নাটোরে কোরবানিহাটে সোয়া টন ওজনের ‘কালা তুফান’

নাটোরে কোরবানির হাটে ‘এক হাজার ৩২৪ কেজি ওজনের নয় ফুট লম্বা আর ছয় ফুট উচ্চতার’ কালো কুচকুচে বিশাল এক ষাঁড় উঠেছে; নাম তার ‘কালা তুফান’।

নাটোর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 June 2021, 01:37 PM
Updated : 30 June 2021, 01:38 PM

নাটোর সদর উপজেলার হয়বতপুর গ্রামের আমিরুল ইসলাম ‘তিন বছর’ লালন-পালন করেছেন ফিজিয়ান জাতের এ ষাঁড়।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান, তাদের পরামর্শে খামারি আমিরুল ইসলাম কালা তুফানকে লালন করেছেন। ষাঁড়টির তেমন কোনো অসুখ হয়নি বলেও জানান তিনি।

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা বলেন, “বিশাল দেহ হলেও ষাঁড়টির চাহনি অত্যন্ত মায়াবি। যে কেউ দেখলে তাকে পছন্দ করবে।“

শখ করে খামারি আমিরুলিই ষাঁড়টির নাম রেখেছেন ‘কালা তুফান’।

আমিরুল জানান, প্রায় তিন বছর আগে ফিজিয়ান জাতের একটি বাছুর এক লাখ ৮৬ হাজার টাকায় কিনে পালতে শুরু করেন। তখন এর ওজন ছিল প্রায় সাত মণ।

চিকিৎসকের পরামর্শে ষাঁড়টিকে চিড়া, গুড় ও অ্যাঙ্করের ভূষিসহ লিপিয়ার ঘাস খাওয়ান তিনি। দ্রুতই মোটাতাজা হতে থাকে ষাঁড়টি। বর্তমানে ‘কালা তুফান’ দিনে সাত কেজি ভূষি, দুই কেজি চিড়া, দুই কেজি গুড় এবং প্রায় ৯০ কেজি পানি খায়।

নাম ‘কালা তুফান’ রাখলে ষাঁড়টি ‘খুবই শান্তশিষ্ট, বিন্দুমাত্র রাগ নাই’ বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, “বাড়ির সবার সাথে বন্ধুত্ব হয়ে গেছে। সব সময় কেউ না কেউ তার গায়ে হাত বুলিয়ে আদর করে। বাচ্চাদের পিঠে বসিয়ে দিলেও কালা তুফান বিরক্ত হয় না।”

তবুও কোরবানির ঈদে ষাঁড়টি বিক্রি করে দিতে চান তিনি। সৌখিন কেউ এটি কিনুক প্রত্যাশা তার।

বাছুর অবস্থা থেকেই কালা তুফানের স্বাস্থ্যগত পরামর্শ দিয়ে আসছেন স্থানীয় পশু চিকিৎসক হিমেল রহমান। হিমেল এ ইউনিয়ন পর্যায়ে কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্রের টেকনিশিয়াল।

কোরবানিকে সামনে রেখে নাটোরে আলোচনায় উঠে আসা কালা তুফানের দাম ১৫ লাখ টাকা হাকছেন আমিরুল। গরুটি এক নজর দেখতে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ ভিড় করছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক