ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলল ৩ জনকে, মৃত্যু একজনের

দুই কিশোরের অভিযোগ, দুর্বৃত্তরা একে একে তাদের তিনজনকে ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেয়; তারা বেঁচে গেলেও প্রাণ গেছে তাদের সঙ্গী এক তরুণের।

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Sept 2022, 06:30 PM
Updated : 12 Sept 2022, 06:30 PM

‘টাকার জন্য’ ট্রেনের ছাদ থেকে অজ্ঞাত হামলাকারীরা তিন কিশোর-তরুণকে ফেলে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে; এদের মধ্যে একজন মারা গেছে।

সোমবার বিকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা থেকে এক তরুণের মরদেহ উদ্ধার করেছে লাকসাম রেলওয়ে থানা পুলিশ।

এর আগে রোববার রাতে দুই কিশোরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত আবু সায়েম (১৮) কিশোরগঞ্জের সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের কাটাখালি গ্রামের স্বপ্ন মিয়ার ছেলে।

আহতরা হলেন একই গ্রামের সাদ আহমেদ (১৩) ও পলাশ মিয়া (১৬)। হতাহতরা সম্পর্কে চাচাতো ভাই বলে জানিয়েছেন।

লাকসাম রেলওয়ে থানার ওসি জসিম উদ্দিন খন্দকার জানান, এই তিন কিশোর-তরুণকে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের বিরতিহীন সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

আহত দুইজন পুলিশ ও সাংবাদিককে জানান, পরিবারের সদস্যদের না জানিয়ে ট্রেনের ছাদে চড়ে কিশোরগঞ্জ থেকে চট্টগ্রাম গিয়েছিলেন তারা। একইভাবে চট্টগ্রাম থেকে কিশোরগঞ্জে ফিরতে চেয়েছিলেন। ফেরার পথে ট্রেনের ছাদে থাকা কয়েকজন দুর্বৃত্ত তাদের কাছে টাকা দাবি করে। কিন্তু টাকা না থাকায় দুর্বৃত্তরা একে একে তিনজনকে ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেয় বলে অভিযোগ ওই কিশোরদের। দুই কিশোর বেঁচে গেলেও প্রাণ গেছে এক তরুণের।

আহত ওই দুই কিশোর জানান, শনিবার রাতে একটি ট্রেনের ছাদ উঠে কিশোরগঞ্জ থেকে চট্টগ্রাম চলে যান তারা। রোববার বিকালে তারা চট্টগ্রাম থেকে বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে সোনার বাংলা ট্রেনের ছাদে উঠে পড়েন। ওই সময়ে ট্রেনের ছাদে ওঠেন আরও কয়েকজন দুর্বৃত্ত। ট্রেন চলতে শুরু করলে দুর্বৃত্তদের দুইজন তাদের কাছে এসে টাকা দাবি করে। এ সময় তাদের কাছে কিছু নেই বলে টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে দুর্বৃত্তরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে লাকসাম রেলওয়ে জংশন পার হয়ে লালমাই উপজেলা অংশে প্রবেশ করলে দুর্বৃত্তরা একে একে তিনজনকে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দেয়।

আহত পলাশের ভাষ্য, রোববার রাতে তাকে ও সাদকে লালমাই উপজেলার আলিশ্বর ও বাগমারা এলাকার মধ্যবর্তী স্থানের পাশাপাশি এলাকা থেকে উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরে খবর পেয়ে রাতেই লাকসাম রেলওয়ে পুলিশ তাদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

“ট্রেন থেকে ফেলে দেওয়ায় আমার ও সাদের হাত ভেঙে গেছে। রাতেই আমরা পুলিশকে জানিয়েছিলাম আমাদের সঙ্গে আরেকজন ছিল। পরে সোমবার দুপুরের পর খবর পেয়ে বিকালে রেলওয়ে পুলিশ বাগমারা এলাকা থেকে আবু সায়েমের লাশ উদ্ধার করে। আমরা ভেবেছিলাম সায়েম বেঁচে আছেন। কিন্তু ওই দুর্বৃত্তরা তাকে মেরেই ফেলল।”

লাকসাম রেলওয়ে থানার ওসি জসিম উদ্দিন খন্দকার বলেন, মরদেহ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটির তদন্ত চলছে এবং জড়িতদের শনাক্তের চেষ্টা হচ্ছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক