সুযোগ পেলে আবারও ভারতের জালে গোল করতে চান আনাই

ভারতের বিপক্ষে সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে গোল করা এই ডিফেন্ডারকে আসছে ম্যাচে খেলানোর ব্যাপারে এখনও অবশ্য দোটানায় বাংলাদেশ কোচ।

কাঠমান্ডু থেকে ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Sept 2022, 12:01 PM
Updated : 11 Sept 2022, 12:01 PM

হাসি ফুটেছে আনাই মোগিনির মুখে। চোট কাটিয়ে হালকা অনুশীলন করলেন সতীর্থদের সঙ্গে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের গ্রুপ সেরা হওয়ার ম্যাচে খেলার আশাবাদও জানালেন তিনি। সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে গোল করা এই ডিফেন্ডার আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠে বললেন, সুযোগ পেলে আবারও ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিতে চান।

নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে আগামী মঙ্গলবার প্রতিযোগিতার পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এ ম্যাচ সামনে রেখে রোববার দশরথের পাশে আর্মি হেডকোয়াটার মাঠে হালকা ঘাম ঝরিয়েছে দল।

এ মাঠেই গত ৪ সেপ্টেম্বর প্রস্তুতি নিতে এসে দূর্ভাগ্যবশত চোট পেয়েছিলেন আনাই। বাস থেকে নামার পর ঘাসের ভেতরে থাকা ইটের টুকরা ছোবল বসিয়েছিল তার বাঁ পায়ের আঙুলে। এই চোটই মালদ্বীপ ও পাকিস্তান ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছিল তাকে।

আনাইকে ছাড়াই ৩-০ গোলের জয়ে শুভসূচনা করা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানকে হারায় ৬-০ ব্যবধানে। টানা দুই জয়ে সেমি-ফাইনালও নিশ্চিত করেছে গোলাম রব্বানী ছোটনের দল।

আনাই খেলার ব্যাপারে আশাবাদী হলেও ভারতের বিপক্ষে তাকে মাঠে নামানো নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না বাংলাদেশ কোচ।

“আনাই আস্তে আস্তে রিকভারি করছে। আজ টিমের সাথে হালকা অনুশীলন করেছে। ভারতের বিপক্ষে ওকে পাওয়ার ব্যাপারে এখনও আমি নিশ্চিত নই। টিমে থাকতেও পারে। মাঝে একদিন সময় আছে, ওকে দেখব, এরপর সিদ্ধান্ত নিব।”

রক্ষণ সামলানো মূল দায়িত্ব হলেও গোল করতেও পারদর্শী আনাই। গত ডিসেম্বরেই মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ১৯ বছর বয়সী এই ডিফেন্ডারের একমাত্র গোলে ভারতকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সুযোগ পেলে এবারও তেমন কিছু করতে চান তিনি।

“পায়ের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। কাল থেকে পুরোপুরি অনুশীলন করতে পারব। ঘা শুকিয়ে গেছে। ভারতের বিপক্ষে যদি খেলার সুযোগ পাই, তাহলে ডিফেন্ডার হিসাবে আমার মূল দায়িত্ব থাকবে রক্ষণ সামলানো। এর বাইরে যদি গোল করার সুযোগ পাই, তাহলে তো অবশ্যই চেষ্টা করব।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক