তেলের বেঁধে দেয়া দাম ‘মানবে না’ রাশিয়া

শুক্রবারও রাশিয়ার উরালস ক্রুড প্রতি ব্যারেল ৬৭ মার্কিন ডলারে বিক্রি হয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 Dec 2022, 05:43 PM
Updated : 3 Dec 2022, 05:43 PM

পশ্চিমাদের বেঁধে দেয়া তেলের দাম রাশিয়া ‘মানবে না’ এবং কীভাবে এর জবাব দেয়া যায় সেই উপায় খোঁজা হচ্ছে বলে হুংকার দিয়েছে ক্রেমলিন।

বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতির সাত দেশের সংগঠন জি৭, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং অস্ট্রেলিয়া শুক্রবার সমুদ্র পথে রপ্তানি করা রাশিয়ার তেলের মূল্য ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করে দিয়েছে।

তেল রপ্তানি থেকে রাশিয়ার আয় কমানোই তাদের উদ্দেশ্য। এরমাধ্যমে তারা রাশিয়ার অর্থনীতিকে দুর্বল করে ইউক্রেইন যুদ্ধে মস্কোর অর্থের যোগান কমাতে চাইছে।

আগামী ৫ ডিসেম্বর থেকে তেলের দামের নতুন এই নিয়ম কার্যকর হবে।

যার জবাবে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, তেলের মূল্য নির্ধারণের জবাব দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে মস্কো।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাস শনিবার এ খবর প্রকাশ করে।

পেসকভের বরাত দিয়ে ওইদিন সংবাদ সংস্থার রিয়া’র খবরে বলা হয়, রাশিয়া এই মূল্য নির্ধারণ মেনে নেবে না।

পেসকভ বলেন, ‘‘রাশিয়া ওই চুক্তি দ্রুত বিশ্লেষণ করে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।”

রাশিয়ার তেলের মূল্য নির্ধারণ করা নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা চলছে। ওই সময় রাশিয়া বারবার বলেছে, যারা বেঁধে দেয়া মূল্যে তেল কিনতে চাইবে তাদের কাছে তেল বিক্রি করা হবে না।

ভিয়েনায় ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন্স এ রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত মিখাইল উলিয়ানভ শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে লেখেন, ‘‘এই বছরের (২০২৩) শুরু থেকে ইউরোপ কে রাশিয়ার তেল ছাড়াই বাঁচতে হবে।”

তেলের মূল্য নির্ধারণী চুক্তি কার্যকর হওয়ার পর থেকে ইইউর বাইরের দেশগুলোর সমুদ্রপথে রাশিয়ার অপরিশোধিত তেল আমদানির সুযোগ পাবে। কিন্তু তাদের ওই তেল বেঁধে দেওয়া মূল্যে বা তার কমে কিনতে হবে। নতুবা শিপিং, ইন্সুরেন্স ও রি-ইন্সুরেন্স কোম্পানিগুলো বিশ্বব্যাপী রাশিয়ার অপরিশোধিত তেল পরিবহন করতে পারবে না; কারণ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শিপিং ও ইন্সুরেন্স কোম্পানিগুলোর সবারই ঠিকানা জি৭ দেশগুলোতে, তাই চুক্তিতে বেঁধে দেওয়া মূল্যের চেয়ে বেশি দামে তেল বিক্রি করা মস্কোর জন্য কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

শুক্রবারও রাশিয়ার উরালস ক্রুড প্রতি ব্যারেল ৬৭ মার্কিন ডলারে বিক্রি হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী জেনেট ইয়েলেন বলেন, তেলের মূল্য নির্ধারণ করে দেয়ার কারণে ওইসব নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলো বিশেষভাবে লাভবান হবে, যাদের জ্বালানি এবং খাদ্য পণ্যের উচ্চমূল্যের বোঝা বহন করতে হচ্ছে।

এক বিবৃতিতে ইয়েলেন বলেন, ‘‘রাশিয়ার অর্থনীতি ইতিমধ্যে সংকুচিত হতে শুরু করেছে। দেশটির বাজেটও প্রচণ্ড চাপে ক্রমে দুর্বল হয়ে পড়ছে। এখন তেলের মূল্য নির্ধারণ অবিলম্বে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের রাজস্ব আয়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উৎসকে ছেঁটে দেবে।”

Also Read: রাশিয়ার তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলারে বেঁধে দিল জি৭

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক