‘মাস্টার’ ও ‘স্লেভ’ –এর মতো কোডিং শব্দ বদলাবে গিটহাব 

‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছে মাইক্রোসফট মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান গিটহাব। ‘মাস্টার’ এবং ‘স্লেভের’ মতো কোডিং নাম সরিয়ে নিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 June 2020, 02:20 PM
Updated : 16 June 2020, 02:20 PM

প্রোগ্রামিংয়ের ভাষায় ‘মাস্টার’ বলতে সফটওয়্যারের মূল সংস্করণটিকে বুঝায়। বৃহস্পতিবার গিটহাব প্রধান ন্যাট ফ্রিডম্যান এক টুইটের প্রতিত্তুরে এ ধরনের ভাষা পরিবর্তনের কথা জানিয়েছেন। -- খবর প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট সিনেটের।

বাসল ডিজিটাল গ্রুপের পণ্য নকশা বিভাগের প্রধান ইউনা ক্র্যাভেটস এক টুইটে আহবান জানান, প্রযুক্তি কমিউনিটিকে কিছু কোডিং নাম পরিবর্তন করার ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে ‘মাস্টার’ শব্দের পরিবর্তে ‘মেইন’ ব্যবহার করতে।

ওই টুইটের উত্তরে ফ্রিডম্যান লেখেন, “এটি আসলেই খুব ভালো একটি আইডিয়া, এবং আমরা এটি নিয়ে এর মধ্যেই কাজ শুরু করেছি।”

গিটহাবের টুইটার পেইজ অবশ্য আগেই জানিয়েছে যে তারা কৃষ্ণাঙ্গ কমিউনিটির পাশে রয়েছে এবং বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়ছে।

চলমান ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের পক্ষে এরই মধ্যে জোরালো আওয়াজ তুলেছে অ্যাপল, গুগল ও মাইক্রোসফট। পৃথক পৃথক বিবৃতিতে বর্ণবাদ প্রশ্নে নিন্দা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নির্বাহীরা।

জুনের শুরুর দিকে মাইক্রোসফট কর্মীদের উদ্দেশ্যে পাঠানো এক ইমেইলে মাইক্রোসফট প্রধান নির্বাহী সাত্যিয়া নাদেলা লিখেছিলেন, “আমাকে অবশ্যই বোধশক্তি ও সহমর্মিতার দিকে যাত্রা অব্যাহত রাখতে হবে এবং নিজের প্রতিটি পদক্ষেপ, যা করি এবং যা করি না, খতিয়ে দেখতে হবে, প্রতিদিন”।  

প্রযুক্তিবিদরা ‘হোয়াইটলিস্ট’ এবং ‘ব্ল্যাকলিস্ট’ শব্দগুলোও খতিয়ে দেখতে চাইছেন। ‘হোয়াইট হ্যাট’ শব্দ বদলে ‘নৈতিক’ এবং ব্ল্যাকহ্যাট শব্দ বদলে ‘অনৈতিক’ করারও পরামর্শ দিয়েছেন তারা। 

মে মাসের ২৫ তারিখ যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা মিনিয়াপোলিসে পুলিশ হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় বয়ে যায়, পরে তা বর্ণবাদ ও পুলিশি নির্যাতন বিরোধী প্রতিবাদ হিসেবে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে।

চলমান আন্দোলনের মধ্যেই আটলান্টা পুলিশের হাতে মারা পড়েন আরেক কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি রেইশার্ড ব্রুকস।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক