ওমিক্রন: নতুন গবেষণা টেস্ট কিট তৈরি করলো রোশ

সুইস ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানি রোশে’র অধীনস্ত নতুন ডায়াগনস্টিক কোম্পানি টিআইবি মলবিওল করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের মিউটেশন শনাক্তে গবেষকদের সহযোগিতা করতে নতুন তিনটি টেস্ট কিট তৈরি করেছে।

>>রয়টার্স
Published : 3 Dec 2021, 02:06 PM
Updated : 3 Dec 2021, 02:06 PM

শুক্রবার রোশ কোম্পানি একথা জানিয়েছে। রোশ এর প্রধান থমাস শিনেকার এক বিবৃতিতে বলেন, “আমরা একটি পরীক্ষার ব্যবস্থা করেছি, যা বিশেষত করোনাভাইরাসের নতুন ওমিক্রমন ধরন বি.১.১.৫২৯ শনাক্ত করতে সক্ষম। এটির বৈশিষ্ট্য এবং ছড়িয়ে পড়া সম্পর্কে জানতে এই পরীক্ষা কাজে দেবে।”

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, বর্তমানে যেসব পরীক্ষা ব্যবস্থা চালু আছে তা দিয়ে মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের যে কোনও ধরন শনাক্ত করা সম্ভব। কিন্তু বেশির ভাগ পিসিআর পরীক্ষাতেই ওমিক্রন আর ডেল্টা ধরনের মধ্যে পার্থক্য করা যায় না।

তাই এখন পর্যন্ত ডব্লিউএইচও বিকল্প হিসেবে মার্কিন কোম্পানি থারমো ফিশারের উদ্ভাবিত টাকপাথ পরীক্ষার সুপারিশ করেছে।

রোশ কোম্পানি জানিয়েছে, তাদের এবং টিআইবি মলবিওলের নতুন টেস্ট কিট কেবল গবেষকরাই ব্যবহার করতে পারবেন। এতে করোনাভাইরাসের অন্যান্য ধরনের তুলনায় ওমিক্রনের মিউটেশনকে আলাদা করে চেনা যাবে।

এভাবে ওমিক্রন শনাক্ত করতে গবেষকদের জন্য সহায়ক হবে এই টেস্ট কিট। করোনাভাইরাসের অন্যান্য ধরনের চেয়ে ওমিক্রন কতটা ভয়াবহ মাত্রায় ছড়াতে পারে তা নিয়ে গবেষণা করতে পারবেন তারা।

তাছাড়া, ভ্যারিয়েন্টটি ছড়িয়ে পড়ার কারণে সম্ভাব্য থেরাপিউটিকস, টিকা ও জনস্বাস্থ্যে এর প্রভাব সম্পর্কে জানতেও গবেষকরা ব্যবহার করতে পারবেন এই টেস্ট কিট।

গত ২৪ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ার খবর জানায়। পরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গত সপ্তাহে এই ধরনকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে বিশ্বকে সতর্ক করে দেয়।

করোনাভাইরাসের অন্যান্য ধরনের চেয়ে ওমিক্রন আরও বেশি দ্রুত ছড়াতে পারে বলেই ধারণা প্রকাশ করেছে ডব্লিউএইচও।

তাই কতটা দ্রুত এই ধরন ছড়াচ্ছে তা জানতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার নতুন কোভিড আক্রান্তদের তথ্য সংগ্রহে তৎপর হয়েছে, যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে এবং নতুন ধরন ওমিক্রনের ভাইরাল জিনোম উন্মোচন করা হচ্ছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক