মেক্সিকোতে টাউন হলে বন্দুকধারীদের গুলিতে মেয়রসহ নিহত ১৮

হামলার জন্য প্রভাবশালী একটি মাদক কারবারি চক্র সংশ্লিষ্ট গ্যাং লস টাকিলারোস-কে দায়ী করা হচ্ছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Oct 2022, 07:43 AM
Updated : 6 Oct 2022, 07:43 AM

মেক্সিকোর পশ্চিমাঞ্চলের ছোট একটি শহরে বন্দুকধারীদের গুলিতে সেখানকার মেয়র ও আরও অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

পুলিশ বলছে, সান মিগুয়েল টোটোলাপান শহরের টাউন হলে বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর ২টার দিকে বন্দুকধারীরা এ হামলা চালায়।

অনলাইনে ছড়িয়ে পড়া একাধিক ছবিতে টাউন হল ভবনের বাইরের দিকে বুলেটের কারণে সৃষ্ট অসংখ্য গর্ত দেখা যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

নিহত মেয়র কনরাডো মেনডোজা আলমেদার বামপন্থি পিআরডি পার্টি এই ‘কাপুরুষোচিত হত্যাকাণ্ডের’ নিন্দা জানিয়ে বিচার দাবি করেছে।

টাউন হলে বুধবারের এই হামলার জন্য প্রভাবশালী একটি মাদক কারবারি চক্র সংশ্লিষ্ট গ্যাং লস টাকিলারোস-কে দায়ী করা হচ্ছে।

নিহতদের মধ্যে পুলিশের কর্মকর্তা ও কাউন্সিল কর্মীরাও রয়েছেন; সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া কিছু ছবিতে মাটিতে রক্তাক্ত মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে।

টাউন হলে ওই হামলার আগে মেনডোজা আলমেদার বাবা, সাবেক মেয়র হুয়ান মেনডোজা অ্যাকোস্টাকে তার বাড়িতে গুলি করে হত্যা করা হয়।

হামলার সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা যেন শহরে পৌঁছাতে না পারে সেজন্য সান মিগুয়েল টোটোলাপান শহর যে রাজ্যে অবস্থিত, সেই গেরেরো রাজ্যের একটি মহাসড়ক বড় বড় যানবাহন দিয়ে কিছু সময় আটকে রাখা হয়েছিল বলেও খবর পাওয়া গেছে।

মাদক কারবারি নিয়ন্ত্রিত পশ্চিম মেক্সিকোর টিয়েরা ক্যালিয়েন্তে নামে পরিচিত অঞ্চলের কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থিত।

প্রশান্ত মহাসাগর করিডোর বরাবর উত্তরে মাদক পাচারের লাভজনক একাধিক রুট থাকায় এই এলাকাটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে অনেকগুলো অপরাধী চক্রের মধ্যে লড়াই আছেই।  

প্রাথমিক এক প্রতিবেদনে টাউন হলে বুধবারের হামলার ঘটনায় ১৮ জন নিহত ও আরও তিনজন আহত হয়েছে বলে অ্যাটর্নি জেনারেল জানিয়েছেন। স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো ওই প্রতিবেদনটি দেখার কথা জানিয়েছে।

হামলার পর বন্দুকধারীদের ধরতে ওই এলাকায় সেনা ও নৌবাহিনীর একাধিক ইউনিট মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মেক্সিকোর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

বন্দুকধারীদের হামলায় মেয়রসহ ১৮ জনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে টুইট করেছেন গেরেরোর গভর্নর এভেলিন সালগাদো।  

হামলার কিছু সময় আগে লস টাকিলারোসের সদস্যরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও ছেড়ে অঞ্চলটিতে তাদের ফিরে আসার জানান দেয় বলেও শোনা যাচ্ছে। অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী একটি গ্যাংয়ের সঙ্গে তাদের দীর্ঘদিনের লড়াই চলছিল।

শীর্ষ নেতা রেবেল জ্যাকবো দে আলমন্তে খুন হওয়ার আগ পর্যন্ত লস টাকিলারোস ২০১৫ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত গেরেরোতে তাণ্ডব চালিয়েছে; গোষ্ঠীটি অঞ্চলটির মেয়রদের হুমকি দেওয়ার জন্য খ্যাত।

দে আলমন্তে পরিচিত ছিলেন ‘এল টাকিলারো’ বা ‘টাকিলা পানকারী’ নামে; তার এই নাম থেকেই গ্যাংয়ের নামকরণ হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক