পুরানের ঝড়ে চ্যাম্পিয়ন এমআই এমিরেটস, পোলার্ড-ব্রাভোর আরেকটি শিরোপা

আইপিএলের ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের মালিকানাধীন ফ্র্যাঞ্চাইজি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এমিরেটস জিতে নিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের আইএল টি-টোয়েন্টির দ্বিতীয় আসরের শিরোপা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Feb 2024, 05:22 AM
Updated : 18 Feb 2024, 05:22 AM

আইপিএলে যৌথভাবে সর্বোচ্চ ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ফ্র্যাঞ্চাইজির সাফল্যের ছোঁয়া লাগল এবার আইএল টি-টোয়েন্টিতে। একই ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকাধীন দল এমআই এমিরেটস (মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এমিরেটস) জিতে নিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগটির দ্বিতীয় আসরের শিরোপা। তাদের অধিনায়ক নিকোলাস পুরান ঝড়ো ফিফটিতে ফাইনালেরও নায়ক।

দুবাইয়ে ফাইনালে শনিবার দুবাই ক্যাপিটালসকে ৪৫ রানে হারায় এমআই এমিরেটস।

পুরানের শিরোপাজয়ী দলে ছিলেন টি-টোয়েন্টির দুই মহারথী ডোয়াইন ব্রাভো ও কাইরন পোলার্ড। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সবচেয়ে বেশি ট্রফিজয়ী ক্রিকেটার তারা আগে থেকেই। এবার ১৭তম ট্রফি জিতে রেকর্ড আরও সমৃদ্ধ করলেন দুই ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার।

দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা এমআই এমিরেটসকে দুর্দান্ত শুরু এনে দেন মুহাম্মাদ ওয়াসিম ও কুসাল পেরেরা। পাওয়ার প্লেতে দুজন তোলেন ৭২ রান।

৭৭ রানের উদ্বোধনী জুটি থামে ওয়াসিমের বিদায়ে। ৩ করে চার ও ছক্কায় ২৪ বলে ৪২ রান করেন তিনি। পেরেরা আউট হন ২৬ বলে ৩৮ রান করে।

পাওয়ার প্লের পর সিকান্দার রাজা ও জাহির খানের বোলিংয়ে একটু কমে আসে রানের গতি। পরের ৬ ওভারে রান আসে কেবল ৩১। তবে আন্দ্রে ফ্লেচার ও নিকোলাস পুরানের সৌজন্যে আবার ঝড় ওঠে ইনিংসের পরের ভাগে।

ফ্লেচারের রান এক পর্যায়ে ছিল ২৫ বলে ২৩। সেখান থেকে ইনিংসের গতি বদলান তিনি পরে। শেষ পর্যন্ত আউট হন ৪ ছক্কায় ৩৭ বলে ৫৩ করে।

পুরানের রানও একসময় ছিল ১৩ বলে ১৩। তিনি তান্ডব চালান শেষ তিন ওভারে। জেসন জোল্ডার, অলিভার স্টোন ও স্কট কুগেলাইনকে গুঁড়িয়ে দেন তিনি। ইনিংসের শেষ তিন বলে মারেন এক চার দুই ছক্কা।

৬ ছক্কায় ২৭ বলে ৫৭ করে অপরাজিত থেকে যান পুরান। শেষ তিন ওভারে ৫০ রান তুলে এমআই এমিরেটসের ইনিংস থামে ২০৮ রানে।

এবারের মৌসুমের প্রথম দুইশ রানের ইনিংস এটি।

৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন দুবাই ক্যাপিটালসের আফগান বাঁহাতি রিস্ট স্পিনার জাহির, ৩ ওভারে ২৭ রানে ১টি নেন সিকান্দার রাজা।

রান তাড়ায় কোনো সম্ভাবনাই সেভাবে জাগাতে পারেনি দুবাই। বড় ইনিংস খেলতে পারেননি টপ বা মিডল অর্ডারের কেউ। ওপেনিংয়ে টম ব্যান্টন ২০ বলে ৩৫ করে আউট হয়ে যান। তিনে নেমে টম অ্যাবেল ১৪ রান করতে খেলেন ১৬ বল।

অধিনায়ক স্যাম বিলিংস কিছুটা আশা জাগালেও বিদায় নেন ২৯ বলে ৪০ করে। শেষ দিকে ১৬ বলে ২৪ করেন জেসন হোল্ডার। তবে সেভাবে হুমকি হয়ে উঠতে পারেননি কেউ।

৪ ওভারে ২০ রানে ২ উইকেট নিয়ে এমআই এমিরেটসের সেরা বোলার ট্রেন্ট বোল্ট, ২৪ রানে ২টি নেন লঙ্কান লেগ স্পিনার ভিজায়াকান্থ ভিয়াসকান্থ।

ফাইনালের ম্যাচ সেরা পুরান। আসরে ৩১৩ রান করে ও ১৩ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্ট সেরার স্বীকৃতি ‘রেড বেল্ট’ পান সিকান্দার রাজা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘ব্লু বেল্ট’ টানা দ্বিতীয়বারের মতো জিতে নিনে মুহাম্মাদ ওয়াসিম। ৩৫৬ রান করে সর্বোচ্চ রান স্কোরারের ‘গ্রিন বেল্ট’ জেতেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান জেমস ভিন্স।