মুশফিকের ইনিংস নিয়ে যা বললেন অধিনায়ক

শেষ ৫ ওভারে বিস্ময়করভাবে ৫টি বল ডট খেলেন মুশফিক!

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 August 2022, 06:28 AM
Updated : 6 August 2022, 06:28 AM

এক সিরিজ বাইরে থাকার পর ফেরার ম্যাচে ৪৯ বলে অপরাজিত ৫২। আপাতদৃষ্টিতে বেশ ভালো ইনিংস। কিন্তু ক্রিকেট তো স্রেফ পরিসংখ্যানের খেলা নয়!‍ সংখ্যাগুলোর ভেতরও ম্যাচের প্রেক্ষাপটে লুকিয়ে থাকে জয়-হারের নানা সমীকরণ। সেদিক থেকেই প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে মুশফিকুর রহিমের এই ইনিংস। অধিনায়ক তামিম ইকবাল যদিও একজন-দুজনকে কাঠগড়ায় না তুলে দায় দিলেন সামগ্রিক ব্যাটিংকে।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে শুক্রবার ৩০৩ রান তুলে হেরে যায় বাংলাদেশ।

আগে কখনও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৫৭ রানের বেশি করে হারের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের নেই। সেদিক থেকে দায়টা বোলিং-ফিল্ডিংয়ের ওপর পড়ে। তবে বাস্তবতা বলছে, এ দিনের স্কোর হওয়ার কথা ছিল ৩০৩ রানের চেয়ে বেশি।

উইকেট পর্যাপ্ত ছিল বাংলাদেশের। পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়েই ৪১ থেকে ৪৫, এই ৫ ওভারে রান আসে ৫১। শেষ ৫ ওভারে যখন রানের জোয়ার আরও বাড়ার কথা, তখনই দেখা যায় ভাটার টান। ওই ৫ ওভারে রান আসে মোটে ৩৯। শেষ ৩ ওভারে উইকেট না পড়লেও রান ওঠে স্রেফ ২২।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক তামিম নিজে থেকেই বললেন, রান যথেষ্ট ছিল না তাদের।

“আমার কাছে মনে হয়, যে অবস্থায় আমরা ছিলাম, অবশ্যই আরও ১৫ থেকে ২০ রান বেশি করা উচিত ছিল। ১ উইকেটে ২৫০ বা এরকম রান ছিল। ওই অবস্থা থেকে আরেকটু জোর দিয়ে চেষ্টা করা উচিত ছিল এবং বাড়তি ওই ১৫-২০ রান করা প্রয়োজন ছিল।”

এখানেই প্রশ্ন উঠছে মুশফিকের ব্যাটিংয়ের ধরন নিয়ে। ৪৫ ওভার পর্যন্ত তার রান ছিল ৩৩ বলে ৩৫। এরপর যখন আরও ঝড়ো ব্যাটিং করা উচিত, সেখানে তিনি পরের ১৬ বলে করেন মাত্র ১৭ রান। এই সময়ে বিস্ময়করভাবে ৫টি বল ডটও খেলেন তিনি!

আরেকপাশে মাহমুদউল্লাহ খারাপ করেননি, ১২ বল খেলে করেন অপরাজিত ২০। কিন্তু মুশফিকের ব্যাটে ছিল না প্রত্যাশিত গতি। তাকে নিয়ে তাই প্রশ্নও উঠল ম্যাচ শেষে। তবে তামিম কোনো একজনের ওপর দায় চাপালেন না।

“নির্দিষ্ট একজন-দুজনের দিকে আঙুল তোলাকে আমি অন্যায্য বলব। আমার মনে হয়, দল হিসেবে আমরা বাড়তি ওই ১৫-২০ রান করতে পারতাম। আমি সবসময় বলি, মাঠে যে ব্যাট করতে নামে, নিজের সেরাটাই চেষ্টা করে। যারা ব্যাটিং করেছে, তারা অনেকবারই কাজটি সফলভাবে করেছে। আমি এমন কেউ নই যে, আমার ক্রিকেটারদের কাঠগড়ায় দাঁড় করাব।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক