সেলুলয়েডের রানির যাত্রা এবার বইয়ের পাতায়

রানি মুখার্জির স্মৃতিকথার বইটি পাঠকেরা হাতে পাবেন এই অভিনেত্রীর আগামী জন্মদিনে।

গ্লিটজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 Oct 2022, 05:59 AM
Updated : 1 Oct 2022, 05:59 AM

তিনি নাকি অভিনেত্রী হতেই চাননি, কিন্তু নামকাওয়াস্তে একজন অভিনয়শিল্পী হয়ে থাকেননি, আড়াই দশক ধরে বলিউডের ‘রানি’ হয়ে থেকেছেন। সেই রানি মুখার্জি এবার আসছেন লেখক পরিচয়ে।

এই নায়িকা তার স্মৃতিকথা দুই মলাটে বন্দি করতে কিছুদিন ধরে ব্যস্ত দিন পাড়ি দিচ্ছেন। ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে জানা গেল, সেই বই পাঠকেরা হাতে পাবেন আগামী বছরের ২১ মার্চ, রানির জন্মদিনে।

বলিউড পাড়ায় ২৫ বছরের বৃত্ত পূর্ণ করেছেন এই নায়িকা। এতগুলো দিনে কম চড়াই-উৎড়াইয়ের মধ্য দিয়ে যাননি তিনি। হিট-ফ্লপ, জনপ্রিয়তা, প্রতিযোগিতার সমীকরণে এই অভিনেত্রীর অভিজ্ঞতার ঝুলির ভারও মন্দ নয়। সেই সবই এবার সাধারণের সঙ্গে ভাগ করতে চাইছেন রানি। তার স্মৃতিকথা ছাপানোর ভার নিয়েছে ভারতের হার্পার কলিন্স ইন্ডিয়া প্রকাশনী। 

স্মৃতিচারণ নিয়ে এক বিবৃতিতে রানি বলেছিলেন, “ভারতীয় সিনেমা জগতে অত্যন্ত আনন্দ ও ভালোবাসার সঙ্গে ২৫ বছর আমি আছি। আমি কখনই আমার জীবন ও সিনেমা নিয়ে কিছু খুলে বলিনি। কিন্তু এই জগতেও যে মেয়েরা শুধু মেয়ে হিসেবে বৈষম্যের শিকার হন, তার সাক্ষী আমিও। 

“সেসব ঘটনা আমার জীবনকে কীভাবে প্রভাবিত করেছে, সে কথা এবারে জানাব। কিন্তু যেহেতু আমি আমার জীবনে শিল্প চর্চাকেই গুরুত্ব দিয়েছি, আমার উপায় ছিল না কাজ থেকে বিরতি নেওয়ার বা মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার।”

শুধু অভিনয় ক্যারিয়ার নয়, রানির শৈশবস্মৃতিও স্থান পেয়েছে তার বইয়ে। ভক্ত এবং যেসব শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য ‘রানি’ হতে পেরেছেন, বইটি তাদের উৎসর্গ করার পরিকল্পনা আছে রানির।

তিনি উদগ্রীব হয়ে আছেন বইটি পড়ার পর সবার প্রতিক্রিয়া কেমন হবে সেটি জানতে। তার বিশ্বাস, তার জন্মদিনের দিন বই প্রকাশের কারণে দিনটি আরও রঙিন ও বিশেষ হয়ে উঠবে।

রানির বাবা রাম মুখার্জি ছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালক, মা কৃষ্ণা মুখার্জি ছিলেন প্লে ব্যাক সিঙ্গার। বড় ভাই রাজা মুখার্জিও সিনেমার পথেই হেঁটেছেন, তিনি পরিচালক এবং প্রযোজকও। এছাড়া বলিউডের আরেক তারকা কাজলও তার দূর সম্পর্কের বোন। তাই সিনেমায় রানির আসাটা যেত স্বাভাবিক ঘটনাই ছিল।

১৯৯৬ সালে ‘বিয়ের ফুল’ বাংলা সিনেমার মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় নাম লেখান রানি, ওই সিনেমায় প্রসেনজিতের সঙ্গে তিনি জুটি বেঁধেছিলেন। আর বলিউডে রানি খাতা খোলেন ‘রাজা কি আয়েগি বরাত’ সিনেমা দিয়ে, ওই সিনেমায় তার অভিনয় বেশ প্রশংসিত হয়।

দ্বিতীয় সিনেমা ‘গুলাম’ করে বাজিমাত করেন রানি, ওই সিনেমায় আমির খানের সঙ্গে ‘আতি ক্যায়া খান্ডালা’ গান তাকে আলোচনায় নিয়ে আসে।

আর তুমুল জনপ্রিয়তা পান শাহরুখ খান ও কাজলের সঙ্গে ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ সিনেমা করে, মূলত দর্শকরা বুঝে যান বলিউডে রানি পাকাপোক্ত আসন গেঁড়েছেন। এরপর থেকে তার জয়রথ ছুটছে তো ছুটছেই।

‘হার দিল জে প্যায়ার কারেগা’, ‘চোরি চোরি চুপকে চুপকে’, ‘কাভি খুশি কাভি গম’, ‘চালতে চালতে’, ‘কাল হো না হো’, ‘হাম তুম’, ‘ব্ল্যাক’, ‘বান্টি অর বাবলি’, ‘মঙ্গল পান্ডে’, ‘নো ওয়ান কিলড জেসিকা’, ‘নায়ক’, ‘হিচকি’সহ আরও বহু সিনেমা রানির ক্যারিয়ারে শুধুই সিনেমা নয়, এগুলো একের পর সাফল্যের নাম।

তাই প্রাপ্তিও কম নয়, বিভিন্ন সময়ে সাতটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জিতেছেন এই নায়িকা।

বিভিন্ন সময়ে রানির নামের সঙ্গে অভিষেক বচ্চনসহ আরও কয়েক নায়ককে নিয়ে প্রেম-বিয়ের গুঞ্জন শোনা গেলেও সেগুলো নিছক গুঞ্জনই থেকেছে।

২০১৪ সালে রানি বলিউডের বিখ্যাত প্রযোজক যশ চোপড়ার ছেলে আদিত্য চোপড়াকে বিয়ে করে সংসার শুরু করেন। মাঝে সংসার-সন্তান নিয়ে অভিনয়ে কিছুটা ছেদ পড়লেও পরে পুরোদমে অভিনয় শুরু করেন তিনি। গত বছর থেকে রানির ব্যস্ততা শুরু হয় ‘মিসেস চ্যাটার্জি ভার্সেস নরওয়ে’ সিনেমা দিয়ে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক