডারি থেকেই এসেছে ১০৮ রান।

লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ১১টি ছক্কার রেকর্ড মাশরাফি বিন মুর্তজার। অল্পের জন্য সেই রেকর্ড স্পর্শ করতে পারেননি রকিবুল।

২০১১ সালে জাতীয় দলের হয়ে শেষবার খেলা রকিবুলের লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এটা পঞ্চম শতক। তার আগের সেরা ছিল ১৩৩ রান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক