পয়েন্ট হারিয়ে বিদায়ের শঙ্কায় বার্সেলোনা

জিতলেই নকআউট পর্বের টিকেট নিশ্চিত, সে লক্ষ্যে আক্রমণাত্মক ফুটবলে বেশ ভালোই খেলল বার্সেলোনা। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত গোল আর মিলল না। তাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়ার শঙ্কায় পড়ে গেল পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Nov 2021, 09:53 PM
Updated : 23 Nov 2021, 10:44 PM

কাম্প নউয়ে মঙ্গলবার রাতে বেনফিকার বিপক্ষে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করেছে কাতালান ক্লাবটি। প্রথম দেখায় পর্তুগিজ ক্লাবটির মাঠে ৩-০ গোলে হেরেছিল তারা।

বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে ৩-০ গোলে হেরে আসর শুরু করা বার্সেলোনা পরের ম্যাচে একই ব্যবধানে হারে বেনফিকার মাঠে। তবে পরের দুই ম্যাচেই জিতে ঘুরে দাঁড়ায় আলবা-বুসকেতসরা। কিন্তু এই ড্রয়ে কঠিন সমীকরণের সামনে পড়ে গেল চাভির দলটি।

পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে জিতে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান নিশ্চিত বায়ার্নের। ৭ পয়েন্ট নিয়ে এখনও অবশ্য দুই নম্বরে আছে বার্সেলোনা। তবে শেষ ম্যাচে তাদের খেলতে হবে জার্মান চ্যাম্পিয়নদের মাঠে। ওই দিন জিততেই হবে তাদের, নয়তো তাকিয়ে থাকতে হবে আরেক ম্যাচে।

আর ৫ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে থাকা বেনফিকা খেলবে ১ পয়েন্ট নিয়ে তলানির দল দিনামো কিয়েভের মাঠে।

ঘরের মাঠে আত্মবিশ্বাসী শুরু করা বার্সেলোনা সপ্তম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ তৈরি করে। তবে ডান দিকে থেকে তরুণ ফরোয়ার্ড ইউসুফ দেমিরের কোনাকুনি শট ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ফেরান গোলরক্ষক। খানিক পর আরেকটি গোছানো আক্রমণে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন রোনালদ আরাহো।

৩৪তম মিনিটে রোমান ইয়ারেমচুকের হেড গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেনের পায়ে প্রতিহত হয়। ফিরতি বল পেয়ে গিলবের্তোর শট বার্সেলোনার এক জয়ের পায়ে লেগে বাইরে চলে যায়। ওই কর্নার থেকে জালে বল পাঠান বেনফিকার নিকোলাস ওতামেন্দি, তবে কর্নার নেওয়ার সময়ই বল চলে গিয়েছিল বাইলাইন পেরিয়ে।

বিরতির আগে ভাগ্যের ফেরে গোলবঞ্চিত হয় বার্সেলোনা। ৪৩তম মিনিটে ডান দিক থেকে দেমিরের দূরের পোস্টে নেওয়া শটে বল বাঁক খেয়ে ক্রসবারে বাধা পায়।

একইভাবে দ্বিতীয়ার্ধেও বল দখলের পাশাপাশি আক্রমণে চাপ ধরে রেখে খেলতে থাকে বার্সেলোনা। ৫৮তম মিনিটে দারুণ সুযোগও পায় তারা; কিন্তু ডি-বক্সে একা ঢুকে পেছনে ছুটে আসা ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিতে গিয়ে বল হারিয়ে পেলেন মেমফিস ডিপাই। ১০ মিনিট পর বদলি ফরোয়ার্ড উসমান দেম্বেলের ক্রসে ফ্রেংকি ডি ইয়ংয়ের হেড দারুণ নৈপুণ্যে ঠেকান গোলরক্ষক।

একটু একটু করে সময় যাচ্ছিল, বাড়ছিল দুর্ভাবনা। এমন সময় ৮৩তম মিনিটে আলবার ক্রসে লাফিয়ে দারুণ এক ভলিতে জালে বল পাঠান আরাহো। তবে কিঞ্চিৎ ব্যবধানে অফসাইডে ছিলেন তিনি।

শেষ দিকে উল্টো গোল খেতে বসে বার্সেলোনা। প্রতি-আক্রমণে বেনফিকা ফরোয়ার্ড হারিস সেফেরোভিচ ডি-বক্সে ঢুকে ছোট্ট চিপে টের স্টেগেনকেও কাটান। সামনে ফাঁকা পোস্ট, একজন ডিফেন্ডার ছুটে আসেন বটে। তারপরও সেফেরোভিচের ওখান থেকে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেওয়াটা সত্যিই অবিশ্বাস্য। তার ওই মিস ডাগআউটে বেনফিকা কোচ-খেলোয়াড়রা যেন বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না।

ছুটছেন গোলমেশিন লেভানদোভস্কি

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গোল করেই চলেছেন রবের্ত লেভানদোভস্কি।

আগেই নকআউট পর্বের টিকেট নিশ্চিত করা বায়ার্ন মিউনিখ মঙ্গলবার দিনামো কিয়েভের মাঠে ২-১ গোলে জিতেছে। ওভারহেড কিকে লেভানদোভস্কি দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন কিংসলে কোমান। বিরতির পর একটি শোধ করে স্বাগতিকরা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক