ম্যাচে বার্সারই প্রাধান্য ছিল: শাভি 

দুই দলের সাম্প্রতিক ফর্মের বিবেচনায় ম্যাচের আগে অনেকেই রিয়াল মাদ্রিদকে এগিয়ে রেখেছিলেন। কিন্তু মাঠের লড়াই শুরু হতে পাল্টে যায় সেসব ধারণা; চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের ছেড়ে কথা বলেনি বার্সেলোনা। দলের এমন লড়াকু পারফরম্যান্সে গর্বিত কাতালান দলটির কোচ শাভি এরনান্দেস।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Jan 2022, 09:54 AM
Updated : 13 Jan 2022, 09:54 AM

স্প্যানিশ এই কোচের মতে, ম্যাচ জুড়েই একের পর এক আক্রমণে রিয়ালকে চাপে রেখেছিল তার দল। জয়টা তাদেরই প্রাপ্য ছিল বলে মনে করেন তিনি।

সৌদি আরবের রিয়াদে বৃহস্পতিবার স্প্যানিশ সুপার কাপের এক লেগের সেমি-ফাইনালে অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচটি ৩-২ গোলে জেতে কার্লো আনচেলত্তির দল।

দুই অর্ধে দুই দফা রিয়াল এগিয়ে যাওয়ার পর সমতা টানে শাভির দল। শেষ পর্যন্ত ইউরোপের সফলতম দলটির হয়ে অতিরিক্ত সময়ে পার্থক্য গড়ে দেন মিডফিল্ডার ফেদে ভালভেরদে।

চলতি মৌসুমে এখনও নিজেদের সেরা ফর্ম খুঁজে ফেরা বার্সেলোনাকে এই ম্যাচে অবশ্য ভিন্ন রুপেই দেখা গেছে। ম্যাচের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত রিয়ালের রক্ষণকে তটস্থ রেখেছেন দেম্বেলে-ফাতিরা।

গোলের উদ্দেশ্যেও বেশি শট নিয়েছে বার্সেলোনাই; ২০ শটের ছয়টি লক্ষ্যে রাখতে পারে তারা। আর রিয়ালের ১৪ শটের আটটি ছিল লক্ষ্যে।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে শাভি দলের খেলায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করলেও পাশাপাশি হতাশাও ছিল তার কণ্ঠে। শক্তিশালী রিয়ালের বিপক্ষে নিজেদের সেরা খেলা উপহার দিয়েও জিততে না পারার আফসোস।

“ম্যাচটা আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। ম্যাচের বেশিরভাগ সময় আমরা মাদ্রিদের ওপর প্রাধান্য বিস্তার করেছি, কিন্তু আমাদের এখনও অভিজ্ঞতা, ধৈর্য ও কার্যকারিতার অভাব রয়েছে। আমরা এর কাছাকাছি আছি। আমরা রিয়ালকে কোণঠাসা করে ফেলেছিলাম। এটা (তারপরও জিততে না পারা) দুঃখজনক।”

লা লিগায় দুই দলের মাঝে পয়েন্টের ব্যবধান ১৭। ঘরের মাঠে লিগে হওয়া প্রথম ক্লাসিকোতেও জিতেছিল রিয়াল। ফলে এই ম্যাচে ফেভারিট হিসেবেই নেমেছিল তারা। কিন্তু জয় পেতে তাদের ঘাম ঝরিয়ে ছেড়েছে বার্সেলোনা।

শাভি মনে করেন, শুধু রিয়াল নয়, তার দলের সামর্থ্য রয়েছে যেকোনো দলের বিপক্ষেই সমানে সমান লড়াই করার। বললেন, কিছু ভুল না করলে জয়ী হিসেবেই মাঠ ছাড়তে পারতেন তারা।

“আজ (বুধবার) সাহসী ফুটবল খেলার এবং প্রতিকূলতাকে পেছনে ফেলে আসার দিন ছিল। এই বার্সা যে কোনো দলের বিপক্ষেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে। আমরা মনে ক্ষোভ ও হতাশা নিয়ে বাড়ি ফিরব। আমরা জিততে পারতাম। আমরা ঝুঁকি নিয়েছিলাম এবং তারা আমাদের ভুলের সুযোগ নিয়েছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক