‘ম্যাজিক’ চুম্বক আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা

“সম্প্রতি তাত্ত্বিক ভবিষ্যদ্বাণী না হওয়া পর্যন্ত মানুষ যা অসম্ভব বলে বিশ্বাস করেছিল তা বাস্তবে সম্ভব। আর এটি এমন কিছু নয় যা কেবল কয়েকটি দুর্লভ উপাদানে রয়েছে।”

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Feb 2024, 07:36 AM
Updated : 17 Feb 2024, 07:36 AM

অবশেষে একটি নতুন ধরনের চুম্বকের অস্তিত্ব প্রমাণ করেছেন বিজ্ঞানীরা। এর আগে এটি প্রায় ‘অসম্ভব’ বলেই ধারণা ছিল।

নতুন এ আবিষ্কারের ধারণাকে ‘অল্টারম্যাগনেটিজম’ বলা হচ্ছে। আর যে বিজ্ঞানীরা এটি আবিষ্কার করেছেন, তারা বলছেন আরও দক্ষ ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস তৈরি করার জন্য এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

অনেকের বাড়ির ফ্রিজে থাকা চুম্বক, ‘ফেরোম্যাগনেট’ ও ১৯৩০-এর দশকে ফরাসি পদার্থবিদ লুই নিলের চিহ্নিত করা ‘অ্যান্টি-ফেরম্যাগনেট’-এর পর ‘অল্টারম্যাগনেট’ চুম্বকের একটি তৃতীয় শাখা গঠন করল বলে এক প্রতিবেদনে লিখেছে ব্রিটিশ দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

‘চেক একাডেমি অফ সায়েন্সেস’ ও সুইজারল্যান্ডের ‘পল শেরার ইনস্টিটিউটে’র বিজ্ঞানীদের সহযোগিতায় ‘সুইস লাইট সোর্স’ (এসএলএস) নামের চৌম্বক ক্ষেত্রে অল্টারম্যাগনেটিজমের পরীক্ষামূলক প্রমাণ তৈরি করা হয়।

চেক প্রজাতন্ত্রের ‘ইনস্টিটিউট অফ ফিজিক্স’ ও জার্মানির ‘ইউনিভার্সিটি অফ মেইনজ’-এর একদল গবেষক প্রথম তত্ত্ব দিয়েছিল অল্টারম্যাগনেটিজম আশপাশে থাকা বিভিন্ন বস্তুতে পাওয়া যেতে পারে।

‘এটিই হল অল্টারম্যাগনেটের জাদু।’ – বলেছেন ‘চেক একাডেমি অফ সায়েন্স’-এর ‘ইনস্টিটিউট অফ ফিজিক্স’-এর অধ্যাপক টমাস জাংউইর্থ। তিনি এ গবেষণায় নেতৃত্বও দিয়েছেন।

“সম্প্রতি তাত্ত্বিক ভবিষ্যদ্বাণী না হওয়া পর্যন্ত মানুষ যা অসম্ভব বলে বিশ্বাস করেছিল তা বাস্তবে সম্ভব। আর এটি এমন কিছু নয় যা কেবল কয়েকটি দুর্লভ উপাদানে রয়েছে। এটি মানুষের ড্রয়ারে রাখা বিভিন্ন বস্তুতেও রয়েছে। এখন যেহেতু আমরা এটিকে সামনে নিয়ে এসেছি, বিশ্বজুড়ে অনেকেই এর ওপরে কাজ করতে পারবেন। ফলে, একটি বিস্তৃত প্রভাবের সম্ভাবনা রয়েছে।”

আরও উন্নত মানের নতুন কম্পিউটার ও ইলেট্রনিক ডিভাইসের পথ তৈরিতে সাহায্য করবে এ আবিষ্কার। পাশাপাশি, এটি ঘনীভূত পদার্থের পদার্থবিদ্যার বিষয়টি আরও ভালোভাবে বুঝতেও সাহায্য করবে, যা ‘স্পিন্ট্রনিক্সে’র উন্নয়নশীল খাতে এক যুগান্তকারী প্রমাণ হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছেন গবেষকরা।

‘স্পিনট্রনিক্স’ কম্পিউটিংয়ে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার সম্ভাবনা রাখে, কারণ এটি ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসে পাওয়া চার্জযুক্ত ইলেকট্রন ব্যবহারের ওপর ভিত্তি করে তথ্য বহন করার জন্য ইলেকট্রনের স্পিন-স্টেট (বা ঘূর্ণায়মান অবস্থা) কাজে লাগায়।

গবেষণা পত্রটি ‘অল্টারম্যাগনেটিক লিফটিং অফ ক্রেমার্স স্পিন ডিজেনারেসি’ শীর্ষক শিরোনামে বৈজ্ঞানিক জার্নাল ‘নেচার’-এ ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত হয়েছে বলে প্রতিবেদনে লিখেছে ইন্ডিপেন্ডেন্ট।