আগে ‘মনের’ পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করুন: খাদ্যমন্ত্রী

বিদেশিরা এসে মান রক্ষায় তদারকি করবে-এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে, বলেন তিনি।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Sept 2022, 03:14 PM
Updated : 11 Sept 2022, 03:14 PM

খাদ্যের যথাযথ মান নিশ্চিত করা না গেলে আন্তর্জাতিক বাজারে গ্রহণযোগ্যতা পাওয়া যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রথম ‘ফুড অ্যান্ড কেমিক্যাল ল্যাব এক্সপো ২০২২’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

সরকারি, অ্যাকাডেমিক, গবেষণাভিত্তিক ও বেসরকারি পর্যায়ের ৪৪টি ল্যাব প্রদর্শনীতে অংশ নেয়।

ফুড অ্যান্ড কেমিক্যাল ল্যাব এক্সপোর মাধ্যমে সরকারি ও বাণিজ্যিক ল্যাব বা পরীক্ষাগারের সেবা প্রচারের পাশাপাশি জনসচেতনতা গড়ে তোলা যাবে এবং পরীক্ষাগারগুলোর মধ্যে সমন্বয়, যোগাযোগ ও সহযোগিতা উৎসাহিত হবে বলে আয়োজকরা মনে করছেন।

অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ থেকে অনেক কৃষিপণ্য ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্য বিদেশে রপ্তানি হয়। কিন্তু এসব পণ্যের এখনও মূল ভোক্তা হচ্ছে সংশ্লিষ্ট দেশে অবস্থানকারী বাংলাদেশিরা।

খাদ্যের মান এখনও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছাইনি মন্তব্য করে তিনি বলেন, “উত্তরবঙ্গ থেকে ব্রিটেনে আম রপ্তানি হয়। কিন্তু সেখানেও ব্রিটিশ কোম্পানির প্রতিনিধিরা এসে সার্বিক দেখভাল করে সেই আম নিয়ে থাকে। আমরা চাই নিজেরাই যেন মানের বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করতে পারি।

“বিদেশিরা এসে মান রক্ষায় তদারকি করবে- এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। নিরাপদ ও পুষ্টিমান সম্পন্ন খাবার তৈরি করতে পারলে বিদেশেও রপ্তানির ক্ষেত্রে বিশ্বাস যোগ্যতা অর্জন সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, অনিরাপদ খাবারকে খাদ্য হিসেবে ধরতে চাই না। যে খাবার খেয়ে মানুষ নানা রোগে ভোগে তা খাদ্য হতে পারে না। এজন্য খাদ্য নিরাপদ কি না তা ল্যাবে পরীক্ষা করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কৃষকের হাত থেকে ভোক্তার টেবিলে আসা পর্যন্ত যেকোনো সময় খাদ্য অনিরাপদ হতে পারে। এজন্য আমাদের সচেতন হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। যারা বিদেশে ফুড প্রসেস করে রপ্তানি করে তাদেরকেও সচেতন হতে হবে।

নিরাপদ খাদ্য পাওয়ার জন্য সবার মানসিক প্রস্তুতির উপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, আইন প্রয়োগ বা জরিমানা করেই কিন্তু সমাধান পাওয়া যাবে না। ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার আগে মনের ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করতে হবে।

“বিশ্ববাজারে আমরা এখনও ভালোভাবে স্থান করতে পারিনি। ল্যাবরেটরি পর্যাপ্ত না হলে মানুষ চাইলেও পরীক্ষা করতে পারেন না। এজন্য সরকার চেষ্টা করছে এটা যেন এভেইলেবল করা যায়।“

খাদ্যমান পরীক্ষার জন্য সরকার ইতোমধ্যে দেশের আট বিভাগে ল্যাবরেটরি স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া আটটি মোবাইল ভ্যান ল্যাব ও জাইকার সঙ্গে আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং ল্যাব স্থাপনের জন্য চুক্তি হয়েছে বলেও মন্ত্রী জানান।

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আয়োজনে অনুষ্ঠানে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইসমাইল হোসেন বলেন, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে যার যার অবস্থান থেকে সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জিয়াউল হাসান বলেন, এ প্রদর্শনী বিভিন্ন অংশীজনের মধ্যে একটা বন্ধন হিসেবে কাজ করবে।

নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আবদুল কাইয়ুম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ঢাকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেপুটি চিফ অব মিশন হেলেন লাফেইভ উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক