মুম্বাইয়ে পুরস্কার জিতল ‘বাড়ির নাম শাহানা’

‘বাড়ির নাম শাহানা’য় এমন এক নারীকে তুলে ধরেছেন নির্মাতা লীসা গাজী, যিনি নিজের মত করে বাঁচার কেবল স্বপ্নই দেখেন না, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে দুঃসাহসিক কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলেন তিনি।

গ্লিটজ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Nov 2023, 08:33 AM
Updated : 10 Nov 2023, 08:33 AM

বিবাহবিচ্ছেদ নেওয়া নব্বই দশকের এক নারীর গল্প নিয়ে নির্মিত সিনেমা ‘বাড়ির নাম শাহানা’ পুরস্কার পেয়েছে ভারতে 'জিও মামি মুম্বাই চলচ্চিত্র উৎসবে'।

গত ২৭ অক্টোবর থেকে ৫ নভেম্বর পর্যন্ত চলা ওই সিনে উৎসবে ‘জেন্ডার সেনসিটিভিটি অ্যাওয়ার্ড’ ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পায় সিনেমাটি।

নির্মাতা লীসা গাজী ‘বাড়ির নাম শাহানা’য় এমন এক নারীকে তুলে ধরেছেন, যিনি নিজের মত করে বাঁচার কেবল স্বপ্নই দেখেন না, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে দুঃসাহসিক কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলেন তিনি।

ভারতের চলচ্চিত্র সমালোচক গিল্ডের সিদ্ধান্তে সিনেমাটি এ পুরস্কার জিতেছে। সমালোচক গিল্ডে বিচারক ছিলেন আদিত্য শ্রীকৃষ্ণ, ভারতী প্রধান ও স্তুতি ঘোষ। 

বিজ্ঞপ্তিতে সিনেমার প্রযোজনা সংস্থা জানিয়েছে, মুম্বাই উৎসব ছাড়াও বিএফআই লন্ডন ইন্ডিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, বার্মিংহাম ইন্ডিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, ইয়র্কশায়ার ইন্ডিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে 'বাড়ির নাম শাহানা’ দেখানো হচ্ছে।

লীসা গাজী, বলেন, "সত্য কাহিনী অবলম্বনে নির্মিত 'বাড়ির নাম শাহানা' চলচ্চিত্রটি নব্বই দশকের বাংলাদেশের এক রক্ষণশীল মফস্বলী আবহের বিপরীতে দৃঢ়চেতা এক নারীর বেঁচে থাকার স্বকীয় পথ অন্বেষণ করে।”

চলচ্চিত্রটির প্রধান চরিত্র দীপা। কঠোর পারিবারিক শোষণে বড় হয় দীপা। কিশোর বয়সেই তাকে বাড়ি থেকে বিয়ে দেওয়া হয় ইংল্যান্ড প্রবাসী এক বিপত্নীক ব্যক্তির সঙ্গে এবং সেই বিয়ে হয় 'টেলিফোনের' মাধ্যমে। 

বিয়ের পর স্বামীর নানা ধরনের অত্যাচার মানিয়ে নিতে না পেরে দীপা একসময় পালিয়ে দেশে ফিরে আসে এবং নিজের মুক্তির জন্য লড়াই শুরু করে ৷ পরে তালাক নিয়ে মুক্ত হয় দীপা।

কিন্তু তালাকের পর দীপার ইচ্ছে ছিল না, সমাজ বা পরিবারের হাতে তার জীবন নিয়ন্ত্রিত হোক।  রক্ষণশীল পরিবারে বিরুদ্ধে গিয়ে নিজের সিদ্ধান্তে জীবন এগিয়ে নিতে চায় ওই নারী।

সিনেমাটির বেশিরভাগ শুটিং হয়েছে ঢাকার বাইরে এক শহরে। কিছু অংশের শুটিং হয়েছে ইংল্যান্ডের একটি শহরে।

নির্মাতা লিসা গাজী বলেন, “গল্পের সময় এবং প্রেক্ষাপটের সাথে সামঞ্জস্য রেখে আমরা ছবিটি বাস্তব লোকেশনে ধারণ করেছি এবং অন-লোকেশন সাউন্ড শতভাগ ডাবিং ছাড়াই ব্যবহার করা হয়েছে।”

লীসা গাজীর সঙ্গে যৌথভাবে সিনেমাটির চিত্রনাট্য লিখেছেন আনান সিদ্দীকা। প্রযোজনা করেছে কমলা কালেক্টিভ। গুপী বাঘা প্রডাকশন লিমিটেড-এর সাথে অংশিদারিত্বে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি।

সিনেমায় অভিনয় করেছেন আনান সিদ্দীকা, লুৎফর রহমান জর্জ, ইরেশ যাকের, কাজী রুমা, কামরুন্নাহার মুন্নী, মুগ্ধতা মোর্শেদ ঋদ্ধি, আমিরুল হক চৌধুরী, নাইলা আজাদ, আরিফ ইসলাম, নাইমুর রহমান আপন, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়।