হঠাৎ ক্ষেপলেন কেন পরিণীতি?

অভিনেত্রীর রুদ্ররূপের ছবি ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেটে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 Jan 2024, 12:06 PM
Updated : 27 Jan 2024, 12:06 PM

‘সদা হাস্যমুখ' এবং ‘নম্র' স্বভাবের বলে সুনাম আছে বলিউডের অভিনেত্রী পরিণীতি চোপড়ার। সেই অভিনেত্রীকে হঠাৎ পাওয়া গেল ‘রুদ্রমূর্তিতে'। আলোকচিত্রীদের ওপর হঠাৎ ক্ষেপে রীতিমতো তেড়ে গিয়েছেন এই নায়িকা, যিনি আর মাত্র সাত দিন পর বসছেন বিয়ের পিঁড়িতে।

পরিণীতির রাগত চেহারার এমন একটি ছবি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর মানুষের অবাক প্রশ্ন, কি এমন ঘটেছিল যে ক্ষেপে গেলেন পরিণীতি।

ভারতীয় সাংবাদমাধ্যম বলছে, মুম্বাইয়ে গাড়ি থেকে নামতে যাচ্ছেন পরিণীতি, এমন সময়ে তার দিকে এগিয়ে যান এক আলোকচিত্রী। তখন মেজাজ হারিয়ে এই অভিনেত্রী বলে বসেন, “আপনাকে ডেকেছি আমি? বলেছি কাছে আসতে? প্লিজ ছবি তোলা বন্ধ করুন।”

এরপর গাড়ি থেকে নেমে সেই আলোকচিত্রীর মুখোমুখি হয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন পরিণীতি। অথচ বিমানবন্দরে আলোকচিত্রী দেখলে নিজে থেকেই ছবি তোলার জন্য পরিণীতি দাঁড়িয়ে গেছেন, এমন ঘটনাও ঘটেছে অনেকবার।

পরিণীতির ওই রুদ্ররূপের ছবি তুলতেও ছাড়েননি আলোকচিত্রীরা। সেই ছবি ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেটে। আর ওই ছবি দেখে বিস্ময়ের ইমোজি দিয়ে একজন লিখেছেন, “বিয়ের আগে অনেক দুঃশ্চিন্তায় আছেন বুঝি।"

আরেকজনের মন্তব্য, “হিন্দি সিনেমার বাঘা নায়িকা হতে হলে, আলোকচিত্রীদের সঙ্গে বাজে ব্যবহার করতে হয়। পরিণীতিও তাই হয়ত...।"

রাজনীতিক রাঘব চোপড়াকে বিয়ে করতে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর ছাদনাতলায় দাঁড়াবেন নায়িকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার চাচতো বোন পরিণীতি। এই জুটির বিয়ের আসর বসবে রাজস্থানের উদয়পুরের লীলা প্যালেস এবং তাজ লেক প্যালেসে। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি বেশি নয়, মাত্র শদুয়েক।

বিয়ের আচার-অনুষ্ঠান শুরু হবে ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে; সেদিন সকাল ১০টায় হবে পাঞ্জাবী রীতির 'চূড়া' নামের বিয়ের একটি আচার। এরপর বেলা ১২ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত মধ্যাহ্নভোজনের আয়োজন রাখা হয়েছে। ওই ভোজ অনুষ্ঠানের নাম রাখা হয়েছে ‘ওয়েলকাম'।

ওইদিন সন্ধ্যা ৭টায় থাকছে বিয়ের আগের পার্টি। পার্টির থিমের নাম ‘নব্বই দশক’।

পরদিন ২৪ সেপ্টেম্বর হবে বিয়ে, থিম হল ‘আ পার্ল হোয়াইট ইন্ডিয়ান’।  বেলা ২টায় বরযাত্রীরা তাজ লেক প্যালেস থেকে রওনা দেবেন লীলা প্যালেসের উদ্দেশে।

এরপর বেলা ৩টায় পরিণীতি আর রাঘব মালা বদল করবেন। বিকেল ৪টার সময় তারা সাত পাকে বাঁধা পড়বেন। আর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় হবে কনে ‘বিদায়’ অনুষ্ঠান। ‘বিদায়' অনুষ্ঠান নাম দেওয়া হলেও বর-কনে থাকবেন লীলা প্যালেসেই। কারণ রাত সাতে ৮টায় সংবর্ধনা পার্টি বসবে সেখানে।

পাত্র একজন রাজনীতিক হওয়ায় রাজস্থানের উদয়পুরের বিয়ের অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রাজনীতিবিদরাও। তাদের থাকার হোটেল, বিয়ের অনুষ্ঠানে যাতায়াতের পথ ও অনুষ্ঠানস্থল কড়া নিরাপত্তায় ঢেকে দেওয়া হবে।

বিয়ের পর ৩০ সেপ্টেম্বর পরিণীতি আর রাঘবের বিয়ের ‘গ্র্যান্ড রিসেপশন' হবে চণ্ডীগড়ে। যেখানে দুজনের পরিবারের আত্মীয়স্বজন, আর নিকট বন্ধুবান্ধবদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

অভিনয় ও রাজনীতি-এই দুই জগতের দুজন প্রেম করেছেন 'লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকসে' একসঙ্গে পড়াশোনা করার সময়। এরপর গত মে মাসে দুজনের বাগদান হয়।

পরিণীতিকে আগামীতে দেখা যাবে অক্ষয় কুমারের সঙ্গে ‘মিশন রানীগঞ্জ’ সিনেমায়।  এ ছাড়া দলজিত দোসাঞ্জের সঙ্গে ‘চমকিলা’ সিনেমাতেও নায়িকা হয়ে আসছেন তিনি।

আর আম আদমি পার্টির নেতা রাঘব চাড্ডা মাত্র ৩৩ বছর বয়সে ভারতের পাঞ্জাব থেকে আসা সর্বকনিষ্ঠ সংসদ সদস্য হিসেবে রাজ্যসভায় নির্বাচিত হন।  রাঘব এর আগে দিল্লির রাজেন্দ্র নগর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন।

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)