এবার টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল হাতছাড়া করতে চান না কামিন্স

টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে অল্পের জন্য ফাইনাল খেলতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2022, 01:22 PM
Updated : 29 Nov 2022, 01:22 PM

ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই দাপুটে দল অস্ট্রেলিয়া। তবে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট অর্জন করলেও টেস্টের নতুন টুর্নামেন্টের শিরোপা জেতা হয়নি তাদের। গত আসরে অল্পের জন্য ফাইনাল খেলতে পারেনি তারা। এবার সে সুযোগ হারাতে চান না দলের অধিনায়ক প্যাট কামিন্স।

২০১৯ সালে শুরু হওয়া আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় আসরে এখন পর্যন্ত পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অস্ট্রেলিয়া। এক নম্বর স্থান ধরে রাখার অভিযানে বুধবার সকালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামবে তারা।

টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে খুব কাছে গিয়েও ফাইনাল খেলতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া। মন্থর ওভার রেটে ৪ পয়েন্ট কাটা পড়ায় তারা থাকতে পারেনি শীর্ষ দুইেয়। তাদের টপকে ফাইনালের টিকেট পাওয়া নিউ জিল্যান্ড পরে ভারতকে হারিয়ে জিতে নেয় শিরোপা।

এবার এখনও পর্যন্ত ১০ ম্যাচে ৬ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৮৪ পয়েন্ট কামিন্সের দলের। সম্ভাব্য মোট পয়েন্টের ৭০ শতাংশ পেয়ে শীর্ষে তারা। দ্বিতীয় আসরের ফাইনালের আগে আরও ৯ ম্যাচ বাকি অস্ট্রেলিয়ার।

পার্থে ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে প্রথম আসরের ফাইনাল খেলতে না পারার হতাশাটুকু তুলে ধরে কামিন্স বললেন, এবার আর একই আক্ষেপে পুড়তে চান না তারা।

“নতুন টুর্নামেন্ট হওয়ায় ফাইনাল ম্যাচ মাঠে গড়ানোর আগে ব্যাপারটি (ফাইনাল খেলতে না পারা) আমাদের তেমনভাবে ধাক্কা দেয়নি। পরে যখন নিউ জিল্যান্ডকে সেখানে ভালো করতে দেখলাম, মনে হয়েছিল যদি আমরা সেখানে থাকতে পারতাম!”

“এখন দ্বিতীয়বারে সবার মধ্যে এর গুরুত্ব বেড়েছে। এখন মনে হয়, প্রথমবার সুযোগ হাতছাড়া করাটা ছিল অনেক বড় কিছু। তাই এখন প্রতিটি সিরিজ আরও বেশি অর্থবহ, বড় কিছুর জন্য খেলছি ব্যাপার।”

বিশ্বব্যাপী সাদা পোশাকের ক্রিকেটের আকর্ষণ ও চাহিদা বাড়াতে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রভাবের কথাও বলেছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক।

“অ্যাশেজ অথবা ভারতের বিপক্ষে সিরিজ অবশ্যই বড় লড়াই। সেখানে ৪-৫ ম্যাচ খেলা হয়। অন্য সাধারণ সিরিজে ২-৩ ম্যাচ হয়। এখন (টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফলে) এ সিরিজগুলোর বৈশ্বিক আবেদন বেড়েছে এবং সবাই বাড়তি কিছুর জন্য খেলে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক