চবিতে যৌন নিপীড়ন: শাস্তির দাবিতে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 July 2022, 01:34 PM
Updated : 24 July 2022, 01:34 PM

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়নে দোষীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

রোববার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনের সড়কে মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে চবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের চার দফা দাবির সঙ্গে সংহতি জানান তারা।

মানববন্ধনে ছাত্র অধিকার পরিষদ শাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ আল গালিব বলেন, “দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি তৈরি হওয়ার কারণে অহরহ যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সীমানার ভেতরে একজন শিক্ষার্থী যদি যৌন নিপীড়নের শিকার হন, সেটা খুবই উদ্বেগের বিষয়। আমরা তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।’’

বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী সামিরা ফারজানা বলেন, “যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার পরও মেয়েদের বলা হচ্ছে, ‘রাতে তোমরা বের হলে কেন? এ রকম পোশাক পরেছ কেন?’ এসব প্রশ্ন তুলে ভুক্তভোগীদের দমিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।”

গণিত বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী উমর ফারুক বলেন, ‘‘ঘটনাটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। কিন্তু এমন অনেক ঘটনা আছে যেগুলো ধামাচাপা দেওয়া হচ্ছে। চবিতে যে ঘটনা ঘটেছে সেটিও ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।”

‘‘প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়েই যৌন নিপীড়ন সেল আছে। কিন্তু সেগুলোর কোনো কার্যকারিতা লক্ষ করা যাচ্ছে না। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন সেলেও অকার্যকর। বিগত সময়ে যেসব অভিযোগ দেওয়া হয়েছে, সেগুলোর বিষয়ে তারা এখনও কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি।”

“আমাদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের এ শাখা কার্যকরী ভূমিকা রাখবে। নয়তো সেলের দায়িত্বে থাকাদের পদত্যাগের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামবে।’’

মানববন্ধনে একই দাবি জানান সাবেক শিক্ষার্থী সজল কুণ্ডু, পদার্থবিজ্ঞানের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী মেহরাব সাদাত।

এ কর্মসূচিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

গত ১৭ জুলাই রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের হতাশার মোড় থেকে বোটানিক্যাল গার্ডেন এলাকায় নিয়ে এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠে।

ঘটনার একদিন পর প্রক্টর অফিসে লিখিত অভিযোগ দেন ওই শিক্ষার্থী। অভিযোগে তিনি পাঁচজন মিলে ধর্ষণের চেষ্টার কথা উল্লেখ করেন। এ ছাড়া মঙ্গলবার ওই ছাত্রী বাদী হয়ে হাটহাজারী থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেন।

যৌন নিপীড়নে জড়িতদের মধ্য থেকে এ পর্যন্ত দুইজনকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ ছাড়া পাচঁজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে র‌্যাব জানিয়েছে।

এদিকে ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বুধবার বৈঠক করে ছাত্রীদের রাত ১০টার মধ্যে হলে প্রবেশের নির্দেশনা দিলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা প্রশাসনের প্রতি চার দফা দাবি জানান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক