ফের ‘বিলম্বের মুখে’ অ্যাপলের এআর/ভিআর হেডসেট

শিপমেন্ট পেছানোর মানে এই নয় যে, বছরের প্রথমার্ধে হেডসেটের ঘোষণা আসবে না। বাজারে পণ্য আনার কয়েক মাস আগেই এর ঘোষণা দিয়ে থাকে অ্যাপল।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Dec 2022, 01:01 PM
Updated : 5 Dec 2022, 01:01 PM

অ্যাপলের বহুল প্রতীক্ষিত এআর/ভিআর হেডসেট সম্ভবত আরও দীর্ঘ বিলম্বের মুখে পড়তে যাচ্ছে, এমন ধারণা প্রকাশ করেছেন নির্ভরযোগ্য এক অ্যাপল বিশ্লেষক।

টিএফ ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটিজের বিশ্লেষক মিং চি কুয়ো’র সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, সম্ভবত ২০২৩ সালের দ্বিতীয়ার্ধ পর্যন্ত হেডসেটের শিপমেন্ট পিছিয়েছে অ্যাপল। এর আগে তিনি অনুমান করেছিলেন, এই শিপমেন্ট শুরু হতে পারে ২০২৩ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিক থেকে।

গত সপ্তাহে মার্কিন প্রকাশনা ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, আগের ‘রিয়ালিটিওএস’ নাম পাল্টে এইসব হেডসেট চলবে ‘এক্সআরওএস’ নামের অপারেটিং সিস্টেমে।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে অভ্যন্তরীণভাবে এই পরিবর্তন করেছে কোম্পানিটি। তবে, একে আইফোনের ‘এক্সআর’ মডেলের সঙ্গে মেলালে চলবে না। ব্লুমবার্গ বলছে, এই ক্ষেত্রে ‘এক্সআর’ বলতে ‘এক্সটেন্ডেড রিয়ালিটি’ বোঝানো হয়েছে।

কুয়ো’র তথ্য অনুযায়ী, এক্সআরওএস অপারেটিং সিস্টেমে আনা বিভিন্ন পরিবর্তন ও বাগের কারণে এর শিপমেন্ট ২০২৩ সালের দ্বিতীয়ার্ধ পর্যন্ত পেছাতে বাধ্য হয়েছে অ্যাপল।

কুয়ো অবশ্য এর কোনো নির্দিষ্ট কারণ উল্লেখ করেননি। তবে, তিনি এই অনুমান করেন অ্যাপলের বিভিন্ন উৎপাদক অংশীদারের ওপর চালানো সরবরাহ চেইনের বিভিন্ন তথ্যের ওপর ভিত্তি করে।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ৯টু৫ম্যাকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, শিপমেন্ট পেছানোর মানে এই নয় যে, বছরের প্রথমার্ধে হেডসেটের ঘোষণা আসবে না। বাজারে পণ্য আনার কয়েক মাস আগেই এর ঘোষণা দিয়ে থাকে অ্যাপল। এমনই ঘটেছিল অ্যাপল ওয়াচের মতো বিভিন্ন পণ্যের বেলায়।

এর পরও জানুয়ারির সম্ভাব্য ঘোষণা হয়তো ‘বেশিই আগেভাগে হয়ে যাবে’ ও এটি হেডসেটের ‘প্রচারণা ও বিক্রির জন্য ক্ষতিকর হবে’, এই বিষয়গুলোকে কারণ দেখিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন কুয়ো।

“মিডিয়া ইভেন্টের সময়সূচী পেছাবে কি না, তা এখনও ঠিক করা বাকি আছে।”--বলেন তিনি।

“তবে, সাধারণত মিডিয়া ইভেন্ট ও পণ্যের শিপমেন্টের মধ্যকার সময়সীমা বেশি দীর্ঘ হলে তা পণ্যের প্রচারণা ও বিক্রির জন্য ক্ষতিকর।”

রোববার কুয়ো আরও বলেন, অ্যাপলের এই হেডসেট খুবই বিশেষ পণ্য হতে যাচ্ছে। তার অনুমান অনুযায়ী, ২০২৩ সালে ডিভাইসটির শিপমেন্ট হতে পারে ‘পাঁচ লাখ ইউনিটেরও কম’। তবে, কুয়ো’র ভবিষ্যদ্বাণীর সঙ্গে মিল নেই অন্যান্য বিশ্লেষকের অনুমানের। তাদের অনুমান বলছে, এর শিপমেন্ট হতে পারে আট থেকে ১২ লাখ ইউনিট পর্যন্ত।

নিজস্ব মিক্সড-রিয়ালিটি হেডসেটের প্রথম সংস্করণ নিখুঁত করতে অ্যাপল প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সময় নিলেও, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। কারণ, কোম্পানিটির জন্য এটি পুরোপুরি নতুন এক শ্রেণির পণ্য, যা সচরাচর ঘটে না।

এই খাতের বাজারে এরইমধ্যে মেটার মতো প্রতিদ্বন্দ্বী থাকায়, অ্যাপলের নিজস্ব এআর/ভিআর হার্ডওয়্যারের সূচনা ‘অবশ্যই শক্তিশালী’ হওয়ার কথা প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ৯টু৫ম্যাক।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক