সাইবার নিরাপত্তা সার্টিফিকেশনের আওতা বাড়ানোর পরিকল্পনা ইইউ’র

নীতিমালার সর্বশেষ খসড়ায় থাকা বিভিন্ন জটিল শর্তকে ইইউ’র চারটি নিরাপত্তা স্তরের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ পর্যায়ে নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Nov 2023, 09:38 AM
Updated : 25 Nov 2023, 09:38 AM

নিজেদের প্রস্তাবিত সাইবার নিরাপত্তা নীতিমালায় লেবেলিং ব্যবস্থা যুক্ত করার বিষয়টি আরও বিস্তৃত করার পরিকল্পনা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

ইইউ’র নীতিমালার সর্বশেষ খসড়া অনুসারে, এ পরিকল্পনার প্রভাব কেবল অ্যামাজন, গুগল ও মাইক্রোসফটের মতো শীর্ষ প্রযুক্তি কোম্পানি নয়, বরং বিভিন্ন ব্যাংক ও এয়ারলাইন কোম্পানির ওপরও পড়বে।

সংস্থাটির এ ধরনের ব্যবস্থা যোগ করার পরিকল্পনা এমন সময় এল, যখন  শীর্ষ প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো আসন্ন বছরগুলোয় বিভিন্ন দেশের ক্লাউড বাজারে অগ্রগামী ভূমিকা রাখার দিকে এগাচ্ছে। আর এতে উদ্দীপক হিসেবে কাজ করেছে চ্যাটজিপিটি’র অভাবনীয় সাফল্য।

ইইউ’র সাইবার নিরাপত্তা সংস্থা ‘এনিসা’র (ENISA) সাম্প্রতিক প্রস্তাবনায় ‘ইইউ সার্টিফিকেশন স্কিম (EUCS)’ নামে এক প্যাকেজের কথা উঠে এসেছে, যেখানে ইইউ সদস্যভুক্ত দেশগুলোর সরকার ও বিভিন্ন কোম্পানি কীভাবে নিজস্ব ব্যবসার জন্য সরবরাহক নির্ধারণ করে এবং ক্লাউড সেবাগুলো কীভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করে, তার উল্লেখ রয়েছে।

রয়টার্স বলছে, এ নথিতে আগের বিভিন্ন খসড়ার প্রবিধানও যোগ হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, ইইউ’র সাইবার নিরাপত্তার সার্টিফিকেশন পেতে বিভিন্ন মার্কিন কোম্পানির ইউরোপীয় কোনো কোম্পানির সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কাজ করার শর্ত।

নথির আরেক শর্তে উল্লেখ রয়েছে, বিভিন্ন ক্লাউড সেবাকে অবশ্যই ইউরোপ থেকে কার্যক্রম পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। আর সকল ক্লাউড সেবার গ্রাহক ডেটা ইউরোপেই সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাত করতে হবে। এর ফলে, ইউরোপের বাইরের আইনগুলোর চেয়ে বেশি অগ্রাধিকার পাবে ইইউ’র আইন।

নীতিমালার সর্বশেষ খসড়ায় থাকা বিভিন্ন জটিল শর্তকে ইইউ’র চারটি নিরাপত্তা স্তরের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ পর্যায়ে নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ সর্বশেষ খসড়া এখন ইইউ’র সদস্যভুক্ত দেশগুলো পর্যালোচনা করছে। আর পরবর্তীতে এর চূড়ান্ত সংস্করণ নির্ধারণ করবে ইউরোপীয় কমিশন।

প্রযুক্তিবিষয়ক লবিয়িং সংগঠন ‘সিসিআইএ’ বলেছে, এ সার্টিফিকেশন প্যাকেজ বিস্তৃত করলে তা শিল্পের বড় এক অংশে প্রভাব ফেলবে।

“এ নতুন খসড়ায় সবচেয়ে শঙ্কার বিষয় হল, এনিসা এখন বলছে যে, বিদেশী ক্লাউড সরবরাহকদের বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক শর্তগুলো আরও নিম্ন পর্যায়ে বিস্তৃত হতে পারে।” --বলেন ‘সিসিআইএ ইউরোপের’ জননীতি বিভাগের পরিচালক আলেকজান্দ্রে রাউর।

“আর এর আওতায় পড়বে বিভিন্ন ব্যাংকের পাশাপাশি এয়ারলাইন, ইউটিলিটি কোম্পানি ও কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত বিভিন্ন খাতও।”

গেল মঙ্গলবার এসব শর্তের সার্বভৌমত্ব নিয়ে সমালোচনা করেছে ‘ইউরোপিয়ান ব্যাংকিং ফেডারেশন (EBF)’, ‘ইউরোপিয়ান সেভিংস ব্যাংকস গ্রুপ (ESBG)’, ‘অ্যাসোসিয়েশন ফর ফাইন্যান্সিয়াল মার্কেটস ইন ইউরোপ (AFME)’, ‘ইউরোপিয়ান পেমেন্ট ইনস্টিটিউশনস ফেডারেশন (EPIF)’ ও ‘ইনস্যুরেন্স ইউরোপের’ মতো সংস্থা।