রোমাঞ্চ-উত্তেজনার ভেলায় চেপে চেলসি-টটেনহ্যামের নাটকীয় ড্র

মেজাজ হারিয়ে লাল কার্ড দেখেছেন দুই দলের কোচ আন্তোনিও কন্তে ও টমাস টুখেল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 August 2022, 05:35 PM
Updated : 14 August 2022, 05:35 PM

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে মাঠের লড়াই হলো জমজমাট। দুই দলের ডাগআউটেও ছড়াল চরম উত্তেজনা। টটেনহ্যাম হটস্পারের সামনে চোখ রাঙাচ্ছিল পরাজয়। তবে শেষ মুহূর্তে গোল করে দলকে বাঁচালেন হ্যারি কেইন। চেলসির মাঠ থেকে মূল্যবান পয়েন্ট নিয়ে ফিরল আন্তোনিও কন্তের দল।

স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে রোববার প্রিমিয়ার লিগের রোমাঞ্চকর ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়েছে।

কালিদু কলিবালির গোলে চেলসি এগিয়ে যাওয়ার পর সমতা টানেন পিয়েরে-এমিল হয়বার্গ। রিস জেমস আবার স্বাগতিকদের এগিয়ে নেওয়ার পর কেইনের ওই গোল।

আসরে টানা দ্বিতীয় জয়ের খুব কাছাকাছি গিয়েও পয়েন্ট হারাতে হলো টমাস টুখেলের দলকে। প্রথম ম্যাচে এভারটনের মাঠে ১-০ গোলে জিতেছিল তারা। ঘরের মাঠে সাউথ্যাম্পটনকে ৪-১ গোলে হারিয়ে আসর শুরু করেছিল টটেনহ্যাম।

ঢিমেতালে শুরু ম্যাচে অষ্টাদশ মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগ পায় চেলসি। রাহিম স্টার্লিংয়ের পাস থেকে কাই হাভার্টজের নিচু শট দারুণ দক্ষতায় কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন উগো লরিস।

সেই কর্নার থেকেই দুই নতুন খেলোয়াড়ের নৈপুণ্যে এগিয়ে যায় চেলসি। মার্ক কুকুরেইয়ার কর্নারে বুলেট গতির ভলিতে ঠিকানা খুঁজে নেন সেনেগালের ডিফেন্ডার কলিবালি। জায়গায় দাঁড়িয়ে তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছু করার ছিল না লরিসের।

নতুন ক্লাবের হয়ে কলিবালির প্রথম গোল এটি।

প্রথমার্ধে টটেনহ্যাম একমাত্র ভালো সুযোগটি পায় ২৩তম মিনিটে। রায়ান সেসেগননের নিচু শট ব্যর্থ করে দেন চেলসির গোলরক্ষক এদুয়াঁ মঁদি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সন হিউং মিনের একটি প্রচেষ্টাও ফিরিয়ে দেন তিনি।

৬১তম মিনিটে ভালো একটি সুযোগ পেয়ে উড়িয়ে মারেন স্টার্লিং। পরের মিনিটে পাল্টা-আক্রমণে বল নিয়ে চেলসির ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন কেইন। তবে ইংলিশ অধিনায়কের শট পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়।

৬৮তম মিনিটে সমতায় ফেরে সফরকারীরা। নিজেদের ডি-বক্সে বল ক্লিয়ার করতে পারেননি চেলসির জর্জিনিয়ো। বেন ডেভিসের পাসে বক্সের বাইরে থেকে শটে গোলটি করেন হয়বার্গ।

গোলের পর আগ্রাসী ভঙ্গিতে চেলসির ডাগআউটের দিকে ছুটে যান টটেনহ্যাম কোচ কন্তে, তার দিকে এগিয়ে যান চেলসি কোচ টুখেলও। তাতে ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা। দুই কোচই দেখেন হলুদ কার্ড।

আট মিনিট পরই লিড পুনরুদ্ধার করে চেলসি। আলগা বল পেয়ে এনগোলো কঁতে ডি-বক্সের সামনে বাড়ান স্টার্লিংকে। তার পাস বক্সের ভেতরে পেয়ে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন রিস জেমস।

এই গোলের পর কন্তের সামনে দিয়ে দৌড়ে ছুটে যান টুখেল। যেন প্রতিশোধ নিতে চাইলেন তিনি!

চেলসির তিন পয়েন্ট মনে হচ্ছিল যখন প্রায় নিশ্চিত, তখনই কেইনের সমতাসূচক ওই গোল। যোগ করা সময়ের ষষ্ঠ মিনিটে কর্নারে হেডে বল জালে পাঠান এই ফরোয়ার্ড।

শেষ বাঁশি বাজার পর আবারও কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়েন টুখেল ও কন্তে, যা গড়ায় হাতাহাতির পর্যায়ে। দুজনকেই লাল কার্ড দেখান রেফারি।

দিনের আরেক ম্যাচে ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডকে ১-০ গোলে আসরে প্রথম জয় পেয়েছে ২৩ বছর পর প্রিমিয়ার লিগে ফেরা নটিংহ্যাম ফরেস্ট।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক