বাবরের সেঞ্চুরি আর রিজওয়ানের সঙ্গে জুটিতে রেকর্ডের জোয়ার

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০ উইকেটে জয়ের ম্যাচে একগাদা রেকর্ডে নাম উঠে গেছে পাকিস্তানের এই দুই ব্যাটসম্যানের।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Sept 2022, 06:47 AM
Updated : 23 Sept 2022, 06:47 AM

২০০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুর জুটিতেই খেলা শেষ! ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে অসাধারণ এক জুটিতে পাকিস্তানকে ১০ উইকেটের জয় এনে দেন বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। স্ট্রাইক রেট নিয়ে তুমুল সমালোচনার মধ্যে থাকা এই দুজন ব্যাট হাতে যেমন জবাব দেন, তেমনি তাদের ব্যাটিংয়ে ঝড় ওঠে রেকর্ড বইয়েও।

করাচিতে বৃহস্পতিবার ১১ চার ও ৫ ছক্কায় বাবর খেলেন ৬৬ বলে ১১০ রানের অপরাজিত ইনিংস। ৫ চার ও ৪ ছক্কায় রিজওয়ান অপরাজিত থাকেন ৫১ বলে ৮৮ রান করে।

দুজনের ২০৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ৩ বল থাকতে ম্যাচ শেষ করে দেয় পাকিস্তান। বাবরের ব্যক্তিগত কিছু অর্জন ধরা দেয় এই ইনিংসে, রিজওয়ানের সঙ্গে তার জুটিতেও হয় কিছু রেকর্ড।

পাকিস্তানের প্রথম বাবর

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে একাধিক সেঞ্চুরি করলেন বাবর আজম। প্রথমটি করেছিলেন তিনি গত বছরের এপ্রিলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে।

পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সেঞ্চুরি আছে আর কেবল আহমেদ শেহজাদ ও মোহাম্মদ রিজওয়ানের।

এই সংস্করণে ৪ সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ড রোহিত শর্মার। তিনটি করে সেঞ্চুরি গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, কলিন মানরো ও চেক প্রজাতন্ত্রের সাবাউন দাভিজির।

নেতার শতরানে সেরা বাবর

নেতৃত্বের বয়স খুব একটা হয়নি এখনও বাবর আজমের। কিন্তু পাকিস্তানের সমৃদ্ধ ক্রিকেট ইতিহাসে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির কীর্তি এখনই হয়ে গেছে তার।

১০টি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি হয়ে গেল তার। পেছনে ফেললেন কিংবদন্তি ইনজামাম-উল-হককে।

অধিনায়ক হিসেবে ১৩১ ইনিংসে ৯ সেঞ্চুরি ইনজামামের। বাবর তাকে ছাড়িয়ে গেলেন ৮০ ইনিংসেই। মিসবাহ-উল-হকের ৮ সেঞ্চুরিতে লেগেছে ১৮৯ ইনিংস।

জোড়া সেঞ্চুরিতে তৃতীয় বাবর

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে নিজের দুটি সেঞ্চুরিই বাবর আজম করলেন অধিনায়ক হিসেবে।

অধিনায়ক হিসেবে দুটি সেঞ্চুরি আছে আর কেবল দুজনের, ভারতের রোহিত শর্মা ও সুইজারল্যান্ডের ফাহিম নাজির।

গেইলের পর বাবর

এই সেঞ্চুরির পথে স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে ৮ হাজার রান পূর্ণ করেন বাবর আজম। স্রেফ ২১৮ ইনিংসেই এই মাইলফলক ছুঁলেন তিনি। তবে অল্পের জন্য ছুঁতে পারলেন না ক্রিস গেইলের রেকর্ড।

দ্রুততম ৮ হাজারের রেকর্ড গেইলের। ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তির লেগেছে ২১৩ ইনিংস।

এই দুজনের বেশ পেছনে থেকে তিনে বিরাট কোহলি, তার লেগেছে ২৪৩ ইনিংস। অ্যারন ফিঞ্চের লেগেছে ২৫৪ ইনিংস, তার অস্ট্রেলিয়ান সতীর্থ ডেভিড ওয়ার্নারের ২৫৬ ইনিংস।

কাকতাল

ইনিংসের দিক থেকে ক্রিস গেইলের চেয়ে বাবর আজম একটু পিছিয়ে থাকলেও সময়ের হিসেবে অবিশ্বাস্যভাবে দুজন পাশাপাশি! অভিষেক থেকে ঠিক ৯ বছর ২৯৫ দিনে ৮ হাজার ছুঁয়েছেন দুজনই।

১০ বছরের কম সময়ে ৮ হাজারে যেতে পারেননি আর কেউ।

 বাবর-রিজওয়ানের কীর্তি (১)

রান তাড়ায় দুইশ রানের জুটি এই প্রথম দেখল টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট।

রান তাড়ায় সবচেয়ে বড় জুটির আগের রেকর্ডও ছিল এই দুজনেরই। গত বছরের এপ্রিলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৯৭ রানের জুটি গড়েছিলেন তারা। 

বাবর-রিজওয়ানের কীর্তি (২)

টি-টোয়েন্টিতে সফল রান তাড়ায় সবচেয়ে বড় জুটি ও অবিচ্ছিন্ন সবচেয়ে বড় জুটিও স্বাভাবিকভাবে এটিই।

রান তাড়ায় আগের সবচেয়ে বড় অবিচ্ছিন্ন জুটি ছিল কেন উইলিয়ামস ও মার্টিন গাপটিলের। ২০১৬ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১০ উইকেটে জয়ে নিউ জিল্যান্ডের দুই ব্যাটসম্যানের অপরাজেয় বন্ধন ছিল ১৭১ রানের।

বাবর-রিজওয়ানের কীর্তি (৩)

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি শতরানের জুটির রেকর্ড আগে থেকেই ছিল এই দুজনের। এখন তা আরও সমৃদ্ধ করলেন তারা। এই দুজনের সেঞ্চুরি জুটি এখন ৭টি।

৬টি শতরানের জুটি গড়েছেন তারা ওপেনিংয়ে, একটি দ্বিতীয় উইকেটে।

৫টি সেঞ্চুরি জুটিতে দুইয়ে আছে রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল জুটি।

বাবর-রিজওয়ানের কীর্তি (৪)

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জুটি হিসেবে ২ হাজার রানের মাইলফলকের দিকে আরও অনেকটা এগিয়ে গেছেন তারা। এই ম্যাচের পর তাদের জুটির রান ১ হাজার ৯২৯। ৩৬ ইনিংস একসঙ্গে ব্যাট করে তাদের গড় ৫৬.৭৩।

৫২ ইনিংসে ১ হাজার ৭৪৩ রান তুলে দুইয়ে আছে রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ান জুটি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক