অবশেষে সাকিবের ব্যাটে রানের ঝিলিক

চোখের সমস্যায় ভুগতে থাকা অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার এবারের বিপিএলে প্রথমবার মোটামুটি রানের দেখা পেলেন।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Feb 2024, 09:48 AM
Updated : 6 Feb 2024, 09:48 AM

মোসাদ্দেক হোসেনের বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ঠিকমতো ব্যাটে লাগাতেই পারলেন না সাকিব আল হাসান। ব্যাটিংয়ে তার অস্বস্তিই ফুটে উঠল আরেকবার। তখনও পর্যন্ত ১৪ বলে তার রান ১১। কিন্তু পরের বলটিই শর্ট পেয়ে চাবুকের মতো চালিয়ে দিলেন। অল্পের জন্য ছক্কা না হলেও চার ঠিকই পেলেন তিনি। জ্বলে ওঠার রসদও যেন পেয়ে গেলেন। পরের চার বলের মধ্যে ছক্কা মারলেন তিনি তিনটি!

এরপরই অবশ্য তিনি আউট হয়ে গেছেন। তবে বিপিএলে মঙ্গলবার দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে ম্যাচটিতে রংপুর রাইডার্সের হয়ে ২০ বলে ৩৪ রানের ইনিংস খেলেছেন অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার।

এমনিতে সাকিবের ব্যাটে তিন ছক্কা এমন কিছু নয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেই আরও কত ভালো বোলিং আক্রমণের সামনেও তো ব্যাটিং ঝড় তুলেছেন তিনি। কিন্তু তার পরও তার এই ব্যাটিংয়ের কথা বলতে হচ্ছে আলাদা করেই। মূল কারণ, তার চোখে সমস্যা।

গত বিশ্বকাপ থেকেই চোখের এই সমস্যায় তিনি ভুগছেন। ভারতে, দেশে, লন্ডনে ও সিঙ্গাপুরে চিকিৎসক দেখিয়ে এখনও পর্যন্ত কার্যকর সমাধান পাননি। তার ব্যাটিংয়ও সেটির প্রভাব ছিল স্পষ্ট।

চলতি বিপিএলে আগের তিন ইনিংসে ব্যাট করে তার রান ছিল ২, ২ ও ০। রান না করতে পারার চেয়েও বড় ব্যাপার, উইকেটে তার ভোগান্তি ছিল স্পষ্ট। ব্যাট হাতে অনেকটাই অচেনা লাগছিল তাকে। এছাড়াও রংপুরের একটি ম্যাচে ১০ ব্যাটসম্যান ব্যাটিংয়ে নামলেও তিনি নামেননি। আরেক ম্যাচ সাত ব্যাটসম্যান ক্রিজে গেলেও দেখা যায়নি সাকিবকে। গত ম্যাচে চারে নেমে তিনি আউট হয়ে যান প্রথম বলে।

তার হেড পজিশন ও স্টান্সেও চোখে পড়ার মতো বদল এসেছে। ধারণা করা হচ্ছে, চোখের সমস্যার কারণেই এভাবে খেলার চেষ্টা করছেন সাকিব।

দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে মঙ্গলবার তিনি ব্যাটিংয়ে নামেন তিন নম্বরে। শুরুতে যথারীতি তাকে ছন্দে মনে হচ্ছিল না। আরাফাত সানি, চাতুরাঙ্গা ডি সিলভা, মোসাদ্দেক হোসেনদের বলে টাইমিং ঠিকঠাক করতে পারছিলেন না। তবে মোসাদ্দেকের বলে ওই বাউন্ডারির পর দেখা যায় তাকে ভিন্ন রূপে। 

ওই চারটি মারার পরের ওভারে চাতুরাঙ্গার বলে ছক্কা মারেন তিনি টানা দুই বলে। এর প্রথমটিতে অবশ্য ক্যাচ নেওয়ার সুযোগ ছিল গুলবাদিন নাইবের। তবে তার হাত ছুঁয়ে বল চলে যায় সীমানার ওপারে। পরেরটি অবশ্য অফ স্টাম্পের বাইরে থেকে ছক্কায় ওড়ান তিনি স্লগ সুইপে। পরের ওভারে আরেকটি ছক্কা মারেন তিনি মোসাদ্দেকের শর্ট বল পেয়ে।

তার অভিযান অবশ্য শেষ ওখানেই। আবার স্লগ সুইপে ছক্কার চেষ্টায় ধরে পড়েন মোহাম্মদ নাঈম শেখের হাতে।

এমন বড় কোনো ইনিংস নয়, জীবন পেয়েছেন, বড় শটগুলি খেলেছেন আলগা বলে। তার পরও তার ইনিংসটিতে আছে আশার উপকরণ। হয়তো ব্যাট হাতে নিজেকে খুঁজে পেতে শুরু করেন সাকিব।