দুই কেজির ইলিশ ধরে ফিরলেন ফেনী নদীর জেলেরা

প্রায় দুমাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে নদীতে নেমে প্রত্যাশার বেশি মাছ ধরতে পারছেন বলে জেলেরা জানান।

নাজমুল হক শামীমফেনী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 July 2022, 07:07 PM
Updated : 28 July 2022, 07:07 PM


ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় বড় ফেনী নদীতে ধরা পড়ছে ছোট-বড় নানা আকারের ইলিশ।

গত তিন দিনে দুই কেজি ওজনের শতাধিক ইলিশ পেয়েছেন বলে জেলেরা জানান।

সোনাগাজী উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা তূর্য সাহা জানান, বৃহস্পতিবার অর্ধশতাধিক, বুধবার ৫০টির মতো এবং মঙ্গলবার অন্তত ২৫টি ইলিশ পাওয়া গেছে যেগুলোর ওজন দুই কেজির আশপাশে।
প্রায় দুমাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেরা নদীতে নেমে প্রত্যাশার বেশি মাছ ধরতে পারছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

সোনাগাজী মৎস্য আড়তের আড়ৎদার শফি উল্যা বলেন, বৃহস্পতিবার জেলেদের জালে বেশ কিছু ইলিশ ধরা পড়েছে। এর মধ্যে ডজন খানেক ইলিশ দুই কেজি ওজনের কাছাকাছি। গত বুধবার ধরা পড়ে ৫০টির বেশি ইলিশ। তার মধ্যে ৩৫টি ২ কেজি ১৫০ গ্রাম, ১৫টি প্রায় দুই কেজি ওজনের। একই জালে ধরা পড়েছে আরও ছোট-বড় প্রায় ২৫ কেজি ইলিশ।

“সব মিলিয়ে জেলেদের জালে প্রায় ৩ মণ ৫ কেজি ইলিশ ধরা পড়েছে। এর আগে মঙ্গলবার ২ কেজি ওজনের ২০-২৫টি ইলিশ মাছ ধরা পড়েছিল।”


ইলিশ ছাড়াও সম্প্রতি বড় ও ছোট ফেনী নদীতে ৫ থেকে ২০ কেজি ওজনের কোরাল, বোয়াল, কাতলা, পাঙাশ, বাগাড়সহ বিভিন্ন ধরনের মাছ পাওয়া যাচ্ছে।


জেলেদের জালে পড়া মাছগুলো নদীর তীরে আড়তে নিয়ে নিলাম করলে স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ী নেয়ামত উল্যাহ ও আবদুল মান্নান যৌথভাবে ৩ মণ ৫ কেজি ইলিশ মাছ ১ লাখ ৯০ হাজার ৫০০ টাকায় কিনে নেন। পরে তারা বাজারে ৫০টি বড় মাছ ১ লাখ ৪৮ হাজার ৪০০ টাকাসহ সবগুলো মাছ ২ লাখ ১০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন।

জেলে নয়ন মিয়া জানান, উপজেলার আর্দশ গ্রামের তিনিসহ ১০ জন জেলে বুধবার সকালে ইলিশ মাছ ধরতে বড় ফেনী নদীর শেষ প্রান্তে বঙ্গোপসাগরের মোহনায় জাল ফেলে বসেছিলেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জোয়ার কমতে থাকায় জালে আচমকা টান মারলে বুঝতে পারেন বড় কিছু আটকা পড়েছে। পরে জাল টেনে নৌকায় তুলতেই দেখতে পান বড় বড় ইলিশ মাছ ধরা পড়েছে। একই সঙ্গে ছোট ইলিশও ধরা পড়েছে।

“বিকালের দিকে নদী থেকে ফিরে মাছগুলো স্থানীয় আড়তে বিক্রি করতে নিয়ে যাই। সেখানে নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতার কাছে তিনি মাছগুলো বিক্রি করি।”

মৎস্য ব্যবসায়ী নেয়ামত উল্যাহ বলেন, মাছগুলো বিক্রি করার জন্য সন্ধ্যায় পৌর শহরের মাছবাজারে নিয়ে আসেন। বাজারে উৎসুক অনেকে বড় ইলিশ মাছগুলো দেখতে ভিড় করেন। আবার অনেকে শখ করে বেশি দাম হলেও একটা-দুটা করে মাছ কিনে নেন।


আবদুল মান্নান বলেন, দুই কেজির ইলিশ ১৭শ টাকা কেজি দর হাঁকান। পরে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ১৫০০ ও ১৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেন। এছাড়া অন্য ইলিশ মাছগুলো ৬০০-৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছেন। নদীর মাছ সুস্বাদু হওয়ায় দামও একটু বেশি।


উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা তূর্য সাহা বলেন, মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের আগে মাঝেমধ্যে অন্যান্য প্রজাতির বেশ বড় মাছ পাওয়া গেছে। এই মৌসুমে নদীতে একাধিকবার তিন কেজি ও দুই কেজি ওজনের বড় ইলিশ মাছ ধরা পড়েছে। তবে সামনে আরও বড় বড় মাছ ধরা পড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক