নিকানর পাররা’র কবিতাগুচ্ছ

সাইফুল ভূঁইয়ার ভাবানুবাদে চিলির প্রধান কবির একগুচ্ছ কবিতা

সাইফুল ভুঁইয়াসাইফুল ভুঁইয়া
Published : 12 August 2022, 08:59 AM
Updated : 12 August 2022, 08:59 AM

বিশ শতকে লাতিন অ্যামেরিকার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি নিকানর পাররা চিলির ফ্যাবিয়ানের এক শিল্পী পরিবারে ১৯১৪ সালের ৫ই সেপ্টেম্বর জন্ম গ্রহণ করেন। চিলি বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয় এবং অক্সফোর্ড থেকে গণিত ও পদার্থবিদ্যায় উচ্চ শিক্ষা করা নিকানর পাররা ছিলেন পদার্থবিদ্যার শিক্ষক। তিনি প্রচলিত কাব্যধারা ভেঙে এক অভিনব বিতর্কিত কাব্যধারা “প্রতিকবিতা” প্রবর্তন করেন। ১৯৩৭ সালে প্রকাশিত তাঁর প্রথম গ্রন্থেই প্রতিকবিতার ধারণা যাতে সহজবোধ্য, বিদ্রূপাত্মক আর অদ্ভুত ভাষার প্রয়োগ করেন। বেশ কয়েকবার নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত পাররা ২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারী মৃত্যু বরণ করেন। ইংরেজি অনুবাদের ভিত্তিকে বাংলায় ভাবানুবাদ করেছেন কবি-অনুবাদক সাইফুল ভূঁইয়া

অলীক পুরুষ

এক অলীক পুরুষ

কল্পিত এক নদীর তীরে

ভাবনার বৃক্ষঘেরা স্বপ্নের কুটিরে

এক কাল্পনিক দেয়ালে

ঝুলন্ত এক কাল্পনিক পুরনো চিত্র

অমোচনীয় কল্পিত ফাটল

যেন অলীক পৃথিবীতে

ঘটছে কল্পিত কিছু

অন্য সময়ে অন্য ভুবনে

প্রতিটি দুপুর অলীক দুপুর

কল্পিত সিঁড়ি বেয়ে উঠে যায়

ঝুলে থাকে কল্পিত বেলকনিতে

দেখে কল্পিত দৃশ্য

কল্পিত পাহাড়ঘেরা কল্পিত উপত্যকা

কল্পিত সূর্যের মৃত্যুতে

কল্পিত শোকগীত গেয়ে

কল্পিত পথ ধরে

নেমে আসে কল্পিত ছায়া

আর কল্পিত জ্যোৎস্নায়

ভাবে অলীক নারীর কথা

যে দিয়েছিল অলীক ভালবাসা

আরেকবার অনুভব করছে

সেই বেদনা সেই কল্পিত পুলক

আর আবার স্পন্দিত হয়

সেই অলীক পুরুষের হৃদয়

From “The Imaginary Man” translated by T. Wignesan

শান্তিতে ঘুমাও

নিশ্চিন্তে, শান্তিতে ঘুমাও

তবে স্যাঁতস্যাঁতে এই জমি?

এই শ্যাওলা?

আর সমাধিপ্রস্তরের ভার?

মাতাল গোরখোদক?

যারা চুরি করে ফুলদানি?

সেইসব ইঁদুর

কুরে কুরে খায় কফিনের কাঠ?

আর অভিশপ্ত কেঁচোগুলো?

যারা হামাগুড়ি দিয়ে যাচ্ছে সর্বত্র

অসম্ভব করেছে আমাদের মৃত্যু..

অথবা তুমি কি সত্যিই ভাবছো-

কী হচ্ছে, কিছুই জানি না আমরা...

from “Rest in Peace,” translated by Edith Grossman

রোলারকোস্টার


আমার রোলারকোস্টার নির্মাণের পূর্বে

অর্ধশতাব্দী ধরে

কবিতা ছিলো

সম্ভ্রান্ত বোকাদের স্বর্গ।


যদি ভাল লাগে চলে যাও শীর্ষে

এটা আমার দোষ নয়

যদি ফিরে আসো নীচে

নাক-মুখ ভাসবে রক্তে।

from English translation by Miller Williams

আকাশমনি

বহুবছর আগে হাঁটতে হাঁটতে

এক আকাশমনি-পুস্পিত পথে

পরিণয়ের খবর

দিয়েছিলো এক সবজান্তা বন্ধু।

বলেছিলাম

অসহায়ত্বের কথা

ভালোবাসিনি তোমাকে

তুমিই জানতে বেশী

এখনও যখন আকাশমনি ফোটে

বিশ্বাস করো তুমি! একই অনুভূতি

পরিণয়ের হৃদয়ভাঙ্গা খবর

যতোটা ধ্বংস করেছিলো আমাকে।


from English translation by David Unger

নিচ্ছি ফিরিয়ে, যা বলেছি সব

চলে যাওয়ার আগে

নিচ্ছি ফিরিয়ে, যা বলেছি সব।

জানাতেই হবে অন্তিম ইচ্ছা:

মহানুভব পাঠক

পুড়িয়ে দিন এইসব গ্রন্থ

যা বলতে চেয়েছি এখানেই শেষ নয়।

যদিও রক্তে লিখেছিলাম

যা চেয়েছি বলতে, ঠিক এমন নয়।

কে আর আছে এমন, আমার চেয়ে দূর্ভাগা

নিজের ছায়ায় নিজেই ফেলেছি হারিয়ে

নিজের বাণী নিয়েছে প্রতিশোধ।

ক্ষমা করুন পাঠক, সুযোগ্য পাঠক

যদি বিদায় নিতে না পারি উষ্ণ আলিঙ্গনে।

যদি চলে যেতে হয়

অনিচ্ছায় আর বিমর্ষ হাসিতে।

হতে পারে তেমনই আমি

কিন্তু, মনে রেখো শেষ কথা:

যা বলেছি, নিচ্ছি ফিরিয়ে সব।

জীবনের নির্মমতম বেদনায়

নিচ্ছি ফিরিয়ে সব।

I Take Back Everything I’ve Said//Nicanor Parra

( translated to English by Miller Williams)

অন্তিম কামনা

ভাল লাগুক আর না লাগুক

আছে মাত্র তিন সত্য

অতীত বর্তমান ভবিষ্যত।


এমনকি তিনটিও নয়

দার্শনিকগণ বলেন

অতীত তো অতীত

কেবল স্মৃতিতেই থাকে:

ইতোমধ্যে ছেঁড়া গোলাপ থেকে

যাবে না তোলা আর কোন পাপড়ি।


আর মাত্র

দুটোই আছে তাস

বর্তমান আর ভবিষ্যত।


এবং এমনকি দুটোও নয়

কারণ আমরাতো জানি

বর্তমানের নেই অস্তিত্ব

তা কেবলই অতীতের এক প্রান্ত

এবং তারুণ্যের মতো

হয়ে গেছে ভুক্ত...


অবশেষে,

থাকে কেবল ভবিষ্যত।

তুলে ধরি পানপাত্র

সেই দিনের দিকে যা আসবে না কখনো।


কিন্তু আসলে

এটাই আমাদের অন্তিম পরিণতি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক