ইউক্রেইন যুদ্ধে নতুন সেনা নিয়োগে ছাড়ের তালিকা দিল রাশিয়া

রাশিয়ার আইটি কর্মী, ব্যাংকার এবং রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে কাজ করা সাংবাদিকরা নতুন সেনা নিয়োগ প্রক্রিয়া থেকে রেহাই পাবেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Sept 2022, 03:24 PM
Updated : 23 Sept 2022, 03:24 PM

ইউক্রেইন যুদ্ধে শক্তি বাড়াতে রাশিয়ার আংশিক সেনাসমাবেশের ঘোষণার পরপরই রুশ নাগরিকদের দেশ ছাড়ার হিড়িকের মধ্যে এবার নতুন সেনা নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ছাড়ের তালিকা প্রকাশ করেছে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

বুধবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছিলেন, আইটি কর্মী, ব্যাংকার এবং রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে কাজ করা সাংবাদিকরা ‘আংশিক সেনাসমাবেশে’ সামিল হওয়া থেকে রেহাই পাবেন।

পুতিনের এই ছাড়ের ঘোষণাই শুক্রবার প্রকাশ করে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, নিয়োগকর্তাদেরকে তাদের যেসব কর্মী এ বৈশিষ্ট্যের আওতায় পড়বে তাদের একটি তালিকা তৈরি করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কার্যালয়ে জমা দিতে হবে।

তবে একইসঙ্গে আরও কিছু খাতের কর্মীদেরকেও যুদ্ধে না পাঠানোর বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েছে মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে আছে বিশেষত, উচ্চ-প্রযুক্তির শিল্প খাত এবং রাশিয়ার অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা খাত।

বুধবার প্রেসিডেন্ট পুতিনের ইউক্রেইনে নতুন সেনা সমাবেশের ঘোষণার পরপরই রাশিয়ায় এর বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। খসড়া তৈরির কাজও শুরু হয়ে গেছে। ইউক্রেইন যুদ্ধে রুশ বাহিনী ধাক্কা খাওয়ার পর এই রিজার্ভ সেনা তলব করা শুরু হয়েছে।

পুতিনের ওই ঘোষণার পর থেকেই রুশ নাগরিকরা দলে দলে দেশ ছাড়ছে, রিজার্ভ সেনা হিসেবে তারা যুদ্ধে যেতে চায় না। দেশত্যাগের জন্য রাশিয়ার সীমান্তে লম্বা সারি তৈরি হয়েছে। যুদ্ধে যাওয়ার বয়সীরা দেশ ছাড়ছে। বিমানের টিকিট বিক্রি বেড়ে গেছে।

পুতিনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রাশিয়ায় বিক্ষোভও হচ্ছে। চলছে ব্যাপক ধরপাকড়ও। রাশিয়ার হিউম্যান রাইটস গ্রুপ ওভিডি-ইনফোর হিসাবমতে, সব মিলিয়ে ১ হাজার ৩০০’র বেশি বিক্ষোভকারী গ্রেপ্তার হয়েছে।

ক্রেমলিন বলছে, যাদের সামরিক প্রশিক্ষণ আছে এবং যুদ্ধ করার অভিজ্ঞতা আছে তাদেরকেই রিজার্ভ সৈন্য হিসেবে ডাকা হবে। কিন্তু অনেকেরই আশংকা, রিজার্ভ সেনা হিসেবে যাদের যুদ্ধে পাঠানো হবে তারা সে দলে পড়ে যেতে পারেন।

তাছাড়া, রিজার্ভ সেনা হিসেবে সরকার তলব করার পর কেউ সেটি এড়িয়ে যেতে চাইলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসাবে গণ্য হয়। রাশিয়ার এক পিএইচডি ছাত্র বিবিসি-কে বলেছেন, তাকে এরই মধ্যে রিজার্ভ সেনা হিসেবে ডাকা হয়েছে।

রাশিয়ার আরেক ছাত্র বলেছেন, “মানুষজন জেগে উঠেছে। তারা তাদের সন্তানদের লুকাতে চাইছে। তারা এখন বুঝতে পারছে যে কি ঘটছে। কারণ এখন তারা সরাসরি এর ফল ভোগ করছে।”

আরেক আইটি কর্মী বিবিসি-কে বলেছেন, তিনি যুদ্ধের বিরোধী। কিন্তু এটা নিয়েকথা বলতে তিনি খুবই ভয়ে আছেন।

তিনি বলেন, “আমি আমার জীবন, পরিবারের জীবন ঝুঁকিতে ফেলতে চাই না। আমি আটক অবস্থায়ও পড়তে চাই না।আমি যা করতে পারি তা হচ্ছে শেনজেন অঞ্চলের ভিসা পাওয়া। আর ভাগ্যক্রমে মে মাসে আমি একটা পেয়ে গেছি।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক