ইরানে ইন্টারনেট পরিষেবার উপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল করছে যুক্তরাষ্ট্র

এ ঘোষণার পর ইলন মাস্ক ইরানে ইন্টারনেট পরিষেবা দিতে তার স্যাটেলাইট ইন্টারনেট ফার্ম স্টারলিংক'কে সক্রিয় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Sept 2022, 04:10 PM
Updated : 24 Sept 2022, 04:10 PM

নীতি পুলিশের হেফাজতে এক তরুণীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ইরান জুড়ে চলা বিক্ষোভের মধ্যে দেশটির ইন্টারনেট পরিষেবাকেন্দ্রীক নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, ‘‘ইরানের জনগণকে যেন বিচ্ছিন্ন হয়ে এবং অন্ধকারে থাকতে না হয় তা নিশ্চিত করতে আমরা সাহায্য করতে যাচ্ছি।”

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সফ্টওয়্যারের উপর নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার এই ঘোষণার অর্থ হল আমেরিকার প্রযুক্তি ফার্মগুলো এখন ইরানে তাদের ব্যবসার বিস্তার ঘটাতে পারবে।

ইরানের নীতি পুলিশের হেফাজতে থাকা অবস্থায় এক গত ১৬ সেপ্টেম্বর মাশা আমিনি নামে ২২ বছরের এক তরুণীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে দেশটিতে বিক্ষোভের আগুন জ্বলছে।

শুক্রবার ইরানের ৮০টি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। বেশ কিছু শহরে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশ ও সরকারপন্থিদের সংঘর্ষ হয়েছে। ওইসব সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত অন্তত ৩৫ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

২০১৯ সালে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে হওয়া বিক্ষোভের পর ইরানে চলমান বিক্ষোভের মত এত বড় বিক্ষোভ আর হয়নি বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

শুক্রবার রাত পর্যন্ত সেখানে টানা আটদিন ধরে বিক্ষোভ চলছে। নারীরা হিজাব পুড়িয়ে দিয়ে বিক্ষোভ করছেন।

হিজাব দিয়ে ঠিক মত চুল ডাকেনি অভিযোগ তুলেই তেহরানের নীতি পুলিশ আমিনিকে আটক করেছিল। কুর্দিদের একটি অঞ্চল থেকে ভাইয়ের সঙ্গে তেহরান গিয়েছিলেন ওই তরুণী।

অভিযোগ আছে, পুলিশ তাদের লাঠি দিয়ে আমিনির মাথায় মেরে ছিল। পুলিশের একটি গাড়ির সঙ্গেও আমিনির মাথা ঠুকে দেওয়া হয়েছিল। যার ফলে আমিনি অজ্ঞান হয়ে কোমায় চলে যান। মৃত্যুর আগে তিনদিন হাসপাতালে কোমায় ছিলেন তিনি।

আমিনির মৃত্যু ঘিরে শুরুতে কুর্দি অধ্যুষিত শহরগুলোতে এবং পরে পুরো দেশজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

বিক্ষোভ দমনে ইরান সরকার কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। কর্তৃপক্ষ সেখানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করছে। ইন্টারনেট সেবাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ব্লিংকেন বলেন, ইন্টারনেট সেবার উপর আরোপ করা বিধিনিষেধের আংশিক শিথিল করার মাধ্যমে ‘ইরানিদের মৌলিক অধিকারের প্রতি সম্মান জানানোর দাবিতে অর্থপূর্ণ সমর্থন প্রদানের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র’।

তিনি আরো বলেন, ‘‘ইরান সরকার যে তাদের নিজেদের জনগণকেই ভয় পাচ্ছে সেটা এখন পরিষ্কার।”

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণার পরপরই টুইটারে এক বার্তায় ইলন মাস্ক জানান, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্লিংকেনের ঘোষণার পর তাতে সাড়া দিয়ে ইরানে ইন্টারনেট পরিষেবা দিতে তিনি তার স্যাটেলাইট ইন্টারনেট ফার্ম স্টারলিংককে সক্রিয় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

স্টারলিংক স্যাটেলাইটের বিশাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ইন্টারনেট পরিষেবা সরবরাহ করে থাকে। প্রত্যন্ত অঞ্চলে যারা উচ্চগতির ইন্টারনেট পান না তাদের লক্ষ্য করেই এই সেবা দেওয়া হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক