গুজরাট দাঙ্গায় মোদীর ভূমিকা নিয়ে তথ্যচিত্রকে ‘অপপ্রচার’ বলল ভারত

এ তথ্যচিত্রে গুজরাটের দাঙ্গার দায়ভার সরাসরি মোদীর ওপর চাপানো হয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Jan 2023, 08:18 AM
Updated : 20 Jan 2023, 08:18 AM

গুজরাট দাঙ্গায় নরেন্দ্র মোদীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলা বিবিসির এক তথ্যচিত্রকে ‘অপপ্রচার’ অ্যাখ্যা দিয়ে সেটিকে খারিজ করে দিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নেওয়া ওই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন মোদী।

হিন্দু তীর্থযাত্রীবাহী একটি ট্রেনে আগুন লেগে ৫৯ জনের মৃত্যুর পর সৃষ্ট সেবারের সহিংসতায় নিহতদের বেশিরভাগই ছিল মুসলিম।

তা নিয়ে হওয়া যুক্তরাজ্যের তদন্ত প্রতিবেদন বিবিসির এই তথ্যচিত্রে দেখানো হয়েছে, যেখানে গুজরাটের দাঙ্গার দায়ভার সরাসরি মোদীর ওপর চাপানো হয়েছে বলে জানিয়েছে আল-জাজিরা।

তথ্যচিত্রে দেখানোর আগ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য সরকারের ওই তদন্ত প্রতিবেদন কখনোই জনসমক্ষে আসেনি।

মঙ্গলবার প্রকাশিত ওই তথ্যচিত্র বলছে, মুসলিমদের লক্ষ্য করে হওয়া ওই সহিংসতা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে মোদী মানা করেছিলেন বলে দাবি করেছে তদন্তকারী দল।

একাধিক সূত্রকে উদ্ধৃত করে তারা বলছে, দাঙ্গায় হস্তক্ষেপ না করতে মোদী কর্তৃপক্ষকে সুস্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছিলেন।

মোদী তার বিরুদ্ধে ওঠা এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ২০১২ সালে ভারতের শীর্ষ আদালতের এ সংক্রান্ত এক তদন্তেও মোদীকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। এ অব্যাহতি নিয়ে করা আরেকটি আবেদনও গত বছর আদালত খারিজ করে দিয়েছে।

বিবিসির এ তথ্যচিত্রকে ‘এক টুকরা অপপ্রচার’ যা ‘বিতর্কিত ভাষ্যকে’ উসকে দিতে করা হয়েছে বলে দাবি করে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি। তিনি তথ্যচিত্রটিকে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ অভিহিত করে বলেছেন, ‘ঔপনিবেশিক মানসিকতার ধারাবাহিকতায়’ এতে যে বস্তুনিষ্ঠতারও অভাব রয়েছে তা ‘খোলাখুলিই দেখা যাচ্ছে’।

“এই চর্চা এবং এর পেছনের এজেন্ডা আমাদের আশ্চর্য করছে, আমরা এই ধরনের চেষ্টাকে সাধুবাদ জানাতে পারি না,” সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন।

এ বিষয়ে বিবিসি বলেছে, তাদের `ইন্ডিয়া: দ্য মোদী কোশ্চেন’ তথ্যচিত্রটি ‘ব্যাপক গবেষণা করেই’ বানানো হয়েছে এবং এতে মোদীর বিজেপির লোকজনসহ ‘বিস্তৃত পরিসরে’ মানুষজনের কথা ও মতামত নেওয়া হয়েছে।

“আমরা ভারতের সরকারকে এই তথ্যচিত্রে উত্থাপিত প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়ার সুযোগ দিয়েছিলাম, কিন্তু তারা সেই সুযোগ নিতে অস্বীকৃতি জানায়,” বলেছেন বিবিসির এক মুখপাত্র। 

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক