বিসিএল ফাইনালের আগে ডমিঙ্গোর সংস্পর্শে লিটন

বিসিএলের দুই রাউন্ডে হাসেনি লিটনের ব্যাট। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের আগে জাতীয় দলের প্রধান কোচের সঙ্গে কাজ করার সুযোগটা দুই হাতে লুফে নিলেন তিনি।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 Nov 2022, 02:08 PM
Updated : 26 Nov 2022, 02:08 PM

শনিবার সকাল থেকে লিটন দাস ছিলেন বিসিবি উত্তরাঞ্চলের অনুশীলনে। সেই পর্ব শেষ করে ছুটলেন তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ঐচ্ছিক অনুশীলনে। ইনডোরের নেটে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সঙ্গে নিবিড় সময় কাটালেন। কাজ করলেন ব্যাটিংয়ের কিছু খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে ফেরার পর বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) একদিনের ম্যাচের সংস্করণে দুটি ম্যাচ খেলে রান পাননি লিটন। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের আগে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নেওয়ার আরেকটি সুযোগ তার আছে। রোববার খেলবেন তিনি বিসিএলের ফাইনালে।

মিরপুর শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফাইনালে লড়বে বিসিবি উত্তরাঞ্চল ও বিসিবি দক্ষিণাঞ্চল। দিবা-রাত্রির ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর সাড়ে ১২টায়।

শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের আগের দিন একাডেমিতে অনুশীলনে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন দুই দলের ক্রিকেটাররা। তবে লিটনের ব্যস্ততা ছিল যেন একটু বেশিই!

সকালে প্রায় দুই ঘণ্টা উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে অনুশীলন করেন তিনি। পরে জাতীয় দলের প্রধান কোচের সঙ্গে কাজ করার সুযোগটাও লুফে নেন দুই হাতে। ডমিঙ্গোর পাঠশালায় প্রায় এক ঘণ্টা মনোযোগী ছাত্র হয়ে থাকেন এই স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান।

ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের আগে শনিবার ছিল জাতীয় দলের ঐচ্ছিক অনুশীলন। যেখানে ছিলেন না বেশির ভাগ ক্রিকেটার। তবে কোচিং স্টাফের প্রায় সবাই বেলা ১২টার আগে থেকে উপস্থিত ছিলেন শের-ই বাংলার ইনডোরে। এর বাইরে কোনো নেট বোলারকে ডাকা হয়নি।

কখনও জাতীয় দলের থ্রোয়ার রমজান, কখনও নাফিস ইকবাল, কখনও আবার ডমিঙ্গো নিজেই থ্রো করেন লিটনের নেটে। ব্যাটিং শুরুর আগে লিটনকে এক দফা কিছু পরামর্শ দেন ডমিঙ্গো। পরে তিনি দাঁড়িয়ে যান পয়েন্টের দিকে। সেখান থেকে লিটনের ব্যাটিং পর্যবেক্ষণ করে ড্রাইভ শট খেলার ব্যাপারে কিছু কথা বলতে দেখা যায় কোচকে।

পরে ডমিঙ্গো নিজেই থ্রো করার দায়িত্ব নেন। টানা বাউন্সার করতে থাকেন আর দেখিয়ে দেন, ওই ডেলিভারিগুলোতে কীভাবে হাওয়ায় না ভাসিয়ে শট খেলতে হবে নীচে।

এবার বিসিএলের প্রথম রাউন্ড থেকে ছুটি নিয়েছিলেন লিটন। পরের দুই রাউন্ডে হাসেনি তার ব্যাট। আউট হয়েছেন স্রেফ ৪ ও ৯ রান করে। এর আগে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ৬০ রানের ইনিংসটি ব্যতীত বাকি ম্যাচগুলোতে প্রত্যাশা মেটাতে পারেননি তিনি।

উত্তরাঞ্চলের প্রধান কোচ সোহেল ইসলাম ফাইনালের আগের দিন সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বললেন, লিটনের ওপর পূর্ণ বিশ্বাস আছে তাদের।

“বলার অপেক্ষা রাখে না যে লিটন বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন। ও যেদিন খেলবে, সেদিন আসলে একটা বড় পার্থক্য গড়ে দেবে। এই বিশ্বাস আমাদের আছে। গত দুইটা ম্যাচ খেলেছে, সে দুটোতে অবশ্য সেরকম ছিল না। লিটন যে কোনো দিন ভালো খেলবে। এই বিশ্বাস আমাদের আছে।”

ইনডোরে লিটনের পাশের নেটে লম্বা সময় ব্যাটিং করেন আরেক কিপার-ব্যাটসম্যান এনামুল হক। তার নেটে বেশি সময় দিয়েছেন ফিল্ডিং কোচ শেন ম্যাকডারমট। স্পিন কোচ রঙ্গনা হেরাথের বোলিংও খেলেন এনামুল। পরে তিনি চলে যান দক্ষিণাঞ্চলের দলীয় অনুশীলনে।

এ দুজন ছাড়াও দুপুরের দিকে জাতীয় দলের ঐচ্ছিক অনুশীলনে হাজির হন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ।

কাতার বিশ্বকাপের ম্যাচ দেখে দেশে ফিরেই ব্যাট হাতে নেট সেশন করেন তামিম। তবে বেশি সময় ব্যাট করেননি তিনি। মিনিট পনেরো হালকা মেজাজে ব্যাটিং করে কোচদের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায় তাকে।

নর্থ জোনের হয়ে সকাল থেকে অনুশীলনে ব্যস্ত সময় কাটানো মাহমুদউল্লাহ আর আলাদা করে ব্যাটিং-বোলিং করেননি। প্রধান কোচ ডমিঙ্গো, পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ড, ট্রেইনার নিক লি ও স্পিন কোচ হেরাথের সঙ্গে কথা বলে সময় কাটান তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক