চট্টগ্রামে দোকানি খুনের পেছনে ‘যৌন নিপীড়ন’, ১ জন গ্রেপ্তার

নিয়মিত নির্যাতনে ‘অতিষ্ট’ হয়ে ক্রাইম পেট্রোল দেখে খুনের পরিকল্পনা করেন গ্রেপ্তার জিসান।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 August 2022, 01:13 PM
Updated : 6 August 2022, 01:13 PM

চট্টগ্রাম নগরীর দাইয়াপাড়া এলাকায় দোকানি খুনের পেছনে ‘যৌন নিপীড়ন’ বলে এক তরুণকে গ্রেপ্তারের পর জানিয়েছেন গোয়েন্দারা।

গ্রেপ্তার মো. আদনান ওরফে জিসান (২০) নিহত দোকানি শাহাদাত হোসেনের পূর্ব পরিচিত। নগরীর হালিশহর সবুজবাগ এলাকায় তার বাসা।

গত শুক্রবার আনোয়ারা উপজেলার তেকোটা গ্রাম থেকে জিসানকে গ্রেপ্তারের পর নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (বন্দর) সামীম কবির এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, শাহাদাতের ‘যৌন নিপীড়ন’ থেকে রেহাই পেতেই জিসান তাকে ছুরিকাঘাত করে খুন করে।

গত ১ অগাস্ট নগরীর ডবলমুরিং থানার আগ্রাবাদের দাইয়াপাড়া এলাকায় একটি টয়লেট থেকে শাহাদাতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ, যিনি ওই এলাকায় একটি মুদি দোকান চালাতেন।

Also Read: চট্টগ্রামে টয়লেটে দোকানির লাশ

গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জিসানের দাবি, বিভিন্ন সময়ে শাহাদাত তাকে ‘যৌন নিপীড়ন’ করতেন। নিয়মিত নির্যাতনে ‘অতিষ্ট’ হয়ে ক্রাইম পেট্রোল দেখে খুনের পরিকল্পনা করেন। সে অনুযায়ী ৪০০ টাকা দিয়ে একটি ছুরিও কেনে।

হত্যাকাণ্ডের পর দুই দিন নগরীতে অবস্থান করলেও পরে তিনি বোনের বাড়ি তেকোটা গ্রামে চলে যান। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে অবস্থান নিশ্চিতের পর শুক্রবার জিসানকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান এডিসি সামীম।

এডিসি সামীম কবির বলেন, দোকান থেকে কেনাকাটার সুবাদে শাহাদাত ও জিসানের সখ্যতা গড়ে উঠেছিল। এক রাতে গেইট বন্ধ করে দেওয়ায় বাসায় ঢুকতে না পারলে দোকানি শাহাদাত হালিশহর গুলবাগ এলাকায় তার বাসায় জিসানকে থাকতে নিয়ে যান।

“সেরাতে শাহাদাত ভয়-ভীতি দেখিয়ে জিসানকে ‘যৌন নিপীড়ন’ করেন।“

এরপরও শাহাদাত বিভিন্ন সময়ে নিপীড়ন চালাতেন। এ থেকে রক্ষা পেতেই খুনের পরিকল্পনা করেন বলে গোয়েন্দাদের জানিয়েছেন জিসান।

এডিসি সামীম জানান, খুনের ঘটনাও ঘটে রাতে। নিহতের বুক, পেট, হাত ও উরুতে উপর্যুপুরি ছুরিকাঘাত করা হয়।

হত্যার পর জিসান পাশের একটি ঝোপে ছুরিটি ফেলে দিয়ে শাহাদাতের মোবাইল নিয়ে চলে যায়। শুক্রবার জিসানকে গ্রেপ্তারের পর তার দেখানো স্থান থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটিও উদ্ধার করা হয়েছে বলে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক