ইউক্রেইনে প্রায় ৬ হাজার সেনা নিহত হয়েছে: রাশিয়া

আহত রুশ সেনাদের ৯০ শতাংশ ফের যুদ্ধক্ষেত্রে ফিরে গেছে বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Sept 2022, 08:37 AM
Updated : 22 Sept 2022, 08:37 AM

ইউক্রেইনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত রাশিয়ার ৫৯৩৭ সেনা নিহত হয়েছে বলে রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু জানিয়েছেন।

বুধবার টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে তিনি এ তথ্য জানান।  

প্রায় ছয় মাসের মধ্যে এটি ইউক্রেইনে মস্কোর সেনা হারানোর প্রথম হালনাগাদ তথ্য বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। 

এর আগে ২৫ মার্চ রাশিয়া প্রথমবারের মতো জানিয়েছিল, ইউক্রেইনে তাদের ১৩৫১ জন সেনা নিহত হয়েছে।

বুধবার সকালে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া এক টেলিভিশন ভাষণে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে প্রথমবারের মতো দেশটির রিজার্ভ সেনাদের তলব করার নির্দেশ দেন।

শুধু ইউক্রেইনের বিরুদ্ধে না, এর পশ্চিমা সমর্থকদের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ জয়ে অতিরিক্ত জনশক্তি প্রয়োজন বলে এ সময় পুতিন উল্লেখ করেন।

ইউক্রেইনে সাত মাস ধরে চলা যুদ্ধে রাশিয়া ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে বলে কিইভ ও পশ্চিমা দেশগুলো দাবি করলেও শোইগু তা বাতিল করে দেন। আহত রুশ সেনাদের ৯০ শতাংশ ফের যুদ্ধক্ষেত্রে ফিরে গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

অগাস্টে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগন বলেছিল, তাদের বিশ্বাস ইউক্রেইনের রাশিয়ার ৭০ থেকে ৮০ হাজার সেনা নিহত বা আহত হয়েছে এবং শুধু জুলাই মাসেই হিসাবকৃত রাশিয়ার নিহত সেনার সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজারের মতো হবে।

শোইগু জানিয়েছেন, রাশিয়ার আড়াই কোটি সম্ভাব্য যোদ্ধা রয়েছে।

ক্রেমলিনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক ডিক্রিতে বলা হয়েছে, যাদের পূর্ববর্তী সামরিক অভিজ্ঞতা আছে শুধু তাদেরই ডাকা হয়েছে।

শোইগু জানিয়েছেন, এর মানে প্রায় ৩ লাখ লোককে ডাকা হয়েছে। তাদের ইউক্রেইনে মোতায়েনের আগে অতিরিক্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।  

অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের মাধ্যমে ইউক্রেইনে রাশিয়ার অধিকৃত অঞ্চলগুলোর ওপর নিয়ন্ত্রণ ‘জোরদার’ করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

আরও খবর:

Also Read: রাশিয়াকে অস্ত্র সরবরাহ ‘করেনি উত্তর কোরিয়া’

Also Read: ইউক্রেইনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযানে’ আরও সেনা পাঠাচ্ছেন পুতিন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক