২০২৬ বিশ্বকাপ শুরু আসতেকায়, শেষ নিউ জার্সিতে

২০২৬ বিশ্বকাপ শুরু হবে ১১ জুন, ফাইনাল ম্যাচ মাঠে গড়াবে ১৯ জুলাই।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Feb 2024, 10:57 AM
Updated : 5 Feb 2024, 10:57 AM

বিশ্বকাপ শুরুর ২৮ মাসের বেশি সময় আগে প্রকাশ করা হলো টুর্নামেন্টের ১০৪ ম্যাচের ভেন্যু। ২০২৬ সালের ১১ জুন মেক্সিকোর আসতেকা স্টেডিয়ামে হবে ফুটবলের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী ম্যাচ। ১৯ জুলাই ফাইনাল হবে যুক্তরাষ্ট্রের মেটলাইফ স্টেডিয়ামে।

আরেক আয়োজক কানাডা নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে ১২ জুন, টরন্টোয়। একই দিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে লস অ্যাঞ্জেলসের সো-ফাই স্টেডিয়ামে।

এবারই প্রথম তিন দেশ মিলিয়ে হবে বিশ্বকাপ, বাড়ছে অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যাও। ৩৯ দিনের এই টুর্নামেন্টে শিরোপার জন্য লড়াই করবে ৪৮ দল। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও মেক্সিকো তাদের গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলো খেলবে দেশের মাটিতে।

এর আগে দুই দফায় বিশ্বকাপ আয়োজন করেছিল মেক্সিকো, ১৯৭০ ও ১৯৮৬ সালে। যুক্তরাষ্ট্র একবারই, ১৯৯৪ সালে। কানাডায় বিশ্বকাপ হচ্ছে এই প্রথম। তিন দেশের ১৬ শহরে বসবে এবারের আসর, যার ব্যাপ্তী ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ থেকে ১০ দিন বেশি।

৪৮ দলকে ১২টি চার দলের গ্রুপে ভাগ করা হবে। প্রথমবারের মতো এবারের টুর্নামেন্টে সেরা ৩২ থেকে শুরু হবে নকআউট পর্ব। এত দিন হতো সেরা ১৬ থেকে।

ফুটবলে একটি স্থায়ী জায়গা নিয়ে আছে মেক্সিকো সিটির ৮৩ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতার আসতেকা স্টেডিয়াম। ১৯৮৬ আসরে এই মাঠেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি বহুল আলোচিত-সমালোচিত ‘হ্যান্ড অব গড’ গোল ও তুমুল নন্দিত ‘গোল অব দা সেঞ্চুরি’ উপহার দিয়েছিলেন দিয়েগো মারাদোনা। এই ফুটবল জাদুকরের নৈপুণ্যে কোয়ার্টার-ফাইনাল ২-১ গোলে জেতার পর আরও এগিয়ে গিয়ে আর্জেন্টিনা জিতে নিয়েছিল শিরোপা।

কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে টুর্নামেন্টের বাকি সব ম্যাচ হবে যুক্তরাষ্ট্রে। লস অ্যাঞ্জেলেস, কানসাস সিটি, মায়ামি ও বোস্টনে হবে শেষ আটের লড়াই। আটলান্টা ও সবচেয়ে বেশি- ৯ ম্যাচের ভেন্যু ডালাসে হবে শেষ চারের লড়াই। মায়ামিতে হবে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ।

তিন দেশের ১৬ শহরে খেলা বলে লম্বা যাত্রার ধকল সহ্য করতে হতে পারে দলগুলোকে। কোয়ার্টার-ফাইনাল ও সেমি-ফাইনালের ভেন্যুগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন দূরত্ব ৫০০ মাইল, সর্বোচ্চ ২ হাজার ২০০ মাইল। তবে ফিফার দাবি, যাত্রা যতটা সম্ভব কমানোর উদ্যোগ নিয়েছেন তারা।

“টুর্নামেন্টের উদ্ভাবনী সূচি দল ও সমর্থকদের যাত্রা কমিয়ে আনবে। একই সঙ্গে একটা দলের দুই ম্যাচের মধ্যবর্তী বিরতিও বাড়িয়ে দেবে।”

২০২৫ সালের শেষ দিকে হতে পারে বিশ্বকাপের ড্র।