সততার সঙ্গে বলতে না পারা লেখকের জন্য অগৌরবের: সেলিনা হোসেন

“নিপীড়নের পরেও লেখক সত্য ও ন্যয়ের পথে সোচ্চার থাকেন বলে তিনি জাতির বিবেক বলে বিবেচিত হন।”

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 July 2022, 12:26 PM
Updated : 26 July 2022, 12:26 PM

লেখকের চারপাশে এক ধরনের অদৃশ্য শেকল পরানো থাকে মন্তব্য করে কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেছেন, সততার সাথে বলতে না পারা একজন লেখকের জন্য অগৌরবের।

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর আফতাবনগরে ইস্ট ওয়েস্ট ইউনির্ভাসিটিতে অনুষ্ঠিত এক বক্তৃতা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

বাংলা একাডেমির সভাপতি সেলিনা হোসেনের কথায়, “লেখকের স্বাধীনতা নেই বলেই যুগে যুগে বিশ্বব্যাপী লেখকদের ওপর অত্যাচার ও নিপীড়ন হয়ে এসেছে। তবে এতো নিপীড়নের পরেও লেখক সত্য ও ন্যয়ের পথে সোচ্চার থাকেন বলে তিনি জাতির বিবেক বলে বিবেচিত হন।”

‘সাহিত্যের ভুবনে লেখকের পথচলা’ শীর্ষক এ বক্তৃতায় তিনি বলেন, “লেখক নিজের অনুভবের প্রতি সৎ থেকে মেরুদণ্ডকে শক্ত করবেন এবং লিখে যাবেন।

“তিনি যেন পরগাছা হয়ে অন্যের ইচ্ছে-অনিচ্ছের দাসত্ব না করেন। সততার সাথে বলতে না পারা একজন লেখকের জন্য অগৌরবের।”

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা আকবর আলি খানের প্রয়াত কন্যা এবং ইস্ট ওয়েস্ট ইউনির্ভাসিটির সাবেক শিক্ষার্থী নেহরীন খানের স্মরণে এ বক্তৃতা ও সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা পদক ও একুশে পদকে ভূষিত সাহিত্যিক সেলিনা হোসেনকে সম্মাননা দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন ইস্ট ওয়েস্ট ইউনির্ভাসিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সৈয়দ মঞ্জুর এলাহী, উপাচার্য অধ্যাপক এম এম শহিদুল হাসান, সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ফখরুল আলম, কোষাধ্যক্ষ এ জেড এম শফিকুল আলম ও ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক আরিফুল ইসলাম।

ইয়াজউদ্দীন আহম্মেদ নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা আকবর আলি খানসহ বিশিষ্টজনরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক