তেলের দাম বৃদ্ধি জনগণের প্রতি নির্দয় আচরণ: জাপা

আন্তর্জাতিক বাজারে যখন জ্বালানি তেলের দাম কমছে, তখন দেশে বৃদ্ধির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন জি এম কাদেরের।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 August 2022, 08:42 AM
Updated : 6 August 2022, 08:42 AM

সঙ্কটের সময়ে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সমালোচনা করেছেন সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

তিনি এক বিবৃতিতে বলেছেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর মধ্যে দিয়ে সরকারের ‘নির্দয়’ আচরণ প্রকাশ পেয়েছে।

মহামারীর পর ইউক্রেইন যুদ্ধের মধ্যে যখন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের জীবন সঙ্কটে, তখন জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার।

বাস-ট্রাকের জ্বালানি ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা হয়েছে। ছোট গাড়ি ও মোটর সাইকেলের জ্বালানি পেট্রোল ও অকটেনের দাম যথাক্রমে বেড়েছে ৪৪ ও ৪৬ টাকা।

জ্বালানির দাম বাড়ার ফলে পরিবহন ভাড়া যেমন বাড়বে, তেমনি নিত্যপণ্যের দামও আরেক দফা বাড়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

বিবৃতিতে কাদের বলেন, “জ্বালানি তেলের এমন মূল্যবৃদ্ধিতে জনজীবনে মহাবিপর্যয় সৃষ্টি হবে। ৫১ শতাংশেরও বেশি পর্যন্ত জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নির্দয় ও নজীরবিহীন। প্রমাণ হল, দেশের মানুষের প্রতি সরকারের কোনো দরদ নেই।”

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রভাব অন্য ক্ষেত্রে পড়ে মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যাবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

“বেড়ে যাবে পরিবহন ব্যয়। নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাবে কয়েকগুণ। পাশাপাশি দেশীয় পণ্যের উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাবে, বাড়বে দামও। এতে রপ্তানি শিল্পেও বিপর্যয় সৃষ্টি হবে। ভয়াবহ পরিণতির দিকে অগ্রসর হবে দেশের অর্থনীতি।”

ইউক্রেইন যুদ্ধের কারণে বছরের শুরুতে বিশ্বের জ্বালানি বাজার অস্থির হলেও এখন যখন দাম কমছে, তখন মূল্য বৃদ্ধির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা কাদের।

তিনি বলেন, “বিশ্বজুড়ে জ্বালানি তেলের দাম এখন নিম্নমুখী। গত ৪-৫ মাসে বিভিন্ন স্থানে বেঞ্চমার্ক ক্রুড ওয়েলের দাম কমেছে ২৯ থেকে ৩০ শতাংশ। ইউএস বেঞ্চমার্ক ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডব্লিউটিআই) তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৮৯ ডলারের নিচে নেমে যায়। গত মার্চে যার দর উঠেছিল ১২৪ ডলারে।

“আন্তর্জাতিক বেঞ্চমার্ক ব্রেন্ট ক্রুড প্রতি ব্যারেল বিক্রি হয় ৯৪ ডলারে। সারাবিশ্বে যখন জ্বালানি তেলের দাম কমতে শুরু করেছে, তখন দেশে তেলের মূল্য বৃদ্ধি সকল মহলকে হতাশ করেছে।”

কাদের জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির ‘গণবিরোধী’ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক