প্রস্তাবিত বাজেটে জনস্বাস্থ্য নয়, তামাক কোম্পানি সুবিধা পেল

ইকবাল মাসুদ
Published : 11 June 2022, 01:50 PM
Updated : 11 June 2022, 01:50 PM

এবারের প্রস্তাবিত বাজেটে সিগারেটের নিম্ন স্তরের দশ শলাকার দাম ৩৯ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পণ্যে সম্পূরক শুল্ক ৫৭ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে নিম্ন স্তরের সিগারেটের দাম সামান্য বাড়তে পারে। জর্দা, বিড়ি ও গুলের দাম অপরিবর্তিত রাখা হচ্ছে। মধ্যম স্তরের ১০ শলাকা সিগারেটের দাম ৬৩ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬৫ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেটে। উচ্চ স্তরে ১০২ টাকা থেকে ১১১ টাকা এবং প্রিমিয়াম বা অতি উচ্চ স্তরের ১০ শলাকার দাম ১৩৫ টাকা থেকে ১৪২ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করেছেন এবং সিগারেটে সম্পূরক শুল্ক আগের মতো ৬৫ শতাংশ রাখার কথা বলেছেন অর্থমন্ত্রী। ফলে তামাক নিয়ন্ত্রণের প্রত্যাশা থেকে অনেক দুরে প্রস্তাবিত বাজেট।  জনস্বাস্থ্যের বিবেচনায় এ বাজেট কোনও সুফল বয়ে আনবে না।

বর্তমানে সিগারেট বাজারের ৭৫ শতাংশই নিম্ন স্তরের দখলে। প্রস্তাবিত বাজেটে নিম্ন স্তরে ১০ শলাকা সিগারেটের খুচরামূল্য মাত্র ১ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব করার কারণে এই স্তরে সিগারেটের দাম বাড়বে মাত্র ২ দশমিক ৫৬ শতাংশ, যা ১০ শতাংশ মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির তুলনায় যথেষ্ট নয়। অর্থমন্ত্রীর এ প্রস্তাবনা তরুণ ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর হাতের নাগালের মধ্যে থাকছে তামাকপণ্য এবং জনস্বাস্থ্যের হুমকি হিসেবেও থাকছে। তামাক কোম্পানিতে সরকারের সামান্য মালিকানা থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে কোম্পানির মালিকেরা তামাকপণ্যের প্রত্যাশিত কর আরোপ করতে দেয় না। এই অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে তামাক কোম্পানিকে অগ্রাধিকার দেওয়ার পাশাপাশি তরুণ ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে উপেক্ষা করা হয়েছে। সরকারের সাথে অর্থনৈতিক বোঝাপড়ার কারণে তামাক কোম্পানিগুলো তাদের অশুভ চক্র কাজে লাগিয়ে কর না বাড়িয়ে এবং কর ফাঁকি দিয়ে বাণিজ্যিক সুবিধা ভোগ করে থাকে।

প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী। এবারের বাজেটের আকার জিডিপির ১৫ দশমিক ২ শতাংশ। বিভিন্ন খাতে মোট ৪ লাখ ৩১ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। গত অর্থবছরে (২০২১-২২) স্বাস্থ্য খাতের জন্য মোট ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। এবার ২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে মোট বরাদ্দ হয়েছে ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা। সে হিসেবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দ বেড়েছে ৪ হাজার ১৩২ কোটি টাকা। এরমধ্যে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের বরাদ্দ ২৯ হাজার ২৮২ কোটি টাকা এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ ৭ হাজার ৫৮২ কোটি টাকা বরাদ্দ পাচ্ছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। কারণ দিন দিন মানুষের স্বাস্থ্য ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার মধ্যে অসংক্রামক রোগ অন্যতম। আর এই অসংক্রামক রোগের সূতিকাগার তামাকপণ্য।   

এবছর প্রস্তাবিত বাজেটে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে এনবিআর কর্তৃক সংগৃহিত কর থেকে পাওয়া যাবে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা, এনবিআর বহির্ভূত কর থেকে আসবে ১৮ হাজার কোটি টাকা আর কর ব্যতীত প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা। ফলে, মোট ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৫ দশমিক ৫ শতাংশ। গত বাজেটে এ হার ছিল ৬ দশমিক ২। অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎস থেকে এ ঘাটতি মেটানো হবে বলে জানানো হয়েছে। বর্তমান সময়ে প্রতিদিন অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতির নতুন হিসেব কষতে হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর ধাক্কায় বিপর্যস্ত উৎপাদন, বিপণন এবং সর্বোপরি কর্মসংস্থানের ঝুঁকি তুলে ধরে জাতিসংঘ বলেছে, এ বছর বিশ্ব অর্থনীতি ৩ দশমিক ২ শতাংশ সঙ্কুচিত হবে। কিন্তু ১৫ মে ২০২০ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) প্রকাশিত নতুন সমীক্ষায় দেখা গেল, তা হতে পারে ৫ দশমিক ৮ থেকে ৮ দশমিক ৮ লাখ কোটি ডলারের লোকসানে। যা গোটা পৃথিবীর জিডিপি-র ৬ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে ৯ দশমিক ৭ শতাংশের সমান। যা বৈশ্বিক অর্থনীতিতে করোনাজনিত ক্ষতির পরিমাণ এপ্রিল মাসে প্রকাশিত 'বিশ্ব অর্থনৈতিক পূর্বাভাস' প্রতিবেদনের তুলনায় দ্বিগুণ প্রাক্কলন করেছে। বিশ্ব অর্থনীতির যে ক্ষয়ক্ষতি হতে চলেছে, তা বিবেচনায় না নিয়ে সরকার বাজেট পেশ করেছে। বর্তমান সময়ের অর্থনৈতিক মন্দার মাথায় রেখে সরকার তামাক পন্যের কর বৃদ্ধিকরে সহজে এই পরিস্থিতি উত্তরণের সুযোগ পেত। 

তামাক পণ্যের কর বৃদ্ধিতে যেমন অর্থনৈতিক মন্দা মোকাবেলা করা যেত তেমন জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নও ঘটানো সম্ভব হত। কারণ বাংলাদেশ পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি তামাক ব্যবহারকারী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ (৩ কোটি ৭৮ লাখ) প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ (১৫ বছর ও তদুর্ধ্ব) তামাক ব্যবহার করে; 

১০৯টি দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ ধুমপায়ীর দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান নবম, কর্মক্ষেত্রসহ পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে পরোক্ষ ধুমপানের শিকার হন ৩ কোটি ৮৪ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ। এর ফলে প্রতি বছর তামাকজনিত রোগে প্রায় ১ লাখ ৬১ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেন। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তামাক ব্যবহারের অর্থনৈতিক ক্ষতির (চিকিৎসা ব্যয় এবং উৎপাদনশীলতা হারানো) পরিমাণ ৩০ হাজার ৫৬০ কোটি টাকা, অথচ একইসময়ে (২০১৭-১৮) তামাকখাত থেকে সম্পূরক শুল্ক ও মূসক বাবদ অর্জিত রাজস্ব আয়ের পরিমাণ মাত্র ২২ হাজার ৮১০ কোটি টাকা এবং পরিবেশ এবং কৃষকের জীবন-জীবিকার উপর তামাক চাষের বিরূপ প্রভাব ব্যাপক।

সরকার যদি তামাক কর বাড়ায় তবে সিগারেট ব্যবহারকারীর অনুপাত ১৫ দশমিক ১ শতাংশ থেকে ১৪ দশমিক ০৩ শতাংশ হবে। এতে ১৩ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিক সিগারেটের ব্যবহার ছেড়ে দেবেন ও নয় লাখ তরুণ সিগারেট ব্যবহার শুরু করা থেকে বিরত থাকবেন। এছাড়া আট লাখ ৯০ হাজার অকাল মৃত্যু রোধ করা যাবে। আর সিগারেট বিক্রি থেকে নয় হাজার ২০০ কোটি টাকা বাড়তি রাজস্ব আদায় হবে।

কর আরোপের দুর্বলতার কারণে আমাদের দেশে এখনো তামাকপণ্য অত্যন্ত সস্তা এবং সহজলভ্য। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সিগারেটের ব্যবহার প্রায় একইরকম রয়েছে। বাংলাদেশে তামাক কর কাঠামো অত্যন্ত জটিল যা তামাকের ব্যবহার নিরুৎসাহিতকরণের পথে একটি বড় বাধা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর আরোপের মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য ভাবে তামাকপণ্য নিয়ন্ত্রণ করেছে। আর আমরা তামাক নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্য থেকে অনেক দূরে। তাই তামাক নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্য অর্জনে কর কাঠামোকে অবশ্যই সহজ করতে হবে এবং জনস্বাস্থ্য উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে যথাযথ পদ্ধতিতে তামাক কর বাড়ালে তামাক ব্যবহার কমবে এবং তরুণ প্রজন্ম তামাক গ্রহণে নিরুৎসাহিত হবে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক