গাজায় বাস্তুচ্যুত মানুষের রাফাহ নগরীতে ইসরায়েলের হামলা

গাজার দক্ষিণাঞ্চলে বাস্তুচ্যুত মানুষে পরিপূর্ণ এই নগরীতে ইসরায়েলের হামলায় দুই পরিবারের ১০ জন নিহত হয়। রুটির টুকরো হাতে মারা যায় এক শিশু।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Jan 2024, 06:39 AM
Updated : 14 Jan 2024, 06:39 AM

গাজার দক্ষিণাঞ্চলে বাস্তুচ্যুত মানুষে পরিপূর্ণ রাফাহ নগরীতে ইসরায়েল হামলা চালিয়েছে। এতে সেখানে একটি বাড়িতে আশ্রয় নেওয়া দুটি পরিবারের ১০ জন নিহত হয় বলে জানিয়েছেন গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

 গাজার দক্ষিণাঞ্চলে ইসরায়েলের হামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় নিহত ১৩৫ জনের মধ্যে আছে এই দুই পরিবারের সদস্যরা। নিহতদের স্বজন বাসেম আরাফেহ একটি ছবি হাতে শোক করছিলেন। ছবিতে দেখা যায়, নিহত এক মেয়েশিশু একটি পাউরুটির টুকরো ধরে আছে।

আরাফেহ বলেন, “পরিবার দুটির সদস্যরা রাতের খাবার খাওয়ার সময় হামলা হয়। ক্ষুধার্ত অবস্থায় শিশুটি মারা গেছে। সে এক টুকরা রুটি খাচ্ছিল, এতে আর কিছুই ছিল না। কীভাবে শিশুরা মারা যাচ্ছে, তা দেখার জন্য আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালত কোথায়? মুসলিমরা কোথায়....বিশ্বনেতারা কোথায়?”

ইসরায়েলের হামলা থেকে বাঁচতে গাজার বিভিন্ন স্থান থেকে দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফাহ নগরীতে আশ্রয় নেওয়া মানুষের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

ইসরায়েল বলছে, তারা যতটা সম্ভব বেসামরিক মানুষের ক্ষয়ক্ষতি এড়িয়ে কেবল হামাস যোদ্ধাদের নিশানা করে হামলা চালাচ্ছে। কিন্তু রাফাহর বাসিন্দারা বলছে ভিন্ন কথা।

রাফাহর এক বাসিন্দা সমির বলেছেন, ইসরায়েলের বোমা হামলায় তার বাড়ি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। বাড়িতে কিংবা বাড়ির বাইরে কোথাও নিরাপদ জায়গা নেই বলে জানান তিনি।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী শনিবার বলেছে, দক্ষিণাঞ্চলের খান ইউনিস নগরী ও মধ্য গাজায় তারা বহু যোদ্ধাকে হত্যা করেছে। আর রাফায় বেসামরিক মানুষের মৃত্যুর খবর খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্সেস (আইডিএফ)।

বিবিসি জানায়, টেলিগ্রামে এক পোস্টে গাজার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আশরাফ আল-কুদ্র বলেছেন, রাফার অবকাঠামো এবং চিকিৎসা সেবা ১৩ লাখ বাস্তুচ্যুত মানুষের চাহিদা পূরণ করতে পারছে না।

হাজার হাজার বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি এবং তাদের পরিবারের ভারে রাফাহ নগরী ভেঙে পড়ার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। বহু বাস্তুচ্যুত মানুষ হাসপাতালের ওয়ার্ডগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে।