পিএসজিতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিততে না পারা মানেই ব্যর্থতা

প্যারিসের ক্লাবটিতে চাকরি হারানোর এক মাস পর প্রথম মুখ খুললেন আর্জেন্টাইন এই কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 August 2022, 08:49 AM
Updated : 2 August 2022, 08:49 AM

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে পিএসজি ছিটকে যাওয়ার সঙ্গেই মাওরিসিও পচেত্তিনোর ভবিষ্যৎ লেখা হয়ে গিয়েছিল বলে ধারণা অনেকের। আর্জেন্টাইন এই কোচ নিজেও তা মনে করেন। বললেন, ক্লাবটিতে ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতাটি জিততে না পারা মানেই ব্যর্থতা।

২০২১ সালের জানুয়ারিতে পচেত্তিনো দায়িত্ব নেওয়ার পর তার কোচিংয়ে ৮৪টি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলে পিএসজি। দায়িত্ব নেওয়ার কদিন পরই জেতেন ফরাসি সুপার কাপ। পরে ওই মৌসুমে দলকে জেতান ফরাসি কাপও।

ইউরোপ সেরা হওয়ার স্বপ্নে বিভোর তারকাসমৃদ্ধ ক্লাবটি ২০২১-২২ মৌসুমের আগে দলে টানে লিওনেল মেসি, সের্হিও রামোসসহ আরও কয়েক বড় মাপের খেলোয়াড়কে। লক্ষ্য ওই একটাই-চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা।

তাতে দারুণ কিছুর আশা জাগালেও শেষ পর্যন্ত হতাশাই সঙ্গী হয়। শেষ ষোলোর লড়াইয়ে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে হেরে ছিটকে যায় তারা। দাপটের সঙ্গে পরে দল লিগ ওয়ান জিতলেও সমর্থক থেকে শুরু করে ক্লাব কর্মকর্তাদের মন জয় করতে পারেনি ওই সাফল্য।

চাকরি হারানোর প্রায় এক মাস পর গণমাধ্যমে প্রথম ওই বিষয়ে কথা বললেন পচেত্তিনো। আর্জেন্টাইন নিউজ পোর্টাল ইনফোবায়েকে জানালেন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগই ছিল তার বরখাস্তের কারণ।

“পিএসজিতে সবার দৃষ্টি ও মনোযোগ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিবদ্ধ। আর এই বিষয়টা কখনও কখনও পথচলায় বিভ্রান্তিকর হতে পারে।”

গত এক দশকে লিগ ওয়ানে নিয়মিত সাফল্য পাচ্ছে পিএসজি। এই ১০ বছরে আটবারই লিগ ওয়ান জিতেছে তারা। ঘরোয়া ফুটবলের অন্যান্য শিরোপাও অনেকবার জিতেছে এই সময়ে।

তবে লিগ ওয়ানের অন্যান্য দলগুলোর চেয়ে শক্তির বিচারে অনেক এগিয়ে থেকেও ২০২০-২১ মৌসুমে লিগ শিরোপা হারানো এবং গত মৌসুমে তাদের অধারাবাহিক পারফরম্যান্সে পচেত্তিনোর কথার সত্যতা মেলে।

“সেখানে সবকিছুই ইউরোপিয়ান ম্যাচগুলোর প্রস্তুতির জন্য করা হয়ে থাকে। আর এই কারণেই অন্য টুর্নামেন্টগুলোয় নিশ্চিত জয় ধরে নেওয়া হয়। ক্লাবটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের স্বপ্নে মগ্ন এবং সেখানে এটি জেতা ছাড়া অন্য যেকোনো কিছুই ব্যর্থতা বলে ধরে নেওয়া হয়।”

গত জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে পিএসজির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ার পর থেকে বার্সেলোনায় নিজ বাড়িতেই আছেন ৫০ বছর বয়সী এই কোচ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক