ছোট ভাই খুন: বড় ভাই ও তিন ভাতিজার যাবজ্জীবন

ছেলেকে বিদেশে পাঠানোর টাকা লেনদেন নিয়ে বিরোধ ছিল দুই ভাইয়ের

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 09:23 AM
Updated : 25 July 2022, 09:23 AM

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় এক ব্যক্তিকে খুনের দায়ে তার ভাই ও তিন ভাতিজাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

চট্টগ্রামের তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ফেরদৌস ওয়াহিদ মঙ্গলবার এ রায় ঘোষণা করেন।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- নুরুল ইসলাম এবং তার তিন ছেলে মো ওসমান গণি, সরোয়ার কামাল ও আব্বাস উদ্দিন।

ওই পরিবারের দুই সদস্য নাসিমা আক্তার ও মনোয়ারা বেগমকে খালাস দিয়েছে আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী লোকমান হোসেন চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, চার আসামিকে যাবজ্জীবনের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে ২ বছরের সাজা দিয়েছেন বিচারক।

রায় ঘোষণার সময় আসামিদের সবাই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাদের কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সেলিম উল্লাহ চৌধুরী।

মামলার বিবরণে জানা যায়, লোহাগাড়া উপজেলার আধুনগর রুস্তমের পাড়া আজলা পুকুরের পাড়ে ১৯৯৯ সালের ৬ ডিসেম্বর শাবলের আঘাতে ও মারধর করে সৌদি আরব প্রবাসী নুরুল কবিরকে (৪৫) হত্যা করে আসামিরা।

তাদের মধ্যে নুরুল ইসলাম হলেন নিহত নুরুল কবিরের বড় ভাই। দণ্ডিত অন্য তিনজন নিহতের ভাতিজা।

আইনজীবী লোকমান হোসেন চৌধুরী জানান, নুরুল কবির তার বড় ভাই নুরুল ইসলামের ছেলে ইসমাইলকে বিদেশে নিয়ে গিয়েছিলেন। ঘটনার তিন মাস আগে নুরুল কবির দেশে ফিরে আসেন।

“ভাতিজা ইসমাইলকে বিদেশে নেওয়া বাবদ এক লাখ ৭০ হাজার খরচ হয়েছিল জানিয়ে বড় ভাইয়ের কাছে ওই টাকা চান নুরুল কবির। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিবাদ ছিল।”

মামলার এজাহারে বলা হয়, ঘটনার দিন আসামিরা নুরুল কবিরকে মারতে গেলে তিনি পালিয়ে ঘরের পিছন দিয়ে পুকুর পাড়ে চলে যান। এ সময় আসামি আব্বাস শাবল দিয়ে তার চোখে আঘাত করেন।

নুরুল কবির মাটিতে পড়ে গেলে অন্য আসামিরা লাঠি ও রড দিয়ে তাকে মারধর করেন। তাতে নুরুল কবিরের মৃত্যু হয়।

ওই ঘটনায় নুরুল কবিরের স্ত্রী খালেদা ইয়াসমিন থানায় মামলা করেন। ২০০০ সালের ২১ ডিসেম্বর পুলিশ অভিযোগপত্র দেয়।

অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ২০০৩ সালের ১৩ জানুয়ারি আদালত আসামিদের বিচার শুরু করে। ১৭ জন সাক্ষী ও ৩ জন সাফাই সাক্ষীর জবানবন্দি শুনে সোমবার রায় দিল আদালত।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক