যে কারণে দলে সুযোগ পেলেন সাব্বির

বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্যাম্পে উন্নতি ও আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতার কারণে এই ব্যাটসম্যানকে দলে ফেরানো হয়েছে, বললেন প্রধান নির্বাচক।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 August 2022, 03:32 PM
Updated : 13 August 2022, 03:32 PM

ঘরোয়া ক্রিকেটে উল্লেখযোগ্য কোনো পারফরম্যান্স নেই। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়ার পর টি-টোয়েন্টিতে চারটি ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে ব্যাট হাতে খুঁজেও পাওয়া যায়নি। তারপরও কেন সাব্বির রহমানকে ফেরানো হলো দলে? এশিয়া কাপের দল ঘোষণার সংবাদ সম্মেলনে এই ব্যাটসম্যানকে ঘিরেই প্রশ্ন হলো সবচেয়ে বেশি। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন ব্যাখ্যা করলেন সাব্বিরকে দলে নেওয়ার কারণ।

একসময় বাংলাদেশ দলে নিয়মিতই ছিলেন সাব্বির। টি-টোয়েন্টির জন্য তাকে মনে করা হতো দেশের সবচেয়ে উপযুক্ত ক্রিকেটারদের একজন। দারুণ কিছু পারফর‌ম্যান্সও উপহার দিয়েছেন এই সংস্করণে। তবে ধারাবাহিকতা ছিল না কখনোই। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে দেশের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর জায়গা হারান দলে।

এরপর ২০১৯-২০ বিপিএলে ১১ ইনিংস খেলে তার ফিফটি ছিল স্রেফ একটি। ১১২.০৮ স্ট্রাইক রেট ও ১৮.৫৪ গড়ে রান করেন ২০৪। কোভিড বিরতির পর বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে ৭ ম্যাচে মোট রান ছিল ১০৬। তাতে এক ইনিংসেই ছিল আবার ৫৬।

গত বছর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টিতে ১২ ইনিংস খেলেও ছিল না কোনো ফিফটি। স্রেফ ১০৪.৫৬ স্ট্রাইক রেটে রান করেন ২২৯। এরপর সবশেষ বিপিএলে তো ভালো পারফর্ম করতে না পারায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স দলেই জায়গা হারান। ৬ ম্যাচে ১৮.১৬ গড়ে রান করেন মাত্র ১০৯।

এমন একজনকে দলে নেওয়ার পর প্রশ্ন ওঠা ছিল অবধারিতই। দল ঘোষণার সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচক শোনালেন কোন ভাবনা থেকে তারা সাব্বিরকে ফিরিয়েছেন।

“সাব্বির অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। ঘরোয়া ক্রিকেটে দেখেছি আমরা, টি-টোয়েন্টিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিজ্ঞতা আছে ওর। এসব চিন্তা-ভাবনা থেকেই দলে নেওয়া হয়েছে। টিম ম্যানেজমেন্ট ও আমরা সবাই আলোচনা করেই নিয়েছি।”

“কিছু কিছু জায়গায় কিছু খেলোয়াড়কে এভাবে চিন্তা করতে হয়, আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা দেখতে হয়। যেহেতু এবার আমাদের ইনজুরি সংখ্যা বেশি, সেদিক থেকে একজন বাড়তি মিডল অর্ডার ব্যাটার দরকার। এজন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজে ‘এ দলের হয়ে আমরা ওকে পাঠিয়েছি। সেখানে খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মতো অভিজ্ঞতা পাবে। আশা করছি, ওই অভিজ্ঞতা সে কাজে লাগাবে।”

বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে এখনও সীমিত ওভারের সিরিজ শুরুই হয়নি। তাই সাব্বিরের ফর্মও পরখ করা যায়নি। সবশেষ তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলেছেন গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে। মার্চ-এপ্রিলে ৫০ ওভারের সংস্করণের সেই লিগে খুব খারাপ ছিল না তার পারফরম্যান্স। ৩৯.৬১ গড়ে ও ১০২.৩৮ স্ট্রাইক রেটে রান করেন ৫১৫। তবে তার ধারাবাহিকতার সেই সমস্যা ছিলই, ১৪ ইনিংসে সেঞ্চুরি ও ফিফটি ছিল মোটে একটি করে।

গত কিছুদিন অবশ্য তিনি নিজের ফিটনেস ও স্কিল ঝালাই করার সুযোগ পেয়েছেন বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্যাম্পে। সেখানেই তার উন্নতির ঝলক দেখা গেছে বলে দাবি করলেন প্রধান নির্বাচক।

“সাব্বির ডিপিএলে খুব একটা খারাপ খেলেনি। এরপর তো সে নার্সিংয়ে আছে। কিছু ক্রিকেটারকে দুটি জায়গায় নার্সি করা হচ্ছে। এইচপি স্কোয়াড ও টাইগার্সের ক্যাম্প চলছে, সেখানে তাদের ডেভেলপমেন্ট আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। যেহেতু এখন ঘরোয়া ক্রিকেট নেই, ওই ক্যাম্পে আমরা দেখছি। সেখানেও সাব্বিরকে দেখে আমরা নিয়েছি।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক