ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে গাছ কাটা হয় প্রকাশ্যে, ‘জানেন না’ চেয়ারম্যান

নিয়ম না মেনে গাছ দুটি বিক্রি করে থাকলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Sept 2022, 03:41 PM
Updated : 11 Sept 2022, 03:41 PM

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের দুটি সরকারি গাছ কাটা হলেও বিষয়টি জানা নেই বলে দাবি ওই ইউপি চেয়ারম্যানের।

ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি বা দরপত্র ছাড়াই রোববার দুপুরে পরিষদ এলাকায় গুদামের পাশে দুটি গাছ কেটে ফেলা হয় বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুমন দাস বলেন, “প্রয়োজন হলে বিধি অনুযায়ী বিক্রি করা যেতে পারে। কিন্তু নিয়ম না মেনে বিক্রি করলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ফাইল না দেখে এ বিষয়ে কিছু বলা যাবে না।”

রোববার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে গিয়ে দেখা যায়, দুজন মিস্ত্রি করাত দিয়ে গাছ কাটছেন। কারা অনুমতি দিয়েছে, জানতে চাইলে তাদের একজন সুভাস চন্দ্র জানান, স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী ছায়েদ আলী তাদের গাছ কাটতে পাঠিয়েছেন। এর বেশি কিছু তারা জানেন না।

কাঠ ব্যবসায়ী ছায়েদ আলী বলেন, “এলাকার কাঠ ব্যবসায়ী মিল্টন মিয়ার কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা রফায় গাছ দুটি কিনেছি।”

চেয়ারম্যানসহ তিনজন ইউপি সদস্যের মধ্যস্থতায় ছায়েদের কাছে পাঁচ হাজার টাকায় গাছ দুটি বিক্রির কথা স্বীকার করেছেন মিল্টন মিয়া।

তবে বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান হাছেন আলী বলেন, “পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ওই স্থানে ‘ওয়াস ব্লক’ নির্মাণের কথা রয়েছে। বিষয়টি মৌখিকভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানো হয়েছে। কিন্তু কারা গাছ কেটেছে বা বিক্রি করেছে তা আমার জানা নেই।”

গাছ কাটার ব্যাপারে ওই পরিষদের সচিব সফিকুল ইসলামও কিছু বলতে পারছেন না। তবে ওই জায়গায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘ওয়াস ব্লক’ নির্মাণ হওয়ার কথা জানান তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক