তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ পেলোসির

বৈঠকের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকারকে হালকা নীল রঙের একটি উত্তরীয় পরিয়ে দিয়ে ‘অর্ডার অব প্রপেশাস ক্লাউডস’ সম্মাননা দেওয়া হয়।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2022, 05:45 AM
Updated : 3 August 2022, 05:45 AM

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের সফররত স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

বুধবার স্থানীয় সময় সকালে তাইপের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে তাদের মধ্যে হওয়া বৈঠকটি গণমাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

বৈঠকের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকারকে বিশেষ গ্রান্ড কর্ডনসহ হালকা নীল রঙের একটি উত্তরীয় পরিয়ে দিয়ে ‘অর্ডার অব প্রপেশাস ক্লাউডস’ সম্মাননা দেওয়া হয়।

এরপর উভয় নেতা পরস্পরের প্রতি মাথা ঝুঁকিয়ে অভিবাদন জানান।

তাইওয়ানের প্রতি ‘অটল সমর্থন’ ও মনোযোগ দিয়ে যাওয়ার কারণে পেলোসিকে গভীরভাবে ধন্যবাদ জানান প্রেসিডেন্ট সাই।

“তাইওয়ানের সঙ্গে স্পিকার পেলোসির দীর্ঘ এবং গভীর মিত্রতা বিদ্যমান। আমি অবশ্যই আপনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ম্যাডাম স্পিকার,” বলেন তিনি।

পেলোসিকে তাইওয়ানের ‘সবচেয়ে অনুরক্ত বন্ধুদের একজন’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। এরপর ইউক্রেইনে রাশিয়ার আক্রমণের উল্লেখ করে বলেন, এই আক্রমণের কারণে তাইওয়ান প্রণালীর নিরাপত্তার বিষয়টিও বিশ্ববাসীর মনোযোগ কেড়েছে।

“গণতান্ত্রিক তাইওয়ানের বিরুদ্ধে আগ্রাসন পুরো ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে প্রচণ্ড প্রভাব ফেলবে,” বলেন তিনি।

“তাইওয়ান পিছপা হবে না। আমরা আমাদের জাতীয় সার্বভৌমত্ব দৃঢ়ভাবে ধরে রাখবো এবং আমাদের বৈশ্বিক নিরাপত্তার জন্য প্রতিরক্ষার লাইনটি ধরে রাখা চালিয়ে যাব,” যোগ করেন তিনি।

বিবিসি জানিয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্র এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অনেক গণতান্ত্রিক দেশের নিরাপত্তা অংশীদার হিসেবে দৃঢ় ভূমিকা পালন করে আসছে। ওই অঞ্চলের গণতন্ত্রের জন্য ‘প্রতিরক্ষার এই লাইনটি’ ধরে রাখার কথা বলেছেন সাই।

জবাবে পেলোসি বলেন, ‘সম মূল্যবোধের’ ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ান ‘সমৃদ্ধ অংশীদারিত্ব’ গড়ে তুলেছে। তাইওয়ানকে সমর্থন করার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানরা ঐক্যবদ্ধ বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, “আমরা তাইওয়ানে এসেছি এটি দ্ব্যর্থহীনভাবে জানিয়ে দিতে যে আমরা তাইওয়ানের প্রতি আমাদের অঙ্গীকার থেকে সরে আসবো না এবং আমাদের স্থায়ী বন্ধুত্ব নিয়ে আমরা গর্বিত। তাইওয়ানের সঙ্গে আমেরিকার সংহতি এখন যে কোনো সময়ের চেয়েই বেশি গুরুত্বপূর্ণ আর আজ আমরা এখানে এই বার্তাই নিয়ে এসেছি।”

প্রেসিডেন্ট সাইয়ের সঙ্গে এ বৈঠকের আগে পেলোসি তাইওয়ানের পার্লামেন্ট পরিদর্শন করেন।

সফরের পরবর্তী অংশে পেলোসি তাইওয়ানের মানবাধিকার আন্দোলনকারী ও ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন এবং বিকালে তাইওয়ান ছাড়বেন।

চীনের হুঁশিয়ারি অগ্রাহ্য করে মঙ্গলবার রাতে তাইওয়ানে পা রাখেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার পেলোসি। ২৫ বছরের মধ্যে মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের কোনও স্পিকার এই প্রথম তাইওয়ানে গেলেন, যে দ্বীপটিকে চীন নিজেদের অংশ বলেই দাবি করে।

চীন ক্ষিপ্তভাবে পেলোসির এ সফরের নিন্দা জানিয়েছে। এশিয়ার সফরে পেলোসি তাইওয়ানে যাবেন, এমন খবর ফাঁস হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বেইজিং হুঁশিয়ার করে বলেছিল, ওয়াশিংটন ‘আগুন নিয়ে খেলছে’।

তাইওয়ানে পেলোসির সফরের প্রতিক্রিয়ায় দ্বীপটির আশপাশের জলসীমায় সামরিক তৎপরতা শুরু করেছে চীন। পাশাপাশি বেইজিংয়ে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে পাঠিয়েছে এবং তাইওয়ান থেকে বিভিন্ন কৃষিপণ্য আমদানি স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার থেকে তাইওয়ানের চারপাশের সাগরে তিন দিনের সামরিক মহড়া শুরু করার ঘোষণাও দিয়েছে বেইজিং।

চীনের পরিকল্পিত এই সামরিক মহড়ার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তাইওয়ান। এ ধরনের মহড়া ‘তাইওয়ানের অন্তর্ভুক্ত স্থানগুলো আক্রমণের’ এবং তাইওয়ানের ‘আকাশ ও সমুদ্রসীমা অবরোধের শামিল’ বলে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে স্বশাসিত দ্বীপটির সামরিক বাহিনী।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক