নতুন মিস ইউনিভার্স যুক্তরাষ্ট্রের আর’বনি গ্যাব্রিয়েল

আর’বনি গ্র্যাব্রিয়েল একজন মডেল ফ্যাশন ডিজাইনার এবং সেলাই প্রশিক্ষণ। তিনি পরিবেশবান্ধব পোশাক ডিজাইনার হিসেবে কাজ করেন।

গ্লিটজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Jan 2023, 08:05 AM
Updated : 15 Jan 2023, 08:05 AM

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৮৩ প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে আর’বনি গ্যাব্রিয়েলের হাত ধরে মিস ইউনিভার্সর মুকুট গেল যুক্তরাষ্ট্রে।

বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের লুইজিয়ানার নিউ অরলিয়েন্সের একটি কনভেনশন হলে রোববার ৭১তম মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতার আসর বসে।

এবারের প্রতিযোগিতার বিজয়ী হিসেবে গ্যাব্রিয়েলের নাম ঘোষণা করা হলে তুমুল করতালিতে তাকে অভিবাদন জানান হলের দর্শক ও সহপ্রতিযোগীরা।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় গ্যাব্রিয়েল বলেন, তিনি নারী ও কিশোরীদের জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে সহায়তা করবেন, যাতে তারা জীবনের পথ তৈরিতে স্বাবলম্বী হয়ে ওঠে।

অনুষ্ঠানে নতুন বিজয়ীকে মুকুট পরিয়ে দেন ২০২১ সালের ভারতে মিস ইউনিভার্স ভারতীয় ফ্যাশন মডেল ও অভিনেত্রী হারনাজ সান্ধু। সেবারই ২১ বছর পর মিস ইউনিভার্সের মুকুট ভারতে গিয়েছিল। এবার ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন দিভিতা রাই, তবে তিনি শেষ তিনে আসতে পারেননি।

আর’বনি গ্যাব্রিয়েল একজন মডেল, ফ্যাশন ডিজাইনার ও সেলাই প্রশিক্ষণ। পরিবেশবান্ধব পোশাক ডিজাইনার হিসেবেও তার পরিচিতি আছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব নর্থ টেক্সাস থেকে ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ের ওপরে স্নাতক করেছেন গ্যাব্রিয়েল। নিজের পোশাক ব্র্যান্ড ‘আর’বনি নোলা’র প্রধান নির্বাহী হিসেবে কাজ করছেন তিনি।

গ্যাব্রিয়েলের জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে। তার বাবা ফিলিপিন্সের নাগরিক, মা যুক্তরাষ্ট্রের। সে হিসেবে ফিলিপিনো বংশোদ্ভূত প্রথম মার্কিন নাগরিক হিসেবে তিনিই প্রথম মিস ইউএসএ নির্বাচিত হয়েছিলেন।

প্রতিযোগিতায় গ্যাব্রিয়েলের কাছে চূড়ান্ত প্রশ্ন ছিল: যদি তিনি মিস ইউনিভার্স খেতাব জেতেন, তাহলে তিনি কী করবেন।

উত্তরে গ্যাব্রিয়েল বলেন, তিনি নিজেকে একজন সমাজ ‘পরিবর্তনকারী’ নেতা হিসেবে দেখতে চান।

“গত ১৩ বছর ধরে ফ্যাশন শিল্পের সঙ্গে আমি যুক্ত। পরিবেশের দূষণ কমাতে পোশাক তৈরির কাজে পুর্নব্যবহারযোগ্য উপকরণ ব্যবহার করি। পাচার চক্র এবং গার্হস্থ সহিংসতার হাত থেকে বেঁচে আসা নারীদের আমি সেলাইয়ে কাজ দিই।

“আমি বিশ্বাস করি, সমাজে বিনোয়োগ করলে তাতে বদল আসবেই। আর প্রতিটি মানুষের মাঝেই কোনা কোন গুণ আছে। যখন সেটি আবিষ্কার করে কাজে লাগানো হয়, তখনই ভালো কিছু পাওয়া যায়। “

মিস ভেনিজুয়েলা আমান্ডা দুদামেল এবং মিস ডোমি নিকান রিপাবলিক আন্দ্রেনা মার্টিনেজ প্রথম এবং দ্বিতীয় রানার আপ নির্বাচিত হয়েছেন এবারের প্রতিযোগিতায়।

বিভিন্ন দেশের জাতীয় পোশাক, সাঁতারের পোশাক ও ইভনিং গাউন পরে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে হয়েছে প্রতিযোগীদের।

ভুটান প্রথমবারের মত এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। মাঝে প্রতিযোগিতায় বিরতি নেওয়া দেশগুলোর মধ্যে ইন্দোনেশিয়া, লেবানন, মালয়েশিয়া, মিয়ানমারসহ আরও কয়েকটি দেশ প্রতিনিধিত্ব করে।

টেলিভিশনের সঞ্চালক জেনি মাই জেনকিন্স এবারের প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের হোস্ট ছিলেন। তার সঙ্গে ছিলেন অলিভিয়া কুলপো, ২০১২ সালে যার মাথায় উঠেছিল মিস ইউনিভার্সের মুকুট।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক