নর্থ সাউথের উপ-উপাচার্যসহ চারজন রিমান্ডে

গুলশানের ক্যাফেতে হামলাকারীদের আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে নর্থ সাউথের উপ-উপাচার্যসহ গ্রেপ্তার চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আট দিন করে রিমান্ডে নেবার অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

আদালত প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 July 2016, 10:11 AM
Updated : 24 July 2016, 08:24 AM

ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ও ট্রান্স ন্যাশনাল ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির রোববার ওই চারজনক আদালতে হাজির করে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করেন এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের ১০ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আর্জি জানান।

অন্যদিকে আসামিদের পক্ষে তাদের আইনজীবীরা রিমান্ডের বিরোধিতা করে জামিনের আবেদন করেন।

শুনানি শেষে মহানগর হাকিম তসরুজ্জামান জামিন নাকচ করে প্রত্যেককে আট দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন বলে পুলিশের প্রসিকিউশন বিভাগের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা রণপ কুমার ভক্ত জানান।

শনিবার বিকালে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি ভবন থেকে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপ-উপাচার্য গিয়াস উদ্দিন আহসানসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। আর রাতে ঢাকার পশ্চিম শেওড়াপাড়ায় আরেক বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয় আরেকজনকে। 

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার আগে পাঁচ জঙ্গি বসুন্ধরা ও শেওড়াপাড়ার ওই দুই বাসায় আশ্রয় পেয়েছিলেন বলে পুলিশের ভাষ্য।

গ্রেপ্তার অন্য তিনজন হলেন- গিয়াস উদ্দিনের ভাগনে আলম চৌধুরী এবং বসুন্ধরার ওই ভবনের ব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান তুহিন ও শেওড়াপাড়ার ওই বাসার মালিক নুরুল ইসলাম।

গিয়াস উদ্দিন, আলম ও  তুহিনের পক্ষে শুনানি করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সাবেক পিপি আরফান উদ্দিন খান।

তিনি বলেন, “গিয়াসউদ্দিন নয় বছর আগে তার স্ত্রীর নামে বসুন্ধরায় ওই ফ্ল্যাট কেনেন। সেখানে তিনি কখনোই যেতেন না। তিনি মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডে থাকেন।”

গণমাধ্যমের খবরে গিয়াসউদ্দিনকে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রো-ভিসি বলা হলেও তিনি তা নন জানিয়ে এই আইনজীবী বলেন, “তার প্রো-ভিসি হওয়ার বিষয়টি ইউজিসির অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।”

নুরুল ইসলামের আইনজীবী সোহরাব হোসেন আদালতে বলেন, তার মক্কেল মিরপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক। তিনি পুলিশের নির্দেশনা মেনে ভাড়াটিয়াদের তথ্য দিয়েছিলেন।   

রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে শুনানি করেন পিপি আবদুল্লাহ আবু।

গত ১ জুলাই রাতে গুলশান ২ নম্বরের হলি আর্টিজান বেকারিতে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে দেশি-বিদেশি অন্তত ৩৩ জনকে জিম্মি করে একদল অস্ত্রধারী। পরদিন সকালে কমান্ডো অভিযানে নিরাপত্তা বাহিনী ওই ক্যাফের নিয়ন্ত্রণ নেয়।

পরে সেখান থেকে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। অভিযানে নিহত ছয়জনের মধ্যে পাঁচ হামলাকারী বেশ কিছুদিন ধরে নিরুদ্দেশ ছিলেন বলে পরিবারের ভাষ্য।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান শনিবার রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ৬ নম্বর সড়কের ব্লক ই-এর ৩ নম্বর হোল্ডিংয়ের এ/৬ নম্বর ফ্ল্যাটে বালুভর্তি কার্টন এবং  জঙ্গিদের কাপড়সহ বিভিন্ন মালামাল পাওয়া যায়।

“সেখানে গুলশানে হামলাকারীরা মিলিত হয়েছিলেন। আর বালুভর্তি এসব কার্টনে হামলায় ব্যবহৃত গ্রেনেড রাখা হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।”

৪৪১/৮ পশ্চিম শেওড়াপাড়ার বাসাতেও ‘জঙ্গিদের ব্যবহৃত হাতে তৈরি গ্রেনেড, কালো রঙের পোশাক’ পাওয়া গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, “ভাড়াটিয়াদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ না করা এবং তথ্য গোপন করার অভিযোগে বাড়ির মালিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক