এফডিসি থেকে অরুণা বিশ্বাসের ব্যাগ চুরি

ফোনের স্মৃতিগুলো তো নষ্ট হয়ে যাবে। ভীষণ মন খারাপ লাগছে, বলেন এ অভিনেত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 August 2022, 03:49 PM
Updated : 19 August 2022, 03:49 PM

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএফডিসি) অনুষ্ঠান থেকে অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাসের ব্যাগ চুরি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকালে শোক দিবসের ওই অনুষ্ঠানে ব্যাগ চুরির পর তিনি তেজগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি জানান, চুরি যাওয়া ব্যাগে তার মোবাইল ফোন, জাতীয় পরিচয়পত্র, ঘরের চাবিসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছু ছিল।

তবে ফোনে থাকা অনেক ছবি হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কাই বেশি পোড়াচ্ছে তাকে।

এফডিসিতে শোক দিবসের ওই অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় অরুণা বিশ্বাস ব্যাগটি চেয়ারে রেখে যান। ফিরে এসে সেটি আর দেখতে পাননি।

তিনি বলেন, “আমি আর অঞ্জনা দিদি তখন পাশাপাশি বসা ছিলাম। অঞ্জনা দিদিকে বলি, দেখে রেখো ব্যাগটা। কথা বলা শেষে এসে দেখি, ব্যাগ আর নেই! আমি তো হতভম্ব হয়ে যাই।”

এফডিসির মত একটি জায়গায় এমন ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে এই অভিনেত্রী বলেন, “একটি চক্র তৈরি হয়েছে। তারা এফডিসির ভেতরে এমন একটি ঘটনা ঘটিয়েছে, অথচ এত চলচ্চিত্র সংগঠনের নেতা। তারা কেউ এটা নিয়ে কোনো কথা বলছেন না।

“আমি খুবই অবাক হয়েছি। আশা করেছিলাম শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন ভাইসহ যারা আছেন, তারা আমাকে অন্তত সান্তনা দেবেন। পুলিশ ও এফডিসি কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধারে সহযোগিতা করবেন। তারা আমার একবার খোঁজও নেননি।“

মোবাইল ফোনটি কানাডা থেকে কেনা হয়েছিল উল্লেখ করে অরুণা বিশ্বাস বলেন, “কানাডায় আমি মোবাইলের নম্বর পাঠিয়েছি। তারা যদি কিছু করতে পারে। আর আমাদের পুলিশ তো না কি মোবাইলের নম্বর দিয়ে ট্র্যাক করে বের করে ফেলতে পারে। এটা কেন পারছে না আমি জানি না। আমি আশা করব, এটা তারা বের করে দিতে পারবে।”

মোবাইল ফোন হারানোর ফলে অনেক স্মৃতি হারিয়ে ফেলেছেন জানিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, “আমার পরিবারের অনেক দুর্লভ ছবি ছিল। সেগুলো তো আর পাব না। আমি হয়তো আরেকটি মোবাইল ফোন আজই কিনে নিতে পারব। কিন্তু ফোনের স্মৃতিগুলো তো নষ্ট হয়ে যাবে।“

ভীষণ মন খারাপ লাগছে জানিয়ে তিনি বলেন, “আমার অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতি চুরি হয়ে গেছে। বলে বোঝাতে পারবো না আমার কতটা কষ্ট হচ্ছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক