নিশ্চিত থাকেন উপজেলায় অনেক বেশি ভোটার আসবে: আহসান হাবিব

প্রথম ধাপে ১৫২ উপজেলায় ভোট হবে ৮ মে।

বরিশাল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 March 2024, 02:28 PM
Updated : 30 March 2024, 02:28 PM

আসন্ন ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি অনেক ভাল হবে বলে প্রত্যাশা করছেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান।

তিনি বলেছেন, “ভোটার কিন্তু প্রার্থীদেরই ভোট দেবে। সুতারাং ভোটারদের কেন্দ্রে আনার দায়িত্ব প্রার্থীদের। ভোটার উপস্থিতি যদি বলেন, তাহলে সর্বশেষ একটা নির্বাচনে পটুয়াখালীর আমতলীতে ইভিএমএ ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে। একটা ভোটও জালিয়াতি হয়নি।

“সুতরাং নিশ্চিন্ত থাকেন, ভোটার উপস্থিতি অনেক বেশি হবে। আর এজন্য প্রয়োজনে প্রচারের ব্যবস্থাও করা হবে।”

শনিবার বরিশাল জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

চার ধাপে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন, যার প্রথম ধাপে ১৫২ উপজেলায় ভোট হবে আগামী ৮ মে।

প্রথম ধাপের পর ২৩ ও ২৯ মে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপ এবং ৫ জুন শেষ ধাপের ভোট হবে। এসব উপজেলায় চেয়ারম্যান, সাধারণ ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান পদে হবে সাধারণ নির্বাচন।

আগের ভুল-ত্রুটি শুধরে একটি ভালো উপজেলা নির্বাচন দেওয়ার বিষয়ে সবাইকে আশ্বস্ত করে নির্বাচন কমিশানর আহসান হাবিব খান বলেন, “নির্বাচনে কারো কোনো প্রভাব বিস্তারের সুযোগ নেই। সংসদ সদস্যদের অনুরোধ জানিয়েছি এবং ভবিষ্যতেও জানাব, যাতে উপজেলা নির্বাচনে কোনো ধরনের প্রভাব বিস্তার না হয়।

“আর প্রশাসনকে বলেছি, তারা যেন বিনয় নিয়ে সবার সঙ্গে ব্যবহার করেন এবং শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বলেন। তবে অনিয়ম-অন্যায়ের বিরুদ্ধে বল ও আইন প্রয়োগ শতভাগ হবে। তাতে ছোট ছোট জিনিসের ওপরও কোনো ছাড় নয়। তারাও (প্রশাসনও) আমাকে আশ্বস্ত করেছে।”

ভোট নিয়ে সাংবাদিকদের সক্রিয় থাকার আহ্বান জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার বলেন, “(নির্বাচন কমিশন) ভালো করলে ভালো, খারাপ করলে খারাপটা মিডিয়াতে প্রচার করুন। চুরি করলে চোরকে চোর বলুন, তাতে যেই হোক। আমরা মিডিয়াতে দেখে অ্যাকশন নেব।”

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাংবাদিকদের ‘অতুলনীয়’ ভূমিকা ছিল মন্তব্য করে আহসান হাবিব বলেন, “আপনারা সঠিক তথ্য উপস্থাপন করায় সেই তথ্যকে প্রাধান্য দিয়ে অ্যাকশন নিয়েছি। আপনারা মাঠ পর্যায়ে আমাদের চোখ এবং কান হিসেবে ভূমিকা রেখেছেন। প্রশাসনের সবাই আপনাদের সম্পর্কে প্রশংসাও করেছে। স্বচ্ছতা, সততা ও সঠিকতার কোনো বিকল্প নেই, যা আপনারা প্রমাণ করেছেন বস্তুনিষ্ঠ সঠিক তথ্য পরিবেশন করে। আপনাদের বস্তুনিষ্ঠ তথ্য উপস্থাপনের জন্য সবাই সতর্ক ছিলেন।”

“উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের নতুন বিধিতে সাংবাদিকদের গায়ে যদি কেউ আঁচড় দেয়, কেউ ক্যামেরা ক্ষতিগ্রস্ত করে সঙ্গে সঙ্গে তার শাস্তি হবে। ভোটার ও ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের বেলায়ও করা হয়েছে, অর্থাৎ সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে”, বলেন আহসান হাবিব খান।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার শওকত আলী, ডিআইজি জামিল হাসান, পুলিশ কমিশনার জাহিদুল কবির।