আইওএস-এ ‘সাবস্ক্রিপশন’ বোতাম আনলো নেটফ্লিক্স

এই সুবিধা আসায় আইওএস অ্যাপের প্রতিটি সাবস্ক্রিপশনে অ্যাপলের জন্য বাড়তি ৩০ শতাংশ কমিশন গুণতে হবে না নেটফ্লিক্সকে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2022, 12:00 PM
Updated : 24 July 2022, 12:11 PM

নিজেদের আইওএস অ্যাপে একটি নতুন ‘সাবস্ক্রিপশন বাটন’ যোগ করেছে নেটফ্লিক্স। এই বোতাম ব্যবহারকারীকে নেটফ্লিক্সের ওয়েবসাইটে নিয়ে যাবে, যার মাধ্যমে প্ল্যাটফর্মটিতে নতুন গ্রাহক হওয়ার দরকারি ধাপ সম্পন্ন করতে পারবেন তিনি।

২০২২ সালের শুরুতে অ্যাপস্টোরের বাইরের সকল গ্রাহক সেবার জন্য ‘রিডার’ অ্যাপগুলোর অনুমোদন দিয়েছে অ্যাপল, যেখানে বহিঃস্থ লিংকের মাধ্যমে অ্যাপগুলোতে লগ ইন এবং অর্থ পরিশোধ করতে পারেন ব্যবহারকারী।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ‘৯টু৫ম্যাক’-কে এই বাটনের কথা নিশ্চিত করেছেন একাধিক ব্যবহারকারী। ‘রিডার’ অ্যাপের জন্য এখন নতুন একটি ‘আইওএস এপিআই’ ব্যবহার করছে নেটফ্লিক্স, যেখানে গ্রাহক সেবাটিতে যোগ দেওয়ার আগে ব্যবহারকারীকে একটি বহিঃস্থ লিংক দেয় প্ল্যাটফর্মটি।

আইফোন ও আইপ্যাড ব্যবহারকারীদের জন্য নেটফ্লিক্স সুবিধাটি ঠিক কখন এনেছে, সেই বিষয়টি পরিষ্কার নয়। তবে বিভিন্ন প্রতিবেদন বলছে, এখন বিশ্বব্যাপীই দেখা যাচ্ছে এই সুবিধা।

ব্যবহারকারী ‘সাবস্ক্রাইব’ বাটনে চাপ দিলে একটি বার্তা ভেসে ওঠে, যেখানে লেখা থাকে, “আপনি এখন অ্যাপটি ছেড়ে দিচ্ছেন ও বহিঃস্থ একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করছেন।”

বহিঃস্থ ওয়েবসাইটের আর্থিক লেনদেন আর অ্যাপলের দায়িত্বে মধ্যে পড়বে না এবং গ্রাহক সেবার সকল ব্যবস্থাপনা যে নেটফ্লিক্স প্ল্যাটফর্মের অধীনে থাকবে, সেই বিষয়টিও জানিয়ে দেয় অ্যাপটি।

‘৯টু৫ম্যাক’ বলছে, অ্যাপের বাইরের যে কোনো অ্যাকাউন্ট অথবা আর্থিক লেনদেনের তত্ত্বাবধানে থাকবে নির্মাতা নেটফ্লিক্স।

ব্যবহারকারীর অ্যাপ স্টোর অ্যাকাউন্ট, সংরক্ষিত লেনদেন ব্যবস্থা এবং ‘গ্রাহক সেবা ব্যবস্থাপনা’ ও ‘অর্থ ফেরতের অনুরোধের’ মতো সংশ্লিষ্ট সকল ফিচারের সুবিধা থাকবে না এই লেনদেনে। পাশাপাশি, নেটফ্লিক্সের নিজস্ব লেনদেন ব্যবস্থার নিরাপত্তা বা গোপনতার জন্য দায়ী থাকবে না অ্যাপল।

‘কনটিনিউ’ বাটনে চাপ দেওয়ার পর ব্যবহারকারীকে নিজস্ব ওয়েবসাইটে নিয়ে যাবে নেটফ্লিক্স, যেখানে ব্যক্তিগত ডেটা প্রদান করতে, লেনদেনের পদ্ধতি নির্বাচন করতে এবং নেটফ্লিক্স প্যাকেজ কিনতে পারবেন ব্যবহারকারী।

এই সুবিধা আসায় আইওএস অ্যাপের প্রতিটি সাবস্ক্রিপশনের জন্য বাড়তি ৩০ শতাংশ কমিশন দিতে হবে না নেটফ্লিক্সকে, যা এক বছর পর পরবর্তী ব্যবহারে ১৫ শতাংশে নেমে আসতো।

যেসব অ্যাপের প্রধান ফিচার সাময়িকী, সংবাদপত্র, বই, অডিও, সঙ্গীত বা ভিডিওর মতো ডিজিটাল কনটেন্ট, সেগুলোকে ‘রিডিং অ্যাপ’ হিসেবে বিবেচনা করে অ্যাপল।

‘ইন-অ্যাপ’ গ্রাহক সেবা এরইমধ্যে বন্ধ করে দিয়েছে নেটফ্লিক্স

এই অ্যাপডেট আসার অনেক আগেই ‘ইন-অ্যাপ’ গ্রাহক সেবা বন্ধ করেছে নেটফ্লিক্স। ২০১৮ সালে নেটফ্লিক্সের আইওএস অ্যাপে একটি আপডেট এসেছিল যেখানে আইফোন ও আইপ্যাডে থাকা নিজস্ব অ্যাপে ব্যবহারকারীর সরাসরি নেটফ্লিক্সের সদস্য ফি নেওয়ার সুবিধা বন্ধ করে দিয়েছিল প্ল্যাটফর্মটি।

‘সাফারি’ ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করে আইওএস ব্যবহারকারীদের পুনরায় নেটফ্লিক্স প্যাকেজ কেনা থামানোর চেষ্টা করেছিল অ্যাপল।

সাম্প্রতিক ‘অ্যান্টিট্রাস্ট’ তদন্তের কারণে কোনো ধরনের কমিশন দেওয়া ছাড়াই অ্যাপ স্টোরের বাইরের কয়েকটি অ্যাপে বিকল্প গ্রাহক সেবা পদ্ধতি চালু করার অনুমোদন দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এ ছাড়া, নেদারল্যান্ডস এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলোতেও নিজস্ব অ্যাপ স্টোরে তৃতীয় পক্ষের লেনদেন পদ্ধতির সুবিধা আনতে বাধ্য হয়েছে অ্যাপল।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক