ভেনেজুয়েলায় ভারি বৃষ্টির পর বন্যায় ২৫ মৃত্যু

ভারি বৃষ্টির পর পর্বতগুলো থেকে বড় বড় গাছের গুড়ি ও আবর্জনা নদী দিয়ে নেমে এসে তেখেরিয়াস শহরকে লণ্ডভণ্ড করে দেয়। 

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Oct 2022, 04:03 AM
Updated : 10 Oct 2022, 04:03 AM

ভেনেজুয়েলার মধ্যাঞ্চলে ভারি বৃষ্টির পর পাঁচটি ছোট নদীতে দেখা দেওয়া আকস্মিক বন্যায় অন্তত ২৫ জনের মৃত্যু ও ৫২ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে দেশটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

স্থানীয় সময় রোববার সকালে দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট দেলসি রদরিগেজ জানান, ভারি বৃষ্টির পর শনিবার সন্ধ্যায় আশপাশের পর্বতগুলো থেকে বড় বড় গাছের গুড়ি ও আবর্জনা নদীগুলো দিয়ে নেমে এসে লাস তেখেরিয়াস শহরকে লণ্ডভণ্ড করে দেয়।  

এলাকাটি রাজধানী রাজধানী কারাকাস থেকে ৬৭ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

রদরিগেজ জানান, মাত্র ৮ ঘণ্টার মধ্যে এক মাসের সমপরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে আর এতে দেখা দেওয়া বন্যায় তেখেরিয়াস এলাকার পানি সরবরাহের পাম্পগুলো ভেসে গেছে। 

তিনি আরও জানান, সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে কাদা ও পাথরের নিচে আটকা পড়া লোকজনকে উদ্ধারের চেষ্টা করা হচ্ছে, পাশাপাশি সামরিক বাহিনী ও উদ্ধারকারীরা জীবিতদের খোঁজে নদীর তীরগুলোতে তল্লাশি চালাচ্ছে।

তেখেরিয়াসের একটি ডুবে যাওয়া রাস্তায় দাঁড়িয়ে এ ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, “আমরা বালক, বালিকাদের হারিয়েছি। তেখেরিয়াসে যা ঘটেছে তা একটি ট্র্যাজেডি।”

প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো এক টুইটে বলেছেন, তিনি ওই অঞ্চলকে দুর্যোগকবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করে ৩ দিনের শোক ঘোষণা করেছেন।  

রয়টার্সের একজন প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক জানিয়েছেন, ৭৩ হাজার বাসিন্দার শহর তেখেরিয়াসের রাস্তাগুলো কাদা, বোল্ডার ও গাছের ডালের জটলার নিচে ঢাকা পড়েছে। চারপাশের বাড়িগুলো ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় পড়ে আছে।

ট্যাক্সি চালক আরমান্দো এস্কালোনা (৪৩) জানান, তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা গির্জায় প্রার্থনা করার সময় বন্যার পানি এসে তাদের ভিজিয়ে দেয়, তারা বিস্মিত হয়ে পড়েন।

তিনি জানান, তিনি মনে করতে পারছেন পরিবারের সবাইকে জড়িয়ে ধরেছিলেন তিনি, এ সময় মাথায় কোনো একটি বস্তুর আঘাতে সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলেন, কিন্তু জেগে ওঠার পর পরিবারের কাউকে খুঁজে পাচ্ছেন না তিনি।

এস্কালোনা বলেন, “আমি আমার স্ত্রী ও ৫ বছর বয়সী ছেলেকে হারিয়েছি। আমি কথা বলার শক্তি হারিয়ে ফেলেছি। আমরা প্রার্থনারত ছিলাম আর সবকিছু এত দ্রুত ঘটে গেল।”

বিক্রেতা ও স্বেচ্ছাসেবক কোরের স্বেচ্ছাসেবী গুস্তাভো আরেভালো (৫৮) বলেন, শনিবার সন্ধ্যা প্রায় ৬টার দিকে পানি দ্রুত বাড়তে শুরু করে আর শহরের টেলিফোন অ্যান্টেনা ভেঙ্গে পড়ে।

দেশটির বেসামরিক সুরক্ষা বিষয়ক উপমন্ত্রী কার্লোস পেরেজ রোববার এক টুইটে জানান, প্রায় এক হাজার উদ্ধার কর্মী ওই এলাকায় হতাহতদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।

রদরিগেজ জানিয়েছেন, ভারি বৃষ্টির কারণে মধ্যাঞ্চলের আরও তিনটি এলাকায় ভূমিধস হয়েছে তবে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

আবাহওয়ার এল নিনা ধরনের কারণে ভেনেজুয়েলায় ভারি বৃষ্টি, ঘন ঘন বন্যা ও ভূমিধস হচ্ছে; এতে গত কয়েক সপ্তাহে অন্তত ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক