নেটোর জন্য তুরস্কের সমর্থন আশা করো না: সুইডেনকে এরদোয়ান

স্টকহোমে তুর্কি দূতাবাসের কাছে তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভ ও সেখানে কোরানের একটি কপি পোড়ানোর প্রতিক্রিয়ায় এরদোয়ান এ মন্তব্য করেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Jan 2023, 08:03 AM
Updated : 24 Jan 2023, 08:03 AM

নেটো সদস্যপদের জন্য তুরস্কের সমর্থন সুইডেনের আশা করা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রেসিডেন্ট রিজেপ তায়িপ এরদোয়ান। 

শনিবার সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে তুর্কি দূতাবাসের কাছে তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভ ও সেখানে কোরানের একটি কপি পোড়ানোর প্রতিক্রিয়ায় এরদোয়ান এ মন্তব্য করেন।

এদিন স্টকহোমে হওয়া আরেক বিক্ষোভ থেকে কুর্দিদের প্রতি সমর্থন জানানোর পাশাপাশি সুইডেনের নেটোতে যোগ দেওয়ার আবেদনেরও বিরোধিতা করা হয়েছে।

নর্ডিক দেশ সুইডেন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট নেটোর সদস্যপদের জন্য আবেদন করেছে। কিন্তু স্টকহোম ‘সন্ত্রাসী কুর্দিদের’ আশ্রয় দিচ্ছে অভিযোগ করে তুরস্ক ওই সদস্যপদপ্রাপ্তি ঠেকিয়ে রেখেছে।

এসব নিয়ে তুরস্কের সঙ্গে সুইডেনের উত্তেজনা আরও বেড়ে চলেছে।   

সোমবার মন্ত্রিসভার এক বৈঠকের পর এরদোয়ান বলেন, “আমাদের দূতাবাসের সামনে এ ধরনের ব্লাসফেমির অনুমোদন যারা দেয় তারা তাদের নেটো সদস্যপদের জন্য আর আমাদের সমর্থন আশা করতে পারে না।

“আপনারা যদি সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলোর সদস্যদের এবং ইসলামের শত্রুদের এতই ভালোবাসেন এবং তাদের সুরক্ষা দেন, তাহলে আমাদের পরামর্শ হল আপনাদের দেশের নিরাপত্তার জন্য তাদের সমর্থনই কামনা করুন।”

এরদোয়ানের এই বক্তব্যের বিষয়ে সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোবিয়াস বিলস্ট্রম তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। এক লিখিত বিবৃতিতে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তিনি জানিয়েছেন, ঠিক কী বলা হয়েছে তা বোঝার চেষ্টা করছেন তিনি।  

“তবে আমাদের নেটো সদস্যপদের জন্য সুইডেন, ফিনল্যান্ড ও তুরস্কের মধ্যে বিদ্যমান চুক্তিকে সুইডেন সম্মান করবে,” যোগ করেছেন তিনি।

গত বছর রাশিয়া ইউক্রেইনে আক্রমণ শুরু করার পর সুইডেন ও ফিনল্যান্ড নেটো সামরিক জোটে যোগ দেওয়ার আবেদন জানায়। কিন্তু এই জোটে তাদের নিতে নেটোর ৩০ সদস্যের সবার অনুমোদন লাগবে।

তুরস্ক নেটোর সদস্য। তারা স্টকহোমকে এর আগে বলেছিল, আঙ্কারার সমর্থন পেতে হলে সুইডেনকে তারা যাদের সন্ত্রাসী বলে বিবেচনা করে তাদের বিরুদ্ধে স্পষ্ট অবস্থান নিতে হবে। এক্ষেত্রে আঙ্কারা মূলত সুইডেনে আশ্রয় নিয়ে থাকা কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ও ২০১৬ সালে তুরস্কে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার জন্য তাদের দায়ী করা একটি গোষ্ঠীকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ হিসেবে বিবেচনা করছে।   

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেছেন, ফিনল্যান্ড ও সুইডেন নেটো জোটে যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুত। কিন্তু এরদোয়ানের এমন বক্তব্যের মানে নির্দিষ্টভাবে তাদের জন্য নেটোর দরজা বন্ধ হয়ে যাওয়া, ওয়াশিংটন এমনটা মনে করে কিনা, এমন প্রশ্নে প্রাইস কেনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

“শেষ পর্যন্ত, এটি একটি সিদ্ধান্ত ও ঐকমত্য যেখানে ফিনল্যান্ড ও সুইডেনকে তুরস্কের সঙ্গে পৌঁছতে হবে,” বলেছেন তিনি।

সাংবাদিকদের প্রাইস বলেছেন, অনেকের কাছে পবিত্র এমন বই পোড়ানো অত্যন্ত অশ্রদ্ধাজনক কাজ আর সুইডেনে যা ঘটেছে তার পেছনে যারা আছে তারা সম্ভবত সচেতনভাবে আটলান্টিকের দুই পারের মধ্যে এবং ওয়াশিংটনের ইউরোপীয় মিত্রদের মধ্যে ঐক্য দুর্বল করতে চাইছে, যে বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র সচেতন।   

শনিবার তুর্কি দূতাবাসের কাছে কোরানের একটি কপি পুড়িয়েছেন ডেনমার্কের কট্টর-ডানপন্থি রাজনৈতিক দল হার্ড লাইনের নেতা রাসমুস প্যালুদান। প্যালুদানের সুইডিশ নাগরিকত্বও আছে, এর আগেও অনেক কর্মসূচিতে তাকে কোরান পোড়াতে দেখা গেছে।

সৌদি আরব, জর্ডান ও কুয়েতসহ বেশ কয়েকটি আরব দেশ এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। তুরস্ক ইতোমধ্যেই সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে এবং আঙ্কারায় সুইডেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পরিকল্পিত সফর বাতিল করেছে।

আরও পড়ুন:

Also Read: সুইডেনে তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভ, কোরান পোড়ানোয় ক্ষুব্ধ আঙ্কারা

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক