শ্রীলঙ্কায় বিক্ষোভকারীদের শুক্রবারের মধ্যে বিক্ষোভস্থল ছাড়ার নির্দেশ

সাবেক প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিতে কলম্বোর গল ফেস গ্রিন এলাকায় বিক্ষোভ শুরু করেছিলেন শ্রীলংকানরা। শুক্রবার বিকাল ৫ টার মধ্যে তাদেরকে এই স্থান ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 August 2022, 02:09 PM
Updated : 4 August 2022, 02:09 PM

শ্রীলঙ্কায় সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদেরকে তাদের মূল বিক্ষোভস্থল কলম্বোর গল ফেস গ্রিন এলাকা থেকে শুক্রবার বিকাল ৫ টার মধ্যে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ।

সাবেক প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিতে গত ৯ এপ্রিলে এই গল ফেস এলাকায় বিক্ষোভ শুরু করেছিল শ্রীলংকানরা। তখন থেকেই বিক্ষোভকারীরা সেখানে তাঁবু গেড়ে আছে এবং মাটিতে চারাও রোপণ করছে।

ফোর্ট পুলিশের গণমাধ্যম শাখা থেকে বিক্ষোভকারীদেরকে সব অবৈধ তাঁবু এবং শিবির সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে শ্রীলংকার ‘ডেইলি মিরর’ পত্রিকা।

পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের কাছের গল ফেস এবং আশেপাশের এলাকা যারা অবৈধভাবে দখল করে আছেন, তাদেরকে শুক্রবার (৫ অগাস্ট) বিকাল ৫ টার আগেই এলাকা ছেড়ে দিতে হবে।”

এইসব এলাকা সরকার বা ‘আরবান ডেভেলপমেন্ট অথরিটির’ উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, বিক্ষোভকারীরা এখানে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছেন, জমিতে চারা লাগাচ্ছেন। এই স্থান ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ যারা অমান্য করবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিক্ষোভের মুখে গত ১৪ জুলাই গোটাবায়া রাজাপাকসের পতনের পর শ্রীলংকার নতুন প্রেসিডেন্ট হন রনিল বিক্রমাসিংহে। এরপরই ২২ জুলাই বিক্ষোভকারীদেরকে প্রেসিডেন্ট ভবনের গেট এবং কার্যালয় থেকে জোর করে সরিয়ে দেওয়া হয়। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমালোচনা হয়েছিল।

এরপর বুধবার বিক্রমাসিংহে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর দেওয়া প্রথম পার্লামেন্টে ভাষণে বিক্ষোভকারীদেরকে অনুমতি নেই এমন জায়গায় বিক্ষোভ না করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, কলম্বো এবং কান্ডি মিউনিসিপাল কাউন্সিল বিক্ষোভকারীদের জন্য বিক্ষোভের একটি জায়গা ঠিক করে দেবে। তাছাড়া, শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের অধিকারের সুরক্ষায় তিনি একটি ব্যুরোও স্থাপন করবেন বলে জানান।

ওদিকে, দেশের পরিস্থিতি নিয়ে ভাষণে বিক্রমাসিংহে বলেন, আমরা ভয়াবহ বিপদে আছি। আমরা সবাই এক হয়ে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করলেই দেশকে বিপদ থেকে উদ্ধার ও নিরাপদ করা সম্ভব।

পার্লামেন্টের ভাষণে তিনি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এর সঙ্গে চলমান আলোচনা নিয়েও কথা বলেন এবং তার পরিকল্পনা তুলে ধরেন। এর মধ্যে রয়েছে ২৫ বছর মেয়াদী জাতীয় অর্থনৈতিক নীতি। আইএমএফ-এর সঙ্গে আলোচনা সফল হবে বলেও বিক্রমাসিংহে আশা প্রকাশ করেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক